• শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬  |   ৩৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কোটি টাকার ভবনে নিম্নমানের ইট-খোয়া

  নাটোর প্রতিনিধি

১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৩:০২
নাটোর
নিম্নমানের খোয়া (ছবি : দৈনিক অধিকার)

নাটোরের সিংড়ার সাতপুকুরিয়া দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে কোটি টাকার দ্বি-তল ভবন নির্মাণে নিম্নমানের ইট ও খোয়া দিয়ে কাজ করার অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। মানহীন ইট এবং খোয়া ব্যবহার বন্ধে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি বারবার শিক্ষা প্রকৌশল এবং ঠিকাদরকে বললেও তারা কোনো কর্ণপাত করেনি।

সূত্র জানায়, সিংড়ার চলনবিলের প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত সাতপুকুরিয়া দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলা উর্ধ্বমুখী ভবনের কাজ করছেন রাজশাহীর মেসার্স মুমু এন্টারপ্রাইজের ঠিকাদার আমিরুল কবির বাবু। যার চুক্তি মূল্য ধরা হয়েছে ১ কোটি ২ লাখ ৫৬ হাজার টাকা।

কাজের শুরু থেকেই দ্বিতীয় তলা ভবনে পিলার ঢালাই কাজে অতি নিম্নমানের খোয়া ব্যবহার করার বারবার অভিযোগ করে আসছে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি ও স্থানীয় এলাকাবাসী। কিন্তু শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর দেখেও যেন না দেখার ভান করেছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিলের ধারে অবস্থিত এই প্রতিষ্ঠানে নিম্নমানের ও ধুলো মিশ্রিত খোয়া দিয়ে ঢালাই কাজ চলছে। বিষয়টি নিয়ে জানতে চাওয়া হলে কাজ দেখা-শোনায় নিয়োজিত রুবেল হোসেন বলেন, এক গাড়ি ইটে একশ থেকে দেড়শটি ইট খারাপ আসবেই। এটা কোনো ব্যাপার নয়।

অভিযোগ রয়েছে, বিষয়টি সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীকে অবগত করা হলেও তারা সরেজমিনে এসে কাজ পরিদর্শন করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে নিম্নমানের মালামাল ফেরত নিতে বলেছেন। কিন্তু সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সেদিকে কর্ণপাত না করে ইচ্ছেমতো কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

স্কুলের একাধিক শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা বলছে, নিম্নমানের খোয়া ব্যবহারের ফলে যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বাজারে লোকজন আলোচনা করছে কাজটিতে নিম্নমানের খোয়া ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে আমাদের সন্তানদের নিয়ে আমরা খুবই চিন্তিত। কারণ প্রতিষ্ঠানটি বিলের ধারে অবস্থিত।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এটা নিয়ে অনেক কথা ও বাধা দেওয়া হয়েছে। আর ম্যানেজিং কমিটির সভা করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

ঠিকাদার আমিরুল কবির বাবুর সেল ফোনে একাধিকবার ফোন দিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তার কাজের পার্টনার সোহেল হোসেন বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে পরবর্তীতে জানানো হবে।

নাটোর শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপসহকারী প্রকৌশলী বকুল হোসেন বলেন, অভিযোগ পাওয়ার আমরা ঠিকাদারদের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। ঠিকাদারকে নতুন ভাল খোয়া এনে কাজ করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ভাল খোয়া না আনলে তাকে আর কাজ করতে দেওয়া হবে না।

ওডি/এমবি

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড