• বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

আলু বিক্রেতা থেকে কোটিপতি সেই মাকসুদ

  এসএম ইউসুফ আলী, ফেনী ১৪ এপ্রিল ২০১৯, ২০:৫৫

আসামি মাকসুদুল আলম
নুসরাত হত্যা মামলার অন্যতম আসামি মাকসুদুল আলম (ফাইল ফটো)

মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার অন্যতম আসামি মাকসুদুল আলম। গত শুক্রবার রাতে তিনি ঢাকায় গ্রেফতার হয়েছেন। এরপরই বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর নানা তথ্য। তিনি আলু বিক্রেতা থেকে অবৈধ পথে রাতারাতি কোটিপতি বনে গেছেন।

মাকসুদুল ফেনীর সোনাগাজী পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক। তবে রাফি হত্যাকাণ্ডে দল তাকে বহিষ্কার করেছে।

এক সময় আলু বিক্রি করতেন মাকসুদুল। এরই ফাঁকে ধীরে ধীরে সক্রিয় হয়ে ওঠেন স্থানীয় রাজনীতিতে। এক পর্যায়ে পান দলীয় বড় পদ। ২০১৭ সালের ২০ মার্চ সোনাগাজী পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় ক্যাডার ও নেতাকর্মীদের দিয়ে প্রকাশ্যে ব্যালট পেপারে সিল মেরে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন বলে মাকসুদুলের বিরুদ্ধে অভিযোগটি এলাকায় প্রচলন রয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, তিনি কাউন্সিলর হয়ে পৌর এলাকায় প্রভাব খাটিয়ে একের পর এক জমি দখল করতে থাকেন। তিনি ভূমি খেকো হিসেবে পরিচিতি। তাকে সহায়তা করেন সহোদর হেলাল ও সবুজ। তিনভাইয়ের বেপরোয়াপনায় মানুষ প্রতিবাদ করতে সাহস করেন না। সম্প্রতি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী হেলালকে ইয়াবাসহ গ্রেফতার করে। কিন্তু ৫ লাখ টাকার বিনিময়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের এক শীর্ষ নেতা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাত থেকে ছাড়িয়ে নেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

সোনাগাজী মহাসড়কের পশ্চিম পাশে পানি উন্নয়ন বোর্ডের আড়াই শতক জমি ইজারা নেন স্থানীয় নুরুল করিম শিল্পী। তিনি ১৫ বছর ‘শিল্পী স্টিল করপোরেশন’ নামে প্রতিষ্ঠানে নির্মাণ সামগ্রীর ব্যবসা করেন। প্রায় অর্ধকোটি টাকা মূল্যের এ জমির ওপর দৃষ্টি পড়ে কাউন্সিলর মাকসুদের। ২০১৭ সালে ২৫ সেপ্টেম্বর ‘শিল্পী স্টিল করপোরেশন’র জায়গাটি দখল করেন ও প্রায় ১৫ লাখ টাকার মালামাল লুট করেন কাউন্সিলর। এ ঘটনায় নুরুল করিম শিল্পী মামলা করেন। এরপর মাকসুদ তাকে সোনাগাজী ছাড়তে বাধ্য করেন। ওই মামলার দীর্ঘ তদন্ত শেষে মাকসুদ ও তার সহযোগী আবুল কালাম ভোলাকে অভিযুক্ত করা হয়। ২০১৮ সালের ২৩ ডিসেম্বর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান।

কাউন্সিলর মাকসুদুল আলমের বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ, সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার পাশে টিটি আবদুর রবের প্রায় কোটি টাকা মূল্যের চার শতক জমি দখল করেন কাউন্সিলর। তিনি চরগণেশ মান্ডব নামে একজনের জমি দখল করে ডুপ্লেক্স বাড়ি নির্মাণ করেন। প্রবাসী আবু তাহের ও আবু সুফিয়ানের স্ত্রী শাহানা আক্তারের ৬ শতক জমি দখল করেন। প্রতিবাদ করায় তাদের গুলি করে হত্যার হুমকি দেয়া হয়। শেষ পর্যন্ত প্রাণভয়ে তারা চুপসে যান। এছাড়া অনেকের সম্পত্তি দলীয় প্রভাবে দখল করেছেন তিনি।

ওডি/এসএ 

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড