• বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন

সর্বশেষ :

ক্যাসিনোর মালিক যুবলীগ নেতা খালেদসহ আটক ১৪২  ||বিমানের উন্নতির জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টার প্রতিশ্রুতি মোকাব্বিরের ||আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা, প্রতিবাদে ঢাবিতে বিক্ষোভ  ||সৌদিতে হামলার সঙ্গে ইরান জড়িত নয় : জাপান||পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ফোনালাপ, যা বললেন আবদুল মোমেন||ছাত্রদলের কাউন্সিলরদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বসছেন তারেক||হংকংয়ে শান্তি ফেরাতে আবারও সংলাপ চান ক্যারি ল্যাম||বাংলাদেশে মানুষ পাঠানোর ষড়যন্ত্র করছে ভারত : মওদুদ||জাতিসংঘে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বিশ্বের জোরালো ভূমিকা চাইবেন প্রধানমন্ত্রী ||ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে ফিলিস্তিনি নারীর নির্মম মৃত্যু (ভিডিও)

এমপির সামনেই উপজেলা ও ইউপি চেয়ারম্যানের হাতাহাতি

  রাজশাহী প্রতিনিধি

১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:০৯
হাতাহাতি
ছবি : দৈনিক অধিকার

রাজশাহীর পবা উপজেলা পরিষদে স্থানীয় এমপির সামনে উপজেলা ও ইউপি চেয়ারম্যানের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। এ সময় জুতা-স্যান্ডেল নিক্ষেপের ঘটনাও ঘটে। 

বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) দুপুর আড়াইটার দিকে পবা উপজেলা পরিষদের দ্বিতীয় তলায় ভাইস চেয়ারম্যানের কক্ষে এ ঘটনা ঘটে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রত্যক্ষদর্শী এক ইউপি চেয়ারম্যান জানান, পবা উপজেলার পারিলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল বারী ভুলু স্থানীয় এমপি আয়েন উদ্দিনকে বিভিন্নভাবে গালাগালি করে এমন অভিযোগ নিয়ে দুইজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এর এক পর্যায়ে ভুলু ওই রুম থেকে বের হতে গেলে উপজেলা চেয়ারম্যান মনসুর রহমান পেছন থেকে তাকে ধরে কিল-ঘুষি মারেন। এ সময় ভুলুও ঘুরে উঠে মনসুরকেও কিল-ঘুষি মারেন। তাদের মধ্যে হাতাহাতির এক পর্যায়ে ওই কক্ষে উপস্থিত অন্যরা তাদের থামানোর চেষ্টা করেন। পরে ভুলু সেখান থেকে বের হয়ে চলে যায়।

পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সাইফুল বারী ভুলু গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় এমপির সঙ্গে তার দূরত্ব সৃষ্টি হয়।

পারিলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল বারী ভুলু বলেন, ‘আমি পাশের রুমে বসে অন্য চেয়ারম্যানদের সঙ্গে গল্প করছিলাম। এ সময় এমপি ডাকছে বলে একজন পিয়ন আমাকে ডেকে নিয়ে যায়। রুমে ঢোকার পর এমপি আয়েন উদ্দিন (রাজশাহী-৩ পবা-মোহনপুর আসন) তাকে গালাগালি করি বলে আমাকে ধমক দেয়। আমি বিষয়টি অস্বীকার করে রুম থেকে বের হওয়ার সময় উপজেলা চেয়ারম্যান মনসুর পেছন থেকে আমার ওপর হামলা ও মারধর শুরু করে। সে আমাকে ৩ থেকে ৪ বার ঘুষি মারে আমিও তাকে দুই ঘুষি মেরে দিয়েছি।’

হাতাহাতির বিষয়টি অস্বীকার করে উপজেলা চেয়ারম্যান মনসুর বলেন, ‘গালাগালি করা নিয়ে এমপি আয়েনউদ্দিন ও ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল বারী ভুলুর মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে সেখানে উত্তেজনা সৃষ্ট হয়। এর বেশি কিছু ঘটেনি।’

এমপি আয়েন উদ্দিন বলেন, ‘ইউপি চেয়ারম্যান ভুলুকে আমি ডেকে নিয়ে জিজ্ঞেস করি, আপনার বয়স হয়েছে, আপনি আমাকে কেন গালাগালি করেন। তবে তিনি আমাকে গালাগালি করার কথা অস্বীকার করেন। এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান বলেন, আমাকেও গালাগালি করে ভুলু। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও উভয়ের মধ্যে উত্তেজনা হয়। তবে হাতাহাতির মতো কোনো ঘটনা সেখানে ঘটেনি।’ 

ওডি/এএসএল

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড