• বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বেকারদের অনুপ্রেরণা ইঞ্জিনিয়ার আতিক  

  আল মামুন, জয়পুরহাট প্রতিনিধি

১১ জুলাই ২০১৯, ১৪:২৪
ইঞ্জিনিয়ার আতিক
নিজের পুকুরে মাছ ধরছেন ইঞ্জিনিয়ার আতিক  (ছবি: দৈনিক অধিকার)

উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত হয়েও চাকরি নামক সোনার হরিণের পেছনে সময় ব্যয় না করে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে সম্মিলিত খামার করে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছেন জয়পুরহাটের আতিক। শুধু তাই নয়, সে এখন দেশের বেকার যুবকদের অনুপ্রেরণা। এত স্বল্প সময়ে কীভাবে নিজের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটানো সম্ভব, আতিক তা সবাইকে দেখিয়ে দিয়েছেন।

জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার বাদাউস গ্রামের আতাউর রহমানের ছেলে ইঞ্জিনিয়ার আতিকুর রহমান দৈনিক অধিকারকে বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করে ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় চাকরি খোঁজাখুঁজির পর সন্তোষজনক কোনো চাকরি না পাওয়ায় হতাশা নিয়ে জয়পুরহাটে ফিরে আসি। 

এখানে এসে যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের খোঁজ পাই, আর সেখানে  প্রথমে ৭ দিনব্যাপী গবাদি পশু পালনের ওপর প্রশিক্ষণ নিই। তারপর সেখান থেকে তাকে ৫০ হাজার টাকা লোন দেওয়া হয়, সেই টাকা আর বাসা থেকে কিছু টাকা দিয়ে আমি মাত্র ৫টি গাভী পালন শুরু করি। এরপর থেকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। সেই ৫টি গাভী থেকে বর্তমানে তার এই খামারে ১ লাখ সোনালী মাংসের মুরগি, দশ হাজার সোনালী ডিমের মুরগি, ৫০ হাজার ব্রয়লার মুরগি ও ৬টি পুকুরে প্রায় ১ হাজার মণের ও অধিক রুই, কাতলা, পাঙ্গাশ ও তেলাপিয়ার মাছ রয়েছে। বর্তমানে এই সম্মিলিত খামারে এখন স্থায়ী ও অস্থায়ীভাবে প্রায় ১শর অধিক কর্মচারী কাজ করছে।

আতিকের ফার্মে চাকরি করা নুর ইসলাম  দৈনিক অধিকারকে বলেন, আমি ডিগ্রি পাস করার পর যখন কোথাও চাকরি পাইনি, তখন আমার এক বড় ভাইয়ের মুখ থেকে আতিক ভাইয়ের কথা শুনতে পারি, কিছুদিন সেখানে এসে তার সাথে আমার চাকরির বিষয়ে বললে তিনি আমাকে তার একটি প্রতিষ্ঠান মেসার্স মণ্ডল হ্যাচারি অ্যান্ড চিকসের ম্যানেজার পদে নিয়োগ দেন। তারপর থেকে এখান থেকে আমি যা বেতন পাই তা দিয়ে আমার সংসার ভালোই চলছে।  

বেকারদের অনুপ্রেরণা ইঞ্জিনিয়ার আতিক

তার আরও একটি প্রতিষ্ঠান তাহেরা মজিদ মাল্টিপারসের সদ্য নিয়োগ পাওয়া একজন কর্মচারী আব্দুল রাইহান আহমেদ দৈনিক অধিকারকে বলেন, আমরা যখন এক সময় বেকার ঘুরে বেড়াতাম তখন আতিক ভাই আমাদের কয়েকজন বেকারকে নিয়ে তার এই ফার্মে চাকরি দেন। বর্তমানে আমরা এই ফার্মে ১৫ জন কর্মচারী কাজ করছি। আমরা যেমন আতিক ভাইয়ের ফার্মে কাজ করে অনেক বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি তেমনি আতিক ভাই আমাদের অনেক বেশি ভালোবাসেন। 

জয়পুরহাট জেলা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপপরিচালক তোছাদ্দেক হোসেন দৈনিক অধিকারকে বলেন, আতিক শুধু জয়পুরহাটের গৌরব নয় বরং সে দেশের সকল বেকার যুবকদের কাছে একজন অনুপ্রেরণা হিসেবে থাকবে। বর্তমানে তিনি প্রায় ৫শতাধিকের ও বেশি খামারি সৃষ্টি করেছেন এবং তাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে মুরগির বাচ্চা, মাছ ও তাদের খাবার ওষুধ দিয়ে তাদের আত্মনির্ভরশীল করে তুলেছেন। 

আতিক তার সাফল্যের স্বীকৃতিস্বরুপ জয়পুরহাট জেলার শ্রেষ্ঠ আত্মকর্মী হিসেবে ও উদ্যোক্তা সম্মাননা পদক পেয়েছেন। ইততোমধ্যে আতিক বাল্যবিবাহ, মাদকমুক্ত সমাজ ব্যবস্থা, গরিব অসহায়দের খাবার প্রদানসহ সমাজের বিভিন্ন সামাজিক ভালো কর্মকাণ্ডের সাথেও জড়িত। শুধু আতিকই নয় যুবকরা যদি সুদমুক্ত ঋণ পায় তাহলে আতিকের মতো সারা বাংলাদেশে অনেক বেকাররাই পারবেন তার মতো সফল উদ্যোক্তা হতে। এমনটাই মনে করেছেন বেকার যুবকরা।
 

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড