• রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন

সর্বশেষ :

নিজ দেশে ফিরে যেতে রোহিঙ্গাদের দুই শর্ত||এ পি জে আব্দুল কালামের স্মৃতিতে ভূষিত প্রধানমন্ত্রী  ||উদ্বেগ থাকলেও ভারতের ওপর বিশ্বাস রাখতে চাই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ||ছাত্রলীগের চাঁদাবাজি ঢাকতেই ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধ : রিজভী ||কাশ্মীরে জঙ্গি অনুপ্রবেশের অভিযোগে সীমান্তে‌ হাই অ্যালার্ট||ভারতের পর এবার বিশ্বকে পরমাণু যুদ্ধের হুঁশিয়ারি পাকিস্তানের||সোমবার আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব নেবেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক||মেক্সিকোয় কুয়া থেকে ৪৪ মরদেহ উদ্ধার করল বিজ্ঞানীরা||অন্যায় করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না : কাদের    ||সৌদির তেল স্থাপনাতে হামলায় ইরানকে দায়ী করল যুক্তরাষ্ট্র

কাশফুলের বালুচর

  প্রিতম পাল, মৌলভীবাজার প্রতিনিধি

০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:২৫
কাশবন
কাশবন (ছবি : দৈনিক অধিকার)

নীল আকাশ, সবুজ মাঠে সাদা রঙা কাশফুল। এ যেন ঋতুরাণী শরতের বৈশিষ্ট্য। এই শরতে পর্যটন নগরী খ্যাত চায়ের রাজধানী শ্রীমঙ্গলের বিটিআরআই সংলগ্ন সবুজ চা বাগানের পাদদেশে ছড়ার পাড়ে বালুচরের পাশেই মাথা উঁচু করে দোল খাচ্ছে শুভ্র সাদা কাশফুল। এক নয়নাভিরাম সৌন্দর্য যেন হাতছানি দিয়ে ডাকছে পর্যটকসহ প্রকৃতিপ্রেমী মানুষদের। সেখানে প্রাকৃতিকভাবেই তৈরি হয়েছে এই কাশফুলের বালুচর। আর এই নজরকাড়া কাশ ফুলের হাতছানি আপনার মন হরণ করতে বাধ্য। এ জন্য এর সৌন্দর্য উপভোগ করতে স্থানীয়রা ছাড়াও শ্রীমঙ্গলে বেড়াতে আসা পর্যটকরা প্রতিনিয়ত ভিড় জমাচ্ছে সেখানে।

শ্রাবণ মাস শেষে ভাদ্র মাসের শুরুতে তথা শরতের আগমনে বর্ষা ঋতুকে বিদায় জানিয়ে প্রকৃতিতে আসে শরৎকাল। শরৎকে বলা হয় শুভ্রতার প্রতীক। শিউলি ফুল, স্বচ্ছ আকাশ, মায়াবী জ্যোৎস্নার কারণেই এমন নাম হয়েছে। তবে এ ঋতুর মধ্যে অন্যতম বৈশিষ্ট্য কাশফুল। 

কাশফুলের বালুচরে ঘুরতে আসা স্থানীয় ব্যক্তিত্ব সব্যসাচী জানান, প্রাত্যহিক জীবনের কর্মব্যস্ততার ভার কিছুটা লাঘব করতে উপজেলাবাসীসহ আগন্তুক পর্যটকরা ছুটে আসে এখানে। পাহাড়ি সরু স্রোতধারার (ছড়া) বুকে জেগে উঠা চরে শরতের শুভ্রাকাশের পাদদেশে দোল খাওয়া কাশফুলের বালুচর পুরো শরৎকালের জন্য আগন্তুকদের বিনোদনের এক অন্যতম মাধ্যম।

ঢাকা থেকে পর্যটক রোজি আক্তার জানান, শ্রীমঙ্গল এমনিতেই পর্যটন নগরী হিসেবে দেশব্যাপীখ্যাত। বাড়তি আনন্দ হিসেবে শরতের এই কাশফুলের বালুচর দেখতে গতবারও আমি সপরিবারে এসেছিলাম। শ্রীমঙ্গলের এই সময়ের এই কাশফুলের বালুচর আসলেই আমাদের মতো পর্যটকদের মনে বাড়তি আনন্দ যোগ করে।  

শ্রীমঙ্গল পর্যটন সেবা সংস্থার আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এস কে দাশ সুমন জানান, শ্রীমঙ্গলের পর্যটন শিল্প ক্ষেত্রে নতুন সম্ভাবনার মাত্রা যোগ করেছে বিটিআরআই চা বাগানের পাদদেশে অবস্থিত বালুচরে কাশফুলের সমারোহ। কিন্তু বাগান কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে পর্যটকদের চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করায় এবং প্রচারের অভাবে যেমন ব্যাহত হচ্ছে দর্শনার্থীদের সৌন্দর্য উপভোগ, তেমনি পর্যটন ক্ষেত্রে নতুন দর্শনীয় স্থান সংযোজনে তৈরি হচ্ছে জটিলতা। দেশি-বিদেশি পর্যটকদের আকর্ষণ বাড়াতে এই কাশফুলের সমারোহ যোগ করতে পারে নতুন মাত্রা।

ওডি/এসজেএ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড