• বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

প্রসূতির পেটে গজ ও টিস্যু রেখে সেলাই, অবশেষে মৃত্যু 

  সোনারগাঁও প্রতিনিধি, নারায়ণগঞ্জ

০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৮:০১
হাসপাতাল ভাঙচুর
সোনারগাঁও জেনারেল হাসপাতাল ভাঙচুর করে রোগীর স্বজনরা ( ছবি : দৈনিক অধিকার )

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলায় ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগে হাসপাতালে ভাঙচুর করেছে রোগীর স্বজনরা। সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) উপজেলার মোগরাপাড়া চৌরাস্তায় সোনারগাঁও জেনারেল হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। 

রোগীর স্বজনরা ও এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার মোগরাপাড়া ইউনিয়নের বড় সাদিপুর গ্রামের পিন্টু মিয়ার স্ত্রী আমান্তিকার (২০) প্রসব ব্যাথা উঠলে তাকে গত শুক্রবার সোনারগাঁও জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সন্ধ্যায় ওই হাসপাতালের চিকিৎসক নুর জাহান বেগম প্রসূতির অস্ত্রোপচার করেন। অস্ত্রোপচারের পরও তার পেটের ভেতরে গজ ও টিস্যু থাকায় রোগীর পেট ব্যাথা শুরু করে। পরে বিষয়টি চিকিৎসক নুরহাজানকে জানালে রোগীকে নারায়ণগঞ্জের কেয়ার জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসতে বলেন। ওই হাসপাতালে শনিবার আবারও আমান্তিকার অস্ত্রোপচার করে গজ ও টিস্যু পেপার বের করেন এবং ওই সময় জরায়ুতে ক্ষত সৃষ্টি হলে রোগীর স্বজনদের অনুমতি নিয়ে জরায়ু কেটে ফেলে দেওয়া হয়। জরায়ু কেটে ফেলার পর রোগীর অবস্থা আরও আশঙ্কাজনক হলে তাকে অন্য হাসপাতালের স্থানান্তরের পরামর্শ দেয় চিকিৎসকরা। পরে ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে নেওয়ার পথেই সোমবার সকালে রোগীর মৃত্যু হয়। 

এ দিকে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর খবর এলাকায় পৌঁছালে রোগীর স্বজন ও এলাকাবাসীরা মোগরাপাড়া চৌরাস্তার সোনারগাঁও জেনারেল হাসপাতালে গিয়ে ভাঙচুর করে। পরে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। 

নিহত প্রসূতি আমান্তিকার স্বামী পিন্টু মিয়া জানান, ভুল চিকিৎসার কারণেই রোগীর মৃত্যু হয়েছে। অস্ত্রোপচারের পরেই পেট ফুলে যায়। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় অন্য হাসপাতালে নেওয়ার পথেই মারা যায় আমান্তিকা। 

এ বিষয়ে চিকিৎসক নুর জাহান ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের কাউকে পাওয়া যায়নি। 

সোনারগাঁও থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মাসুদ রানা জানান, এ ঘটনায় পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে। থানায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও রোগীর স্বজনদের দায়ের করা দুটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা হালিমা সুলতানা হক জানান, এ ঘটনায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে একটি তদন্ত টিম পাঠানো হয়েছে। 

ওডি/এসএএফ 

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড