• মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

স্থানীয়দের প্রতিবাদে বালু উত্তোলন বন্ধ করল প্রশাসন

  রাজশাহী প্রতিনিধি

২৩ জুলাই ২০১৯, ২১:০২
বালু উত্তোলন
বেড়পাড়া এলাকায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন (ছবি- দৈনিক অধিকার)

রাজশাহীর পবা উপজেলার বেড়পাড়া এলাকায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট উত্তেজনার মঝে স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বালু তোল বন্ধ করা হয়েছে। এর আগে অবৈধ ভাবে বালু তোলার অভিযোগ তুলে প্রতিবাদে ও বিক্ষোভ সমাবেশ করে এলাকাবাসি। 

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) বিকালে বালু ব্যবসায়ীর হাত থেকে পদ্মার তীররক্ষা বাঁধ ও রাস্তা বাঁচানোর দাবিতে এ বিক্ষোভ সমাবেশ করে তারা। এ সময় তারা যে কোনো মূল্যে এই এলাকায় বালু উত্তোলন প্রতিহতের ঘোষণা দেয়। এ নিয়ে এলাকাবাসী ও বালু ব্যবসায়ীর লোকজনের মধ্যে চরম উত্তেজনা সৃষ্টি হলে পুলিশ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা গিয়ে পরিস্থিত নিয়ন্ত্রণ করে। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকেল ৫টার দিকে কয়েকশো এলাকাবাসী বেড়পাড়া মোড়ে সমাবেশ করে। এর আগে তারা মানববন্ধন করার ঘোষণা দিয়ে এলাকায় মাইকিং করা হয়। তবে মানববন্ধনের আগে বালু ব্যবসায়ীর লোকজন সেখানে অবস্থান নিলে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে এলাকাবাসী বিক্ষোভ শুরু করে।

তাদের সঙ্গে যোগ দেন হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বজলে রেজবি আল হাসান মুঞ্জিল, স্থানীয় ওয়ার্ডের মেম্বার ও হরিপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইদুর রহমান বাদল, ইউনিয়ণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান নবাব, ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি সদস্য মাহফুজুর রহমান।

স্থানীয়দের অভিযোগ, পদ্মার তীররক্ষা বাঁধ নির্মাণ প্রকল্প এলাকার মধ্যে সব ধরণের বালু উত্তোলন ও পরিবহনের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে প্রশাসন। কিন্তু মঙ্গলবার সকাল থেকে বালু ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন তীররক্ষা প্রকল্প এলাকার মধ্যে বেড়পাড়ায় বালু উত্তোলন শুরু করে। এ এলাকাটি বালুমহাল এলাকার বাহিরে। এর পরও এই এলাকায় জোর করে ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে বালু উত্তোলন শুরু করে। এতে এ এলাকা হুমিকের মুখে পড়বে। নদী ভাঙনসহ তীররক্ষা বাঁধ ভাঙনের মুখে পড়বে এবং এলাকার হাজার হাজার ঘরবাড়ি নদীতে বিলিন হয়ে যাবে।

এছাড়াও অবৈধ বালু পরিবহনের কারণে হরিপুর ইউনিয়নের চারটি ওয়ার্ডের একমাত্র রাস্তাটি ভেঙ্গে যাবে। গত ২০ বছর পর ১৫ দিন আগে প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে রাস্তাটি সংস্কার করা হয়েছে। এ রাস্তায় বালু পরিবহন করা হলে কিছুদিনের মধ্যে তা চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়বে।

হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি সাইদুর রহমান বাদল, মদনপুর, কসবা ও চরহরিপুর মৌজা নিয়ে গঠিত এই বালুমহাল। কিন্তু ইজারাদার আনোয়ার হোসেন মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে ড্রেজিং করে বালুমহালের বাহিরে বেড়পাড়া এলাকায় বালু উত্তোলন শুরু করেছেন।

তিনি আরও বলেন, এ এলাকায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে বেড়পাড়ায় পদ্মার তীররক্ষা বাঁধ হুমকির মুখে পড়েছে। এ বাঁধ ক্ষতিগ্রস্থ হলে এ এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাবে। এলাকাবাসী জীবন দিয়ে হলেও এ এলাকায় বালু উত্তোলন করতে দেবে না।

হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বজলে রেজবি আল হাসান মুঞ্জিল বলেন, শুধুমাত্র বালু উত্তোলনের জন্য তার ইউনিয়নের সমস্ত রাস্তা ভাঙ্গাচোরা। চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। আমাদের সাথে বালু ব্যবসায়ীদের কোন দ্বন্দ্ব নাই। নির্ধারিত বালুমহাল এলাকায় বালু উত্তোলন করলে আমাদের কোন আপত্তি নাই। কিন্তু বালুমহালের বাহিরে বালু উত্তোলন করতে দেয়া হবে না। কারণ বেড়পাড়া এলাকার এই রাস্তাটি অনেক তদবির করে প্রায় ২০ বছর পরে ১৫ দিন আগে সংস্কার কাজ শেষ হয়েছে। এই রাস্তায় বালুর ট্রাক চলাচল করলে ১৫ দিনও টিকবে না। এটা এলাকার মানুষ মেনে নিবেন না বলে জানান এই ইউপি চেয়ারম্যান। 

ইউপি চেয়ারম্যান বজলে রেজবি আরও বলেন, অবৈধভাবে বালু উত্তোলন নিয়ে এলাকাবাসী ও বালু ব্যবসায়ীর লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে দামকুড়া থানা পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। এছাড়াও উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী পুলিশ বালু উত্তোলনের মেশিন বন্ধ করে দিয়ে সেটি সরিয়ে দেয়।

পবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ নেওয়াজ বলেন, পদ্মার তীররক্ষা প্রকল্প এলাকায় বালু উত্তোলনের উপর নিষেধজ্ঞা জারি রয়েছে। এছাড়াও ইজারা দেয়া বালুমহালের বাহিরে বালু উত্তোলন সম্পন্ন অবৈধ। পদ্মার তীররক্ষা প্রকল্প এলাকায় এবং বালুমহালের বাহিরে বালু উত্তোলন করলে তদন্ত করে ইজারাদারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি। 

ওডি/এসএ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড