• শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ইউপি সদস্য কেটে নিয়ে গেল রাস্তার গাছ

  জয়পুরহাট প্রতিনিধি

১৮ জুন ২০১৯, ২২:৫৩
গাছের গুল
উদ্ধারকৃত গাছের গুল (ছবি : দৈনিক অধিকার)

সরকারি নিয়মনীতি উপেক্ষা করে জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে রাস্তার সরকারি বেশ কিছু গাছ কাটার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম রানার বিরুদ্ধে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের হস্তক্ষেপে উদ্ধার করা হয়েছে কাটা গাছের কয়েক পিস গুল এবং অন্যান্য গাছের গুলগুলো রাখা হয়েছে স্থানীয় দুটি সমিলে। 

জানা যায়, প্রকাশ্যে দিন-দুপুরে জনপ্রতিনিধিসহ তার লোকজন গাছ কাটার পরও এখনো কোনো আইনগত পদক্ষেপ নেয়নি স্থানীয় প্রশাসন। পরিবেশের ও দেশের সম্পদ হনন কারীদের বিরুদ্ধে শাস্তির দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকাবাসী।

জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার কুসুম্বা ইউনিয়নের ছালাখুর গ্রামে পাকা রাস্তার ধারে গত শনিবার ছোট-বড় বেশ কিছু সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ উঠেছে ওই ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের স্থানীয় ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম রানার বিরুদ্ধে। স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে গাছের নয়টি গুল জব্দ করে ইউনিয়ন পরিষদে রাখা হয়েছে। বাকি গাছের ৩৮টি গুল ওই উপজেলার চানঁপাড়ার আব্দুল খালেক ও ইলিয়াস আলীর সমিলে রেখেছেন অভিযুক্ত ওই ইউপি সদস্য।

পাঁচবিবি উপজেলার কুসুম্বা ইউনিয়নের ছালাখুর এলাকার সুজন, আলামিন, জাহাঙ্গীর হোসেন, আজিজুল ইসলামসহ আরও অনেকে বলেন, সরকারি ও দেশের সম্পদ জনপ্রতিনিধি রক্ষা করবে কিন্তু তা না করে তারাই ভোগ করছে। আমরা চাই পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা হোক এবং গাছ যারা কেটেছে তাদের দ্রুত শাস্তি দেওয়া হোক। শাস্তি দেখে আর যেন কেউ এরকম কাজ করার সাহস না পায়।

অভিযুক্ত কুসুম্বা ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম রানার বক্তব্য নিতে তার ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে বারবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি আসছি আসবো বলে কালক্ষেপণ করে দেখা করেননি এবং বক্তব্য দেননি। অবশেষে তার বাড়িতে গেলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

কুসুম্বা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তার হোসেন মন্ডল বলেন, পাঁচবিবি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে ঘটনাস্থলে গিয়ে কিছু গাছের গুল উদ্ধার করা হয়েছে এবং আমার ইউনিয়ন পরিষদে রাখা হয়েছে।

পাঁচবিবি উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন মন্ডল বলেন, আমি ওই রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় কুসুম্বা ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের স্থানীয় ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম রানাসহ দশ-বারো জন লোক রাস্তার বেশ কিছু গাছ কাটছিল। গাছ কাটার বিষয়ে আমি তাকে জিজ্ঞেস করলে সে বলে চেয়ারম্যানসহ অনেকেই জানে। পরে আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বিষয়টি জানায়। এভাবে প্রকাশ্যে জনপ্রতিনিধিসহ তার লোকজন গাছ কাটার পরও স্থানীয় প্রশাসন এখনও কোনো আইনগত পদক্ষেপ নেয়নি, এটা দুঃখজনক ঘটনা। যারা এই গাছগুলো কেটেছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

পাঁচবিবি উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজিবুল আলম মুঠোফোনে দৈনিক অধিকারকে বলেন, এটা এত বড় ঘটনা নয়। এ ব্যাপারে তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

ওডি/এএসএল

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড