• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

নির্বাচনের ডিউটিতে আনসার নিয়োগেও ঘুস!

  শুভংকর পোদ্দার, হরিরামপুর (মানিকগঞ্জ):

০২ মে ২০২৪, ১৯:১৬
নির্বাচনের ডিউটিতে আনসার নিয়োগেও ঘুস!

মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আনসার ও ভিডিপি সদস্যদের ডিউটিতে নিয়োগের জন্য ঘুস নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে৷ জনপ্রতি এক হাজার টাকা নিয়ে প্রশিক্ষণবিহীন এবং অন্য উপজেলার আনসার সদস্যদের দায়িত্বে নেওয়া হয়েছে। উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা তাজ সুলতানা বেগম তিনজন আনসার ও ভিডিপি সদস্যদের দিয়ে টাকা তুলছেন বলে অভিযোগ করেছেন আনসার ও ভিডিপি সদস্যরা। তবে বিষয়টি অস্বীকার করেছেন আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা তাজ সুলতানা।

উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কার্যালয় ও আনসার সদস্যদের সূত্রে জানা যায়, ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপে হরিরামপুর উপজেলায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৮ মে। নির্বাচনের জন্য ১২ জন সদস্য করে ৬৫টি গ্রুপে মোট ৭৮০ জন সদস্যের নাম চূড়ান্ত করা হয়েছে। তবে, নির্বাচনে বুথের ওপর ভিত্তি করে এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। নির্বাচনে আনসার সদস্যদের ডিউটির জন্য প্রতিটি গ্রুপ অনুযায়ী এবং এককভাবেও জনপ্রতি এক হাজার করে টাকা নেওয়া হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন আনসার-ভিডিপি সদস্য অভিযোগ করে বলেন, পিসি কোরবান আলী, নিয়ামদ্দিন এবং সেকেন্দার আলীর মাধ্যমে ডিউটির জন্য ১০০০ করে টাকা তুলছেন।

বাল্লা ইউনিয়নের এক গ্রুপের পিসি বলেন, "আমার ১১ জনের নাম দিয়েছিলাম। তার মধ্যে আমিসহ ৬ জনের নাম ফাইনাল করেছে। এজন্য নিয়ামদ্দিনকে আমি অন্যের কাছে থেকে ধার করে চার হাজার টাকা দিয়েছি।"

বাল্লা ইউনিয়নের দুই আনসার-ভিডিপি সদস্য নিয়ামদ্দিনকে এক হাজার টাকা করে দেওয়ার কথা জানান। টাকা দিচ্ছেন কেন জানতে চাইলে তারা বলেন, টাকা না দিলে তো ডিউটিতে নিবে না। তাই টাকা দিতে হচ্ছে।"

গালা ইউনিয়নের দুই আনসার-সদস্য বলেন, সেকেন্দার আলী যাদের নাম দিয়েছেন সবার কাছে থেকে এক হাজার টাকা করে নিচ্ছেন।

আরেক আনসার সদস্য বলেন, কোরমান আলী মোট ৬০ জনের কাছে থেকে এক হাজার টাকা করে মোট ৬০ হাজার টাকা নিয়েছেন।

টাকা নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে কোরমান আলী বলেন, আমি ৬০ জন লোক দিয়েছি। তবে কোন টাকা নেইনি।

আর সেকেন্দার আলী বলেন, "আমার বাছাইকৃত ২৬ জন লোক টিকেছে। এবার তারাই ডিউটি করবেন। আমি কারও থেকে টাকা নিয়েছি, কেউ বলতে পারবেনা।"

নিয়ামদ্দিন বলেন, পোষাক আনা-নেওয়া ও বাড়িতে পৌঁছে দিতে ৩/৪০০ টাকা খরচ নেয় অনেকেই। আমি কোন টাকা নেইনি। এছাড়া আমার বিরুদ্ধে এক হাজার করে টাকা নেওয়ার বিষয়টিও মিথ্যা। কেউ বলে থাকলে, আমাকে ফাঁসানোর জন্য বলেছে। পরে তিনি প্রতিবেদককে দেখা করার জন্য অনুরোধ করেন।

এ বিষয়ে মুঠোফোনে হরিরামপুর উপজেলা আনসার-ভিডিপি কর্মকর্তা তাজ সুলতানা বেগম বলেন, গ্রুপ বাছাই করা হয়েছে। যারা প্রশিক্ষণে টিকেছে হরিরামপুর থেকে তাদেরকেই নেওয়া হয়েছে। যারা টিকেনি তাদের নেওয়া হয়নি। তাই অন্য উপজেলা থেকে লোক আনা হয়েছে। পরে তাকে টাকার বিনিময়ে কৃষক সহ বিভিন্ন শ্রেণীর লোক নেওয়ার কথা বললে তিনি বলেন, যারা আগে ডিউটি করেছে এমন লোককেই নিয়েছি। তবে কয়েকজন গরীব মানুষকেও নেওয়া হয়েছে। তবে সেটা ঢালাওভাবে নয়। আর টাকা নেওয়ার বিষয়টি আমার জানা নেই। আমার নাম ভাঙিয়ে যাদের বিরুদ্ধে টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে, আমি তাদেরকে ডাকবো৷ তারা যদি টাকা নিয়ে থাকে তাহলে তাদের গ্রুপই বাতিল করে দিবো।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড