• শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ৩ কার্তিক ১৪২৬  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সুরমা নদীতে বালু উত্তোলন বন্ধে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি

  সিলেট প্রতিনিধি

১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৬:২৮
স্মারকলিপি
প্রধানমন্ত্রী বরাবর প্রদানকৃত স্মারকলিপি (ছবি : দৈনিক অধিকার)

সুরমা নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ, বিয়ানীবাজার ও কানাইঘাট উপজেলাধীন নদীর তীরবর্তী এলাকার লোকজনের পক্ষ থেকে বিভাগীয় কমিশনারের পর এবার প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। 

বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর এ স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। 

স্মারকলিপিতে ওই তিন উপজেলার নদীর তীরবর্তী লোকজন উল্লেখ করেছেন, সিলেট জেলার আফতাব ওরফে বালু আফতাব ওরফে কার্পেট আফতাব, লুতু মিয়া ওরফে কন্ট্রাক্টর লুতু, অলি, রাবেল, ফয়ছল, মইব আলী, জাহাঙ্গির, জাবের চৌধুরী, ফখর, হানিফ, সাংবাদিক আব্দুল আহাদ ওরফে নুর মিয়াসহ তাদের সঙ্গীয় বাহিনীর অবৈধ বালু উত্তোলনের কারণে উপজেলা সমূহের কয়েক শতাধিক গ্রাম হুমকির সম্মুখীন হয়েছে। তাদের মাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে এসব এলাকার লোকজনকে মারধরসহ ফৌজদারি অপরাধ সংঘটিত হয়েছে। ফলে যে কোনো সময় রক্তক্ষয়ী সংঘাতের আশঙ্কা রয়েছে বলেও উল্লেখ করেছেন এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী আরও উল্লেখ করেছেন, সুরমা নদীতে অবৈধভাবে পাম্প (টমটম), ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের কারণে সুরমা নদীর তীরবর্তী এলাকা নদী ভাঙনের শিকার হয়ে ইতোমধ্যেই এসব এলাকার বিভিন্ন স্থাপনা, বাড়িঘর, রাস্তাঘাট, ব্রিজ-কালভার্ট, মসজিদ, কবরস্থান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সিলেট জকিগঞ্জ নদীরক্ষা বাঁধ (ডাইক) বিলীন হওয়ার পাশাপাশি হুমকির সম্মুখীন। অবৈধ এসব বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় আমরা প্রতিবাদ করলেও তাদের হুমকি-ধমকির কারণে এলাকাবাসী দিশেহারা। এলাকার পুরুষ-মহিলা, যুবক-যুবতী, বৃদ্ধা কেউ তাদের হুমকি-ধমকি থেকে রক্ষা পাচ্ছেন না। এমনকি এলাকার কেউ যাতে প্রতিবাদ করতে না পারে তা নিশ্চিত করতে তাদের নিজস্ব লাঠিয়াল বাহিনী রয়েছে। এরপরও কেউ প্রতিবাদ করলে তাদের বাহিনীর লোকেরা রাতের আঁধারে নির্যাতন করে। ফলে ভয়ে কেউ প্রশাসনের শরণাপন্ন হন না। 

প্রতিদিন অবৈধ বালু উত্তোলনকারী ও তাদের সন্ত্রাসী বাহিনী আমাদের এলাকায় অস্ত্রসহ টহল দিচ্ছে। তারা নদীর তীর থেকে বালু উত্তোলন করার কারণে নদীর পাড়ে ভাঙন দেখা দিয়েছে। আবাসিক এলাকার কয়েক শতাধিক পরিবার বিভিন্ন সময়ে নদী ভাঙনের কারণে গ্রাম ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছে। কয়েক শতাধিক পরিবার ভূমিহীন হয়েছে। এছাড়া আরও অনেকেই এমন পরিণতির শঙ্কায় ভুগছেন।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশে স্মারকলিপিতে এলাকাবাসী বলেছেন, ‘আপনি বাংলাদেশকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয় নিয়ে দেশ পরিচালনা করছেন। আমরা বিভিন্ন সময়ে সোনার বাংলা গড়ার পথে ব্যাঘাত সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়কে অবগত করে যাচ্ছি। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৩ জুন ২০১৯ তারিখে সিলেট জেলা প্রশাসক বরাবরে, গত ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার বরাবরে এলাকাবাসীর পক্ষে অভিযোগ দাখিল করেছি। প্রশাসন বিভিন্ন সময়ে লোক দেখানো অভিযান করলেও অভিযান শুরুর পূর্বেই খবর পেয়ে যায় এসব অবৈধ বালু উত্তোলনকারীরা। ফলে বালু উত্তোলনকারী পাম্প (টমটম), ড্রেজার স্থানান্তরিত করে অন্য জায়গায় সরিয়ে ফেলে তারা। এতে অভিযান করেও কোনো ফলাফল পাওয়া যাচ্ছে না। 

এলাকাবাসী বলেন, প্রশাসনের এক শ্রেণির অসাধু কর্মকর্তাদের ছত্রছায়ায় তারা এসব কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন সময়ে সুরমা নদীর বালু উত্তোলন নিয়ে ফৌজদারি অপরাধ সংঘটিত হয়ে চলায় ভবিষ্যতে এখানে রক্তক্ষয়ী সংঘাতের আশঙ্কা বিরাজ করছে।

ওডি/আইএইচএন

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড