• মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কুড়িগ্রামে জমে ওঠেনি কুরবানির পশুর হাট

  কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

০৭ আগস্ট ২০১৯, ১৫:৫০
কুরবানির পশু
কুরবানির পশুর হাট (ছবি : দৈনিক অধিকার)

ঈদ ঘনিয়ে আসলেও কুড়িগ্রামে জমে ওঠেনি কুরবানির পশুর হাট। ভারতীয় গরু না আসায় প্রভাব পরেছে হাটগুলোতে। দেশই গরু উঠলেও চড়া মূল্যের কারণে ক্রেতা ও পাইকাররা কিনতে পারছে না গরু। ফলে বেচাকেনা জমছে না পশুর হাটে। তবে প্রাণী সম্পদ বিভাগ বলছেন কুরবানির জন্য দেড় লাখ দেশীয় গরু মজুদ আছে। ভারত থেকে গরু আমদানি না হলেও কোনো সঙ্কট হবে না। 

জেলা প্রাণী সম্পদ অফিস সূত্র জানায়, চলতি বছর জেলায় ২৮টি পশুর হাটে গরু বেচাকেনা হচ্ছে। খামারির সংখ্যা প্রায় এক হাজার। এছাড়াও ৪২ হাজার পশু পালনকারী বাজারে গরু নিয়ে আসছে। দেশীয় গরুর কোনো ঘাটতি নেই। বাজারও সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে।

বুধবার (৭ আগস্ট) জেলার সীমান্তবর্তী ভূরুঙ্গামারী হাটে গিয়ে দেখা যায় হাট জুড়ে দেশীয় গরু। ভারতীয় গরুর আধিক্য কম। ঈদ ঘনিয়ে আসলেও এখন পর্যন্ত কুরবানির জন্য পছন্দের গরু কিনতে আসছে না ক্রেতারা। দেশি এবং বাইরের পাইকারদের কারণে বেড়ে গেছে কুরবানির পশুর দাম। বেশির ভাগ খামারিদের কাছ থেকে গরু কিনে নিয়েছে পাইকাররা। 

এছাড়াও হাটগুলোতে এক পাইকার থেকে আরেক পাইকারের কাছে হাতবদল হচ্ছে গরু। ফলে মূল্য হয়েছে চড়া। ক্রেতা চড়া দাম দিয়ে গরু কিনতে সাহস পাচ্ছে না। ফলে এখন পর্যন্ত কুড়িগ্রামের পশুর হাট গুলে জমে ওঠেনি। 

খামারি ছামাদ ও তাইজুল জানান, প্রতিদিন দেড় থেকে দুই হাজার টাকা খরচ করে হাটে গরু নিয়ে আসছি। গরুর পেছনে অনেক খরচ হয়েছে। ফলে দামও একটু বেশি হচ্ছে। কিন্তু সে তুলনায় দাম হাঁকছে না ক্রেতা। আমাদের বাড়তি খরচ হচ্ছে। তবে ভারতীয় গরু না আসায় সন্তুষ্ট দেশীয় খামারিরা।

লালমনিরহাট জেলার বড়বাড়ী এলাকার পাইকার মামুন জানান, অনেক আশা নিয়ে চারজন পাইকারসহ এখানে গরু কিনতে এসেছি। কিন্তু হাটে ভারতীয় গরু কম। দেড়শর মতো গরু উঠেছে। বাকী সব দেশীয় গরু। দামও চড়া। ঘুরে ফিরে দেখছি।

ভূরুঙ্গামারী পশু হাটের ম্যানেজার রাশেদুন্নবী লালু জানান, ভারতীয় গরুর আমদানি কমে যাওয়ায় হাটে প্রভাব পড়েছে। সবাই বলছে দাম একটু চড়া। আশা করা যায় আগামী হাট গুলোতে ভারতীয় গরু আসলে দাম কমে যাবে। 

এ ব্যাপারে জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. আব্দুল হাই সরকার জানান, এবার ভারত থেকে কোনো গরু আসছে না। কুরবানির জন্য দেড় লাখ দেশীয় গরু মজুদ আছে। আশা করি খামারিরা ভাল দাম পাবেন। গরু গুলোতে ক্ষতিকর কিছু ব্যবহার করা হয়নি। যে মাংস উৎপাদিত হবে তা স্বাস্থ্য সম্মত হবে। 

ওডি/এএসএল

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড