• বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ১৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

লোকসানের শঙ্কায় সিলেটের চামড়া ব্যবসায়ীরা

  ফয়ছল আহমদ, সিলেট

১১ আগস্ট ২০১৯, ১৬:৪৭
পশুর চামড়া
কুরবানির পশুর চামড়া (ফাইল ফটো)

প্রতি বছরের মতো এবারও সিলেটে চামড়া ব্যবসায়ীরা কুরবানির অপেক্ষায়। তবে বিগত কয়েক বছর থেকে এ ব্যবসায় লাভের মুখ না দেখায় হাজারের অধিক চামড়া ব্যবসায়ী বিভিন্ন সময় এ পেশা ত্যাগ করে অন্য পেশায় চলে গেছেন। সারা বছর অপেক্ষায় থাকার পর ঈদ যখন দুয়ারে কড়া নাড়ছে তখন তাদের মনে লোকসানের শঙ্কা। পুঁজি সঙ্কট, চামড়ার দাম কমে যাওয়া, লবণের দাম বেড়ে যাওয়া, শ্রমিকের বেশি মজুরি, ঢাকার ট্যানারি মালিকদের টাকা পরিশোধ না করাসহ একাধিক কারণে এ বছর তারা চামড়া ব্যবসায় ভাটার টান দেখছেন। তাদের মনে এখন লোকসানের শঙ্কা।

এ দিকে দীর্ঘ দিন থেকে ঢাকার একাধিক আড়তে সিলেটের চামড়া ব্যবসায়ীদের কোটি কোটি টাকা আটকে থাকায় এখন তাদের পুঁজি সঙ্কট দেখা দিয়েছে। এতে বিপাকে পড়েছেন চামড়া ব্যবসায়ীরা। ২০১৫ সাল থেকে সিলেটের চামড়া ব্যবসায়ীদের টাকা নিয়মিতভাবে পরিশোধ করছে না ঢাকার ট্যানারি প্রতিষ্ঠানগুলো। গত বছরও চামড়া ব্যবসা করে লোকসান হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিলেটের ব্যবসায়ীরা। বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে টাকা নিয়ে ব্যবসা করলেও এখন তারা দেউলিয়া হয়ে পথে নেমেছেন।

শাহজালাল বহুমুখী চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি শেখ শামীম আহমদ বলেন, চামড়া ব্যবসা এখন আর নেই বললেই চলে। বর্তমানে এই শিল্পটি ধ্বংসের পথে। এর জন্য দায়ী ঢাকার ট্যানারি মালিকেরা। তারা সিন্ডিকেট করে ব্যবসা পরিচালনা করার কারণেই এই ব্যবসায় ধস নেমেছে। এমনকি দীর্ঘ দিন থেকে চামড়া বিক্রির টাকাও পাওনা রয়েছে। এই ব্যবসা করে অনেকেই পুঁজি হারিয়ে কোনোভাবে জীবন-যাপন করছেন। পাওনা টাকার জন্য ট্যানারি মালিকদের সঙ্গে একাধিকবার বসলে টাকা দেওয়ার বিষয়ে আশ্বস্ত করা হয়, কিন্তু টাকা আর পরে মেলে না।

চামড়া সমিতি সূত্র জানায়, সিলেটে মাঝারি চামড়া ৮ থেকে ১০ বছর আগে দাম ছিল ১৫শ থেকে ২ হাজার টাকা। তবে গত কয়েক বছর থেকে এই মাঝারি চামড়ার বাজার মূল্য দাঁড়িয়েছে ৫শ থেকে ৮শ টাকা। তবে এবার মাঝারি সাইজের গরুর চামড়া ২শ থেকে ৩শ টাকার বেশি দামে কেনা সম্ভব নয়। এক সময় সিলেটে চামড়া ব্যবসার সঙ্গে প্রায় হাজার খানেক ব্যবসায়ী জড়িত থাকলেও বর্তমানে এই ব্যবসায় জড়িত আছেন শতাধিক লোক। লবণের দাম ও ঈদ মৌসুমে চামড়ার শ্রমিকের মজুরি বৃদ্ধি পাওয়ায় এখন এই ব্যবসা সার্বিক দিক থেকে লোকসানে নেমেছে।

প্রাণিসম্পদ অফিস সূত্র জানায়, সিলেট জেলার ১৩টি উপজেলায় এবার কুরবানি হবে প্রায় ১ লাখ ৮০ হাজার ৪৩৫টি। আর সিলেট জেলায় ১০ হাজার ৮৪৩টি খামারে ৮৭ হাজার ১৯০টি গবাদিপশু রয়েছে। এর মধ্যে বলদ রয়েছে ৯ হাজার ৭৫৬টি, ষাঁড় রয়েছে ৫০ হাজার ৯৯২টি, ৩ হাজার ১১৪টি মহিষ, ৯ হাজার ৭৩৬টি ছাগল, ৫ হাজার ৬৭৬টি ভেড়া রয়েছে।

বিজিবি সূত্র জানায়, সিলেটের চামড়া সীমান্ত দিয়ে ভারতে যাতে পাচার না হয় সেজন্য সর্তকতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে বিজিবি। চামড়া পাচারকারী চক্র আগরতলা, সরাইল, জাফলং, তামাবিল সীমান্তসহ অন্যান্য সীমান্ত দিয়ে চামড়া পাচার যাতে না হয় সে দিকে বিজিবির কঠোর নজরদারি থাকবে।

শাহজালাল চামড়া ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মো. ছমির উদ্দিন জানান, গত বছর কুরবানির সময় সিলেট থেকে চামড়া ব্যবসায়ীরা আড়তদার ও খদ্দেরদের কাছ থেকে ৬৫ থেকে ৭০ টাকা দামে প্রতি বর্গফুট কাঁচা চামড়া কিনেছিলেন। এরপর সেই চামড়া লবণ দিয়ে প্রক্রিয়াজাত করার পর ট্যানারি মালিকরা সিলেটের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে কেনার জন্য দর বেধে দেন ৪০ থেকে ৪৫ টাকা। এতে ব্যবসায়ীরা প্রায় চার কোটি টাকার বেশি লোকসান গুণেছে। গত বছর চামড়া প্রক্রিয়াজাত করার জন্য সাধারণ লবণের দাম ছিল ৮ টাকা কেজি। এ বছর এ লবণের দাম বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২২ টাকা কেজি। 

তিনি জানান, এ বছর সিলেটে স্থানীয় খামারের গরু বাজারে বেশি উঠবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ভারত থেকে কুরবানির পশু আমদানি না হওয়ায় স্থানীয় খামারির খামারের এসব পশু দিয়েই কুরবানির চাহিদা পূরণ করা হবে। স্থানীয় এসব পশু ভারতীয় পশুর চেয়ে আকারে ছোট। তাই এসব ছোট পশুর চামড়ার দরও কম থাকে।

ওডি/এসএ 

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড