• সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বিলুপ্তপ্রায় পাখিদের অভয়ারণ্য আলীদেওনা গ্রাম

  কাজী কামাল হোসেন, নওগাঁ

২৫ আগস্ট ২০১৯, ১৪:১৯
পাখি গ্রাম
সাধারণ মানুষের উদ্যোগে গড়ে তোলা হয়েছে পাখিদের নিরাপদ আবাসস্থল ( ছবি : দৈনিক অধিকার)

নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার আলীদেওনা গ্রাম যেখানে ঘুম ভাঙে হাজারো পাখির কলতানে। এখানে আশ্রয় নেওয়া হরেক রকম পাখির মধ্যে রয়েছে বিলুপ্তপ্রায় লাল বক, সাদা বক, শুমুখইল, রাতচোরা, সারস, মাছরাঙা, পানকৌড়ি ও বিভিন্ন প্রজাতির ঘুঘুসহ নাম না জানা নানান রঙের হাজারো পাখি।

এখানে গ্রামের সাধারণ মানুষের উদ্যোগে অনেক আগে গড়ে তোলা হয়েছে পাখিদের নিরাপদ আবাসস্থল। পাখির কলতানে এবং পাখির কিচিরমিচির শব্দে মুখর থাকে এই গ্রামের পরিবেশ। গ্রামের আনাচে কানাচে বেড়ে ওঠা বাঁশ ঝাড় ও গাছে গাছে সারাক্ষণ পাখির কিচিরমিচির শব্দে মুখরিত হয়ে থেকে গ্রামটি। গাছে গাছে হাজার হাজার পাখির আনাগোনা সচকিত করে রাখে সবাইকে। এ কারণে আলিদেওনা গামের নাম হয়েছে পাখির গ্রাম।

আলিদেওনা গ্রামের সীমানায় কোনো পাখি প্রবেশ করা মানেই সে নিরাপদ (ছবি: দৈনিক অধিকার)

এই পাখির গ্রামের পাখিদের বাড়তি নিরাপত্তার জন্য স্থানীয় পাখিপ্রেমী, সমাজসেবী ও পরিবেশবিদরা সরকারিভাবে অভয়ারণ্য ঘোষণার পাশাপাশি পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার দাবি করছেন।

মহাদেবপুর উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১২ কিলোমিটার পশ্চিমে খাজুর ইউনিয়নের মধ্যে অবস্থিত আলিদেওনা পাখির গ্রাম। সেখানে গেলেই যে কেউ মুগ্ধ হবেন। স্থানীয়রা স্ব-উদ্যোগে গ্রামটিকে পাখি শিকার মুক্ত এলাকা ঘোষণা করেছেন। তাই গ্রামের সীমানায় কোনো পাখি প্রবেশ করা মানেই সে পাখিটি নিরাপদ। আর এ নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেন গ্রামের সবাই। পাখি শিকার রোধে গ্রামবাসী নিয়েছেন নানা উদ্যোগ। ফলে সারা বছরই এখানে হাজার হাজার পাখির আগমন ঘটে।

ওডি/ এফইউ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
nite
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
jachai

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড