• মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন

সীমান্ত দিয়ে আসছে ভারতীয় গরু, দুশ্চিন্তায় দেশি খামারিরা

  তৌহিদ তুহিন,দামুড়হুদা,চুয়াডাঙ্গা

১৫ জুন ২০১৯, ০৯:৩৭
ভারতীয় গরু-মহিষ
দামুড়হুদা সীমান্ত দিয়ে আসছে ভারতীয় গরু-মহিষ ( ছবি : দৈনিক অধিকার )

এপারে চাহিদা, ওপারে জোগান-মাঝে সীমান্তের ব্যবধান। তবু চলে লেনদেন। নানাভাবে, নানান কায়দায়। চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা সীমান্ত দিয়ে চোরাইপথে হাত নানা কৌশলে আসছে ভারতীয় গরু ও মহিষ। প্রশাসনের কড়া নজরদারির মধ্যেও বন্ধ হচ্ছে না বাংলাদেশে অবৈধভাবে ভারতীয় গরু-মহিষ প্রবেশ।

এ দিকে পরিত্যক্ত অবস্থায় চোরাই গরু মহিষ উদ্ধার করলেও চোরাকারবারিদের আটক করতে ব্যর্থ হচ্ছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এতে সামনে কুরবানি ঈদে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন স্থানীয় খামারিরা। অন্যদিকে অবৈধভাবে গরু আনার অভিযোগে চুয়াডাঙ্গা ৬ বিজিবি গত তিনদিনে সীমন্তবর্তী দুই গ্রামের ২৫ জনের নামে মামলা করেছে। তাছাড়াও গত কয়েক দিনে অজ্ঞাত কয়েক জনের নাম মামলা করে বিজিবি ।

দামুড়হুদা উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসের তথ্যমতে, দামুড়হুদা উপজেলায় খামারগুলোতে এ বছর যে পরিমাণ গরু ছাগল মজুদ আছে, তা আসন্ন কুরবানির চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠানো সম্ভব।

দামুড়হুদা সীমান্ত এলাকার এক ব্যক্তি (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) জানান, দামুড়হুদার মুন্সিপুর, ঠাকুরপুর, চাকুলীয়া, বাড়াদী সীমান্ত দিয়ে চোরাই পথে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় গরু-মহিষ বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। চোরাকারবারিরা গভীর রাত ও ভোরের দিকে চোরাইপথে গরু-মহিষ সীমান্তবর্তী গ্রামের ভেতরে অথবা মাঠের ভেতরে রাখে। পরবর্তীতে স্থানীয় হাটে নিয়ে বিক্রি করে।

দামুড়হুদা উপজেলার গরু খামারি সাইদুর রহমান জানান, এ বছর তার খামারে আটটি দেশীয় জাতের গরু রয়েছে। কুরবানিতে একটু ভালো লাভের আশায় তিনি এখন থেকেই গুরুগুলোর প্রতি বাড়তি যত্ন নিচ্ছেন। এ অবস্থায় যদি ভারত থেকে গরু এনে চোরাকারবারিরা স্থানীয় হাটে অল্প দামে বিক্রি করে তাহলে কপাল পুড়বে আমার মতো খামারিদের। শুধু বড় খামারই নয়, তার মতো অনেকেই আছেন যারা নিজ বাড়িতে গড়ে তুলেছেন ছোট খামার। ভারতীয় গরু যদি এভাবে আসতে থাকে তবে মারাত্মক আর্থিক লোকসানে পড়বেন তারা।

দামুড়হুদা প্রাণিসম্পদ অফিসার ডা. মশিউর রহমান জানান, চুয়াডাঙ্গা দামুড়হুদা উপজেলায় ছোট বড় প্রায় এক হাজার ৪০০ খামার রয়েছে। এসব খামারে প্রায় সাত হাজার গরু আছে। এরমধ্যে ছয় হাজার গরু কুরবানিযোগ্য। আসন্ন কুরবানিতে চাহিদা রয়েছে প্রায় চার হাজার। যা উপজেলার চাহিদা পূরণ করে বাইরে বিক্রি করা সম্ভব হবে।

এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা ৬ বিজিবির পরিচালক ইমাম হাসান জানান, সাম্প্রতিক সময়ে উভয় দেশের চোরাকারবারিরা ভারতীয় সীমান্তরক্ষা বাহিনী বিএসএফ ও বাংলাদেশের বিজিবির চোখ ফাঁকি দিয়ে সীমান্তের বিভিন্ন পথে চোরাই গরু-মহিষ নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। তবে এ সমস্যা থাকবে না। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজন চোরাকারবারিদের আটক করে মামলা দেওয়া হয়েছে। বাকি যারা আছে তারাও ছাড় পাবে না।

ওডি/এসএএফইউ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড