• শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

রামেক নির্ভর ডেঙ্গু চিকিৎসা, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রস্তুতি নেই

  রাজু আহমেদ, রাজশাহী

১১ আগস্ট ২০১৯, ২১:০০
ডেঙ্গু রোগী
চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু রোগীর পাশে কক্ষের সংস্কার কাজ করা হচ্ছে (ছবি- দৈনিক অধিকার)

ঈদকে সামনে রেখে জেলা ও উপজেলাগুলোতে ডেঙ্গু রোগ ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে সরকার শুরু থেকেই সতর্ক করে আসছে। তবে এখন পর্যন্ত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে ডেঙ্গু রোগীদের পর্যাপ্ত চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করা যায়নি। সিভিল সার্জনের পক্ষ থেকে ডেঙ্গু সনাক্তের কিট এখন পর্যন্ত সরবরাহ করা হয়নি। প্রশিক্ষণের অভাব রয়েছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংশ্লিষ্টদের। শধুমাত্র ডেঙ্গু কর্ণার দেখিয়েই দায় সারছে উপজেলা কর্তৃপক্ষ। ফলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চাপ বৃদ্ধির শঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে প্রতিদিনই রাজশাহী জেলা ও বিভাগে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা প্রতিদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। রোগীদের একটি বড় অংশই ঢাকা ফেরত। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় ঈদে ঘরমুখো মানুষদের কারণে এই অঞ্চলে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

রামেক হাসপাতালে গত ২৪ ঘন্টায় প্রতি মিনিটে একজনের বেশি রোগী ভর্তি হচ্ছেন। হাসপাতালটিতে রাজশাহীর ৯টি উপজেলার পাশাপাশি রাজশাহী জেলার বাইরের রোগীও আসছে। আর রাজশাহী বিভাগের আটটি সরকারী হাসপাতালে গত ২৪ ঘন্টায় ভর্তি হয়েছেন ১৪৭ জন। এ পর্যন্ত সনাক্ত হয়েছে মোট ১৪শ ৮৬ জন ডেঙ্গু রোগী।

রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. আনোয়ারুল কবির জানান, আমরা শহর থেকে কিট সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সংগ্রহে রেখেছি। সর্বোচ্চ ৫০জন রোগীর চাপ সামাল দেয়ার সক্ষমতা আছে এই উপজেলা কমপ্লেক্সে। তবে রোগীদের পরিস্থিতি স্বাভাবিক না থাকলে আমরা রামেক হাসপাতালে যেতে পরামর্শ দিচ্ছি। রাজশাহী সিভিল সার্জন অফিস সার্বক্ষণিক আমাদের খোঁজ খবর রাখছে। এপর্যন্ত দুই জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী সনাক্ত করা হয়েছে। যার মধ্যে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত একজন আছে।

এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী ভর্তি হয়েছে ২৭ জন। এসময়ের মধ্যে সুস্থ হয়ে ফিরে গেছেন ৩০জন। হাসপাতালে মোট রোগী ভর্তি আছে ১১০জন। আইসিইউতে আছেন এক জন। এছাড়া হাসপাতারে এপর্যন্ত মোট ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছে ৩২১ জন। যার মধ্যে সুস্থ হয়ে ফিরে গেছেন ২১১জন। তথ্য নিশ্চিত করেছেন রামেক হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস।

রাজশাহী জেলার সিভিল সার্জন ডা. কাজী মিজুনুর রহমান জানান, পরিস্থিতি মোকাবেলায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলো নিজেরাই বাইরে থেকে ডেঙ্গু টেস্টের কিট সংগ্রহ করে কাজ চালাচ্ছে। আমরা উপজেলাগুলোতে প্রয়োজনীয় কিট সরবরাহের চেষ্টা করছি। 

এখন পর্যন্ত এই রোগের চিকিৎসা সেবা রামেক হাসপাতাল কেন্দ্রিক উল্লেখ করে তিনি জানান, উপজেলাগুলোতে ডেঙ্গু রোগী সনাক্ত হলে সেখানে প্রথমিক চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। রোগীদের কোনপ্রকার পেইন সাপোজিটর দিতে মানা করা হয়েছে। শুধু মাত্র প্যারাসিটামল দিতে বলা হচ্ছে। অবস্থা গুরুতর হলে রামেকে পাঠান হচ্ছে। পাশাপাশি উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের টেকনিশিয়ান ও চিকিৎকদের প্রশিক্ষণ ও দিকনির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে। পরিস্থিতি শীঘ্রই পাল্টে যাবে বলেও সিভিল সার্জন আশা প্রকাশ করেন।

এদিকে স্বাস্থ্য বিভাগের (রাজশাহী বিভাগ) দেওয়া তথ্য দেয়া মতে, রাজশাহী বিভাগের আটটি সরকারি হসপাতালে গত ২৪ ঘন্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী ভর্তি হয়েছে ১৪৭ জন। আর এ পর্যন্ত মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১৪শ ৮৪। যাদের মধ্যে সেবা নিয়ে নিয়ে ফিরে গেছেন ১৬শ জন। হাসপাতালগুলোতে এখন ভর্তি আছেন ৪৬৯ জন। আটটি বিভাগের মধ্যে রামেক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২৭, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১০, নওগাঁয় ১২, নাটোরে ৬, জয়পুরহাটে ৭, বগুড়ায় ৩৭, সিরাজগঞ্জে ২৭ ও পাবনার সরকারী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২১ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী।

ওডি/এসএ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড