• রবিবার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন

সুইপারের কোটি টাকার বাড়ি, তদন্তে নেমেছে দুদক 

  ফেনী প্রতিনিধি

১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২২:২৫
সুইপার হানিফের বাড়ি
সুইপার হানিফের আলিসান বাড়ি ( ছবি : দৈনিক অধিকার )

ফেনী পৌরসভার সুইপার হানিফ। বারাহিপুর এলাকায় রয়েছে কোটি টাকা মূল্যের বাড়ি। পৌর এলাকায় তার নামে সম্পত্তিও রয়েছে। তার সম্পদের উৎস অনুসন্ধানে তদন্তে নেমেছে দুদক।

বিভিন্ন সূত্র জানা যায়, ফেনী পৌরসভায় দীর্ঘদিন ধরে সুইপারের কাজ করেন হানিফ। ভাতা পান দৈনিক ১শ টাকা। পৌরসভায় কাজ করার সুবাদে জড়িয়ে পড়েন মাদক ব্যবসায়। পৌরসভা সংলগ্ন নির্মাণাধীন শ্যাম নাহার গার্ডেনের পেছনে শুরু করেন মাদক কেনাবেচা। সেটি এখন মাদকের স্বর্গরাজ্য হিসেবে পরিচিত। 

বিভিন্ন সময় তাকে ধরতে অভিযান চালিয়েছে জেলা প্রশাসনের মাদক বিরোধী টাস্কফোর্সের পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালত, পুলিশ এমনকি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। বেশ কয়েকবার গ্রেফতারও হন হানিফ। পরে কিছুদিন কারাভোগের পর আবার জামিনে বের হয়ে ফের মাদক কারবারে জড়িয়ে যান তিনি।

একটি সূত্র জানায়, মাদক কেনাবেচার ফলে অঢেল সম্পদের মালিক বনে যান সুইপার হানিফ। পৌরসভার বারাহিপুর এলাকার রেললাইন সংলগ্ন বঙ্গবীর ওসমানী সড়কে মো. নুর আলম ওরফে আলম বাবুর্চি থেকে ৫ শতক জমিসহ দ্বিতল ভবনের বাড়ি কিনেন তিনি। ৭০ লাখ টাকা মূল্যে কেনা ৬৫/০২ হোল্ডিংয়ের ওই বাড়িটিতে ৪ পরিবার ভাড়া নিয়ে বসবাস করছেন। 

এছাড়া রেল লাইনের পাশে আনসার সফি থেকে ২৫ লাখ টাকা দিয়ে ৪শতক জায়গা কিনেন হানিফ।

বাড়ির ভাড়াটে নাসির উদ্দিন জানান, প্রায় ১ বছর ধরে তিনি এ বাসায় স্বপরিবারে বসবাস করছেন। মাসিক হারে হানিফকে ভাড়া দেন ৫ হাজার টাকা। 
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের পরিদর্শক অমত্য সেন জানান, সুইপার হানিফ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী। তাকে ধরতে বিভিন্ন সময় বারাহিপুর রেল লাইনের পাশে কেনা বাড়িটিতেও অভিযান চালানো হয়েছে। 

২০১৮ সালের ৮ মার্চ পুলিশ কোয়ার্টার আল-কেমী হাসপাতাল সংলগ্ন রহিমা ম্যানশনের ভাড়া বাসা থেকে ৪০ বোতল ফেনসিডিলসহ তাকে গ্রেফতার করা হয়। এর দুইমাস পর ৩০ মে শ্যাম নাহার গার্ডেনের পেছনে তার আস্তানা থেকে ২০ লিটার চোলাই মদ উদ্ধার করা হয়। 

দুদক সূত্রে জানা যায়, প্রাথমিক তদন্তে হানিফের কোটি টাকার সম্পদের সন্ধান পাওয়া গেছে।

দুদক নোয়াখালী অঞ্চলের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম জানান, হানিফের সম্পদের খোঁজে দুদক অনুসন্ধান চালাচ্ছে। তদন্ত কাজ অনেক দূর এগিয়েছে। উপ-সহকারি পরিচালক আলতাফ হোসেন তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন। সম্প্রতি তিনি অন্যত্র বদলি হওয়ায় নতুন করে কাউকে দায়িত্ব দেয়া হয়নি।

ফেনী পৌরসভার প্যানেল মেয়র আশ্রাফুল আলম গীটার জানান, হানিফ ‘মাষ্টার রোলে’ সুইপারের কাজ করত। মাদকসহ ভ্রাম্যমাণ আদালতে গ্রেফতারের পর তাকে চাকুরিচ্যুত করা হয়েছে।

এসব প্রসঙ্গে সুইপার হানিফ বলেন, ‘দুদকের তদন্তের বিষয়টি আমার জানা নাই। গ্রামের বাড়িতে পৈত্রিক সম্পত্তি বিক্রি করে পৌর এলাকায় বাড়ি ও জায়গা কিনেছেন বলে দাবি করেন তিনি।  

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড