• শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৫ আশ্বিন ১৪২৬  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন

অপহরণের ৩০ ঘণ্টার মাথায় কলেজ শিক্ষককে উদ্ধার, গ্রেফতার ৫

  বিনোদন ডেস্ক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৫:৪৪
গ্রেফতার
গ্রেফতার পাঁচ অপহরণকারী (ছবি : সংগৃহীত)

অপহরণের ৩০ ঘণ্টার মাথায় নারায়ণগঞ্জের তোলারাম কলেজের সহযোগী অধ্যাপক সারোয়ার জাহানকে (৫২) উদ্ধার করেছে র‌্যাব। সেই সঙ্গে তাকে অপহরণের অভিযোগে পাঁচ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 

র‍্যাব জানায়, গত বুধবার সন্ধ্যায় মিরপুরের ৬০ ফুট সড়ক এলাকা থেকে সারোয়ার জাহানকে অপহরণ করা হয়। অপহরণের ৩০ ঘণ্টার মাথায় শুক্রবার ভোরে রাজধানীর দক্ষিণ মণিপুর এলাকার একটি বাসা থেকে ওই কলেজ শিক্ষককে উদ্ধার করা হয়। সেই সঙ্গে অপহরণে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হয়। 

গ্রেফতারকৃতরা হলো- মোরশেদ আলম (৩৫), ফাহিজ সাদমান (২০), নাফিজ খান (২০), সাহানা নাজনীন (৩৫) ও সাবিহা নাজনীন (২৮)। এদের মধ্যে ফাহিজের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লায়, অন্য চারজনের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায়।

র‍্যাব আরও জানায়, অপহরণের আগে অধ্যাপক সারোয়ার জাহান নিজের মোটরসাইকেলে কল্যাণপুরে বন্ধুর বাসায় বেড়াতে যাচ্ছিলেন। পথে মিরপুরের ৬০ ফুট সড়কে একটি অটোরিকশা তার বাইকের গতিরোধ করে। এরপর অটোরিকশা থেকে নেমে অপরিচিত কয়েকজন যুবক তাকে অপহরণ করে দক্ষিণ মণিপুর এলাকার একটি বাসায় নিয়ে যায়। তারা সারোয়ারকে মারধর করে তার পরিবারের কাছে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। পরে পরিবারের বিষয়টি র‌্যাব-৪ কে জানায়।

এ ব্যাপারে র‍্যাব-৪ এর জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক (মিডিয়া কো-অর্ডিনেটর) মোহাম্মদ সাজেদুল ইসলাম বলেন, গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিরা ঢাকার বাইরে কুমিল্লা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা থেকে অপহরণের কাজ করে থাকে। তারা প্রথমে কোনো ব্যক্তিকে টার্গেট করে, এরপর তাকে অপহরণ করে দক্ষিণ মণিপুরের একটি বাসায় আটকে রাখে।

মোহাম্মদ সাজেদুল ইসলাম বলেন, চারতলা ভবনের নিচতলার ওই ফ্ল্যাটে আটকে রাখার পর সারোয়ার জাহানকে পেটানো হয়। এ সময় অপহরণকারীরা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মারধরের শব্দ শুনিয়ে পরিবারের কাছে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। সারোয়ারের পরিবার দুটি বিকাশ নম্বরের মাধ্যমে ৪০ হাজার টাকা দেন। অপহরণকারীরা সারোয়ার জাহানের ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমেও টাকা তোলেন। কিন্তু এক পর্যায়ে সারোয়ার জাহানের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। পরে তার পরিবারের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে র‌্যাব-৪ তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় অপহরণকারীদের অবস্থান শনাক্ত করে। এরপর সারোয়ারকে উদ্ধার করে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা করিয়ে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

তিনি বলেন, অপহরণকারী চক্রটি এর আগেও এই বাসায় লোকজনকে এনেছে বলে প্রতিবেশীরা জানিয়েছে। এরা সাত-আট দিন পরপর বাসায় আসত। কিছুদিন থাকার পর আবার চলে যেত। তিন কক্ষের এই ফ্ল্যাটের আলাদা একটি কক্ষে অপহৃতদের আটকে রাখা হতো। আশপাশের লোকজনের দৃষ্টি এড়াতে নারীদের সঙ্গে রাখত অপহরণকারীরা।

ওডি/ এফইউ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড