• বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

গোল দিতে না পারায় দর্শক-খেলোয়াড়দের সংঘর্ষ, আহত ৩০

  লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২৩:০০
সংঘর্ষ
সংঘর্ষের ঘটনায় আহতদের কয়েকজন (ছবি : দৈনিক অধিকার)

গোল দিতে না পারায় লক্ষ্মীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট (বালক) অনূর্ধ্ব-১৭-এর সেমিফাইনাল খেলায় মাঠেই দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে সদর উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা ও ছাত্রলীগ নেতাসহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে সদর উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মো. আনিসুজ্জামান, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম নিশান ও সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি কিনান জোবায়ের শুভ আহত হন। এছাড়া আহত অন্যরা হলেন- খেলোয়াড় সাইফুল, নিশাদ, বিপ্লব, আকবর, নাইম, জুয়েল, সজিব, সাইফুল, জিহাদ, জকির হোসেন, ইউসুফ, শাকিল, ইসমাইল, সোহাগসহ ২৭ জন। 

আহতরা সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ, দালালবাজার ও পৌরসভার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা। তারা সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) বিকালে জেলা স্টেডিয়াম মাঠে ভবানীগঞ্জ ও দালালবাজার ইউনিয়ন ফুটবল দলের খেলোয়াড় ও দর্শকদের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, গোল দিতে না পেরে খেলার শেষ দিকে প্রতিপক্ষ দলের খেলোয়াড়দের ওপর চড়াও হয় দালালবাজার দলের খেলোয়াড়রা। মুহূর্তের মধ্যে দুই দলের খেলোয়াড় ও দর্শকেরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পোশাকধারী ও গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ঘটনাস্থল গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় দালালবাজার দলের কোচ সুজন হোসেনসহ দুইজনকে আটক করা হয়। 

সংঘর্ষের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিল তাদের আটকের নির্দেশ দেন। পরে অবশ্য তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। 

উপজেলা প্রশাসন জানায়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট (বালক) অনূর্ধ্ব-১৭-এর সেমিফাইনাল ম্যাচে শনিবার বিকালে সদর উপজেলার দালাল বাজার ও ভবানীগঞ্জ ইউনিয়ন অংশগ্রহণ করে। এ খেলায় দালাল বাজার ইউনিয়ন দলের খেলোয়াড়দের ৬টি হলুদ কার্ড ও ১টি লাল কার্ড দেখানো হয়। অন্যদিকে ভবানীগঞ্জ দলের দুজনকে হলুদ কার্ড দেখানো হয়। এ খেলায় ২-০ গোলে জয়লাভ করে ভবানীগঞ্জ ইউনিয়ন দল।

খেলার শেষের দিকে রেফারি দালাল বাজার ইউনিয়নের এক খেলোয়াড়কে লাল কার্ড দেন। এ নিয়ে বিতর্ক হলে রেফারি ম্যাচ পরিচালকদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে যান। এ সময় ভবানীগঞ্জ ইউনিয়ন দুই গোলে এগিয়ে থাকায় দালাল বাজারের খেলোয়াড়রা তাদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে দুই ইউনিয়নের দর্শকেরা স্টেডিয়াম গ্যালারি থেকে লাঠিসোটা ও লোহার রড নিয়ে মাঠে নেমে এসে মারামারিতে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় তাদের থামাতে গিয়ে যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা ও ছাত্রলীগ নেতারাও নাজেহাল হয়ে পড়েন। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

এ দিকে, রাতে লক্ষ্মীপুর-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শাহজাহান কামাল আহতদের দেখতে সদর হাসপাতালে যান। এ সময় ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিচারের আশ্বাস দেন তিনি।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিল জানান, তুচ্ছ ঘটনায় খেলার মাঠে দুই পক্ষের মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়। উভয় পক্ষকে শান্ত করে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করা হয়। অপ্রীতিকর এমন ঘটনা এড়াতে ফাইনাল খেলায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হবে।

ওডি/আইএইচএন

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড