• শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৫ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

চট্টলা এক্সপ্রেসে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, আহত ১২

  নরসিংদী প্রতিনিধি

১৩ জুন ২০১৯, ১০:৫৩
চট্টলা এক্সপ্রেস
চট্টলা এক্সপ্রেস ট্রেনে দুর্ধর্ষ ডাকাতি ( ছবি : দৈনিক অধিকার )

ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী চট্টলা এক্সপ্রেস ট্রেনে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ডাকাতদের অস্ত্রের আঘাতে ট্রেনের ১২ যাত্রী আহত হয়েছেন।

বুধবার (১২ জুন) দিবাগত রাতে ডাকাতরা ফেনী স্টেশন ছাড়ার পর একটি বগির ছাদে থাকা যাত্রীদের মারধর ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে সর্বস্ব ছিনিয়ে নিয়ে মিরসরাই বরতাকিয়া স্টেশন এলাকায় নেমে নিরাপদে পালিয়ে যায়। এ অবস্থায় ট্রেনটি সীতাকুণ্ড সদর স্টেশনে এসে থামলে থানা পুলিশ আহত ১২ যাত্রীকে উদ্ধার করে। তাদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) (ইন্টেলিজেন্স) সুমন বলেন, বুধবার ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামমুখী চট্টলা এক্সপ্রেস এ যাত্রীদের প্রচুর ভিড় ছিল ফলে ট্রেনের প্রতিটি ছাদে প্রচুর যাত্রী ওঠে। ট্রেন স্টেশনে থামার পর আনুমানিক ২০-২৬ বছর বয়সে একদল যুবক একটি ছাদে উঠে পড়ে। ট্রেনটি স্টেশন ছাড়ার পরপরই ওই যুবকরা সকলে লুকিয়ে রাখা ধারালো অস্ত্র বের করে সেখানে থাকা অর্ধশতাধিক যাত্রীদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে তাদের সর্বস্ব ছিনিয়ে নেয়। 

যে সব যাত্রীরা বাধা দিতে চেষ্টা করে তাদের মারধর ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। একপর্যায়ে রাত সাড়ে আটটার দিকে ট্রেনটি মিরসরাই বরতাকিয়া স্টেশনে থামলে ডাকাতরা সবাই নেমে পালিয়ে যায়। এরপর অন্য যাত্রীদের চিৎকার-চেঁচামেচিতে ঘটনাটি জানাজানি হয়। রাত ৯টার দিকে ট্রেনটি সীতাকুণ্ড স্টেশনে এসে থামে। 

খবর পেয়ে সীতাকুণ্ড থানার ওসি মো. দেলোয়ার হোসেন গিয়ে ট্রেনে থাকা আহত ১২ যাত্রীকে নামিয়ে আনেন। তাদের মধ্যে তিন জনের অবস্থা গুরুতর। দুজনকে সীতাকুণ্ড উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্থানান্তর করা হয়। 

সীতাকুণ্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন যাত্রী নোয়াখালীর বাসিন্দা নাহিদ (২১) ও কুমিল্লার বাসিন্দা কলেজ ছাত্র মো. আসিফ জানান, চট্টগ্রামমুখী চট্টলা এক্সপ্রেস এ প্রচুর ভিড় থাকায় তারা ছাদে করে চট্টগ্রাম আসছিল। ছাদে আরও অর্ধশতাধিক যাত্রী ছিল। ফেনী আসার পর পর সেখানে আরও ১৫-১৬ জনের যাত্রীবেশী ডাকাত ট্রেনে ওঠে। ট্রেন ছাড়ার পর সেসব যাত্রীরা অস্ত্রশস্ত্র বের করে মোবাইল, টাকাসহ সব কিছু লুটে নেয়। তারা বাধা দেওয়ায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাদেরকে কোপ দেয়। 

তারা দুজনই প্রশ্ন করে বলেন, চট্টলা এক্সপ্রেস বরতাকিয়া থামার কথা না কিন্তু চালক সেখানে ট্রেন থামিয়ে সব ডাকাতদের নিরাপদে চলে যেতে সহযোগিতা করেছেন। তাই তারা এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। 

সীতাকুণ্ড থানার ওসি দেলোয়ার হোসেন বলেন, ঘটনাটি ঘটেছে ফেনীতে এরপর মিরসরাই বরতাকিয়া এলাকায় এসে যাত্রীবেশী ডাকাতরা নেমে নিরাপদে পালিয়ে যায়। যাত্রীবেশী ডাকাতদের ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থার ব্যাপারে জানতে চাইলে ওসি দেলোয়ার হোসেন বলেন,তাদের ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হলে ঘটনাস্থল এলাকায় নিতে হবে তাই আমরা ঘটনাস্থল এলাকার প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখেছি।

ওডি/ এসএএফইউ
 

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড