• শনিবার, ২৫ মে ২০১৯, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন

দিনাজপুরে সর্বস্ব হারানোর আতঙ্কে নদী পাড়ের হাজারো মানুষ

  দিনাজপুর প্রতিনিধি ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১৫:৪৮

পূণর্ভবা নদী
পূণর্ভবা নদী (ছবি : দৈনিক অধিকার)

দিনাজপুরে তিনটি ইউনিয়নের প্রায় ২৫ হাজার মানুষ নদী ভাঙনে সর্বস্ব হারানোর আতঙ্ক নিয়ে জীবন যাপন করছেন। বর্ষার দিন এলেই এলাকার মানুষকে তাড়া করে এক ভয়ঙ্কর দুশ্চিন্তা। চোখ মুখে আতঙ্কের ছাপ আর পারিবারিক সম্বল জমি-জমা, ঘরবাড়ি সবকিছু নদীতে বিলীন হওয়ার ভয়ে রাতের পর রাত জেগে থাকতে হয় এই নদী পাড়ের মানুষগুলোকে।

উপজেলার ১ নম্বর আজিমপুর ইউনিয়ন, ২ নম্বর ফারাক্কাবাদ ও ৩ নম্বর ধামইড় ইউনিয়নে প্রায় ২৫ হাজার মানুষের বসবাস। এই তিন ইউনিয়নের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া পূণর্ভবা নদীতে ভাঙন শুরু হয়েছে। বন্যা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য বাঁধের উপরে যে কয়েকটি স্লুইস গেট নির্মাণ করা হয়েছে তা সাধারণ মানুষের কোন উপকারে আসে না। অপরিকল্পিতভাবে নির্মিত এই স্লুইস গেট গুলো এখন বাঁধের আপদ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখানে সুদৃঢ়ভাবে বাঁধ নির্মাণ করলে অন্ততপক্ষে নদী ভাঙনের ভয় থেকে স্বস্তি পাবে এলাকার মানুষ।

স্থানীয়রা জানায়, স্বাধীনতার পর থেকে বহুবার বাঁধ নির্মাণের মাপজোক হয়েছে। দফায় দফায় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পরিদর্শনও করেছেন। কিন্তু কোনো কাজই হয়নি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম রওশন কবীর জানান, এই বাঁধের জন্য আমরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গে কথা হয়েছে। মাপ যোগও হয়েছে। আশা করি অল্প কিছুদিনের মধ্যে টেন্ডার কাজ সম্পূর্ণ হবে। এই বাঁধটি পূর্ণাঙ্গ হলে এই তিন ইউনিয়নসহ আশপাশের গ্রামের মানুষজনরা বন্যার আতঙ্ক থেকে মুক্তি পাবেন।

অনতিবিলম্বে বাঁধটি নির্মাণ করা হলে নদী ভাঙনের ঝুঁকি থেকে বাঁচবে নদী পাড়ের ২৫ হাজার মানুষ। তাই সরকার জনস্বার্থে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন এমন প্রত্যাশা ভুক্তভোগী সাধারণ মানুষের।

ওডি/এএসএল

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড