• শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারি ২০১৯, ৫ মাঘ ১৪২৫  |   ১৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

স্ত্রীর হাতে স্বামী খুন

  নওগাঁ প্রতিনিধি ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:৩৩

গ্রেফতার
গ্রেফতার দ্বিতীয় স্ত্রী মৌসুমী আক্তার (ছবি- দৈনিক অধিকার)

নওগাঁ শহরের উকিলপাড়া এলাকায় আব্দুল লতিফ (৪০) নামে এক ব্যক্তিকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে।

বুধবার (৯ জানুয়ারি) মধ্যরাতে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় নিহতের বড় মেয়ে লাবনী আক্তার আব্দুল লতিফের দ্বিতীয় স্ত্রী মৌসুমী আক্তারসহ (৩৫) অজ্ঞাত তিনজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন। পরে বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) মৌসুমীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। 

নিহত আব্দুল লতিফ নওগাঁ শহরের পুরাতন মাছ বাজার এলাকায় মেসার্স ইত্যাদি সিরামিকস নামের একটি দোকানের কর্মচারী ছিলেন। ছয় বছর ধরে তিনি পরিবার নিয়ে নওগাঁ শহরে বসবাস করছেন। প্রথম পক্ষের সন্তানদের নিয়ে নওগাঁ পৌরসভার মাস্টারপাড়া এলাকায় একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন তিনি। দ্বিতীয় স্ত্রী মৌসুমী আক্তার পৌরসভার উকিলপাড়া এলাকার থাকতেন।

মামলার এজহার সূত্রে জানা গেছে, এক বছর আগে বদলগাছী উপজেলা উপজেলা সদরের ইয়াসিন আলীর মেয়ে মৌসুমী আক্তারের সঙ্গে লতিফের বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাঁরা দুজনে নওগাঁ শহরের উকিলপাড়া এলাকায় বসবাস শুরু করেন। বিয়ের কিছু দিন পর থেকেই দুজনের মধ্যে পারিবারিক কলহ শুরু হয়। এক পর্যায়ে মৌসুমী আক্তার দেন মোহরের ৪ লাখ টাকা দিয়ে তাকে তালাক দেওয়ার জন্য তার স্বামী লতিফকে চাপ দেন।

এ নিয়ে রবিবার (৬ জানুয়ারি) দুই জনের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতি হয়। এতে লতিফের গাল ও ঠোঁট কেটে যায়। এ ঘটনার পর (৯ জানুয়ারি) বুধবার সন্ধ্যায় মৌসুমী তার স্বামীকে ফোন করে তার উকিলপাড়ার ভাড়া বাড়িতে ডেকে নেয়। রাতে লতিফের স্ত্রী ও তার সহযোগীরা মিলে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরে বিষয়টিকে ধামাচাপা দেওয়ার জন্য বাড়ির বারান্দার গ্রিলের সঙ্গে ফাঁস লাগিয়ে ঝুঁলিয়ে রাখে। খবর পেয়ে রাত ২টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। 

কাউন্সিলর একেএম নজমুল হক বলেন, মৌসুমীর আগেও তিন-চারটি বিয়ে করেছিল। নওগাঁ শহরেই তিনি আরও দুটি বিয়ে করেছিলেন। নারী নির্যাতনের মামলার ভয় দেখিয়ে তাদের কাছ থেকেও মোটা অঙ্কের দেন মোহরের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। 

এ ব্যাপারে নওগাঁর সদর থানার পরিদর্শক ফয়সাল আহমেদ বলেন, খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় লাশ উদ্ধার করে। গলায় ছাড়া লাশের দেহে অন্য কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। নওগাঁ সদর হাসপাতালে মরদেহের ময়না তদন্ত শেষে লাশ তার স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পেলে জানা যাবে, এটা আত্মহত্যা না, হত্যা। 

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড