• সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

সর্বশেষ :

নিজ দেশে ফিরে যেতে রোহিঙ্গাদের দুই শর্ত||এ পি জে আব্দুল কালামের স্মৃতিতে ভূষিত প্রধানমন্ত্রী  ||উদ্বেগ থাকলেও ভারতের ওপর বিশ্বাস রাখতে চাই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ||ছাত্রলীগের চাঁদাবাজি ঢাকতেই ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধ : রিজভী ||কাশ্মীরে জঙ্গি অনুপ্রবেশের অভিযোগে সীমান্তে‌ হাই অ্যালার্ট||ভারতের পর এবার বিশ্বকে পরমাণু যুদ্ধের হুঁশিয়ারি পাকিস্তানের||সোমবার আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব নেবেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক||মেক্সিকোয় কুয়া থেকে ৪৪ মরদেহ উদ্ধার করল বিজ্ঞানীরা||অন্যায় করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না : কাদের    ||সৌদির তেল স্থাপনাতে হামলায় ইরানকে দায়ী করল যুক্তরাষ্ট্র

চিকিৎসকের কিল-ঘুষিতে আহত রোগীর বাবা

  পাবনা প্রতিনিধি

১৯ মে ২০১৯, ১২:১২
সোনাই মোল্লা ও মিলন মাহমুদ
আহত রোগীর বাবা সোনাই মোল্লা ও চিকিৎসক মিলন মাহমুদ (ছবি : দৈনিক অধিকার)

রোগীর বাবা হাসপাতালের গেটে বাইসাইকেল রাখায় কর্মরত চিকিৎসক মিলন মাহমুদ ক্ষুব্ধ হয়ে কিল-ঘুষি মেরে তার চোখ-ঠোঁট ফাটিয়ে দিয়েছেন। শনিবার (১৮ মে) পাবনার বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে। 

আহত ব্যক্তি হলেন- সানিলা গ্রামের মৃত রাজেম মোল্লার ছেলে সোনাই মোল্লা (৩৫)। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করায় হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. মিলন মাহমুদ আত্মগোপন করে আছেন। এ ব্যাপারে বেড়া মডেল থানায় একটি অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। 

থানায় দায়ের করা অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, শনিবার বিকালে বেড়া উপজেলার সানিলা গ্রামের সোনাই মোল্লা অসুস্থ ছেলেকে নিয়ে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান। এ সময় সোনাই মোল্লা তার ছেলেকে চিকিৎসা দেওয়ার কথা বললে ডা. মিলন মাহমুদ উত্তেজিত হয়ে পড়েন। এ সময় কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই তিনি সোনাই মোল্লাকে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মারেন এবং তার বাইসাইকেল লাথি মেরে ফেলে দেন। এতে সোনাই মোল্লার বাঁ চোখ ও ঠোঁট ফেটে যায়। এছাড়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়।

আহত সোনাই মোল্লা বলেন, ‘আমি একজন প্রবাসী। আমার পাঁচ বছরের ছেলে মোস্তাকিন গুরুতর জখম হওয়ায় শনিবার বিকালে তাকে বাইসাইকেলে করে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসি। তাড়াহুড়া করে গেটে বাইসাইকেল রেখে দ্রুত জরুরি বিভাগে যায়। সেখান থেকে বের হয়ে দেখি আমার বাইসাইকেলটি এক ব্যক্তি লাথি মেরে ফেলে দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করছে। এ সময় আমি গালিগালাজ করতে নিষেধ করলেই তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে কিল-ঘুষি মেরে রক্তাক্ত করেন। আমি অসুস্থ অবস্থায় পাশেই সাঁথিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছি।’

এ ব্যাপারে ডা. মিলন মাহমুদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। তার মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে।

পাবনার ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা. কে এম আবু জাফর বলেন, বিষয়টি তার জানা নেই। ঘটনা জেনে পরে কথা বলবেন।

স্থানীয়রা জানান, ডা. মিলন মাহমুদের বিরুদ্ধে রোগী পেটানোর অভিযোগ নতুন নয়। অশালীন আচরণ, রোগীকে গালিগালাজ করা, এটা তার পুরোনো অভ্যাস। 

বেড়া থানার ওসি শাহেদ মাহমুদ বলেন, এ ব্যাপারে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত শেষে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

ওডি/এএসএল

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড