• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

হলফনামায় তথ্য গোপন : ভুয়া আইনজীবী দিয়ে পরিচয় শনাক্ত

  পিরোজপুর প্রতিনিধি

৩০ এপ্রিল ২০২৪, ২৩:০৩
হলফনামায় তথ্য গোপন : ভুয়া আইনজীবী দিয়ে পরিচয় শনাক্ত

নির্বাচনি হলফনামায় তথ্য গোপন, ভুয়া আইনজীবী দিয়ে হলফনামা পরিচয় শনাক্ত করাসহ এছাড়া হত্যাচেষ্টা মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে, পুলিশের নিরাপত্তায় নির্বাচনে প্রচারণা করছে পিরোজপুর সদর উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ মো. বায়জীদ হোসেন।

দিনে দুপুরে সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে চিহ্নিত মাদক কারবারি, মাদকসেবী, বিভিন্ন মামলার আসামি, চাঁদাবাজ, সংখ্যালঘু সম্প্রদায় নির্যাতনকারী ও মাদকসেবীদের নিয়ে নির্বাচনি প্রচারণা করে যাচ্ছে শেখ মো. বায়জীদ হোসেন এ সকল ঘটনায় পিরোজপুর সদর উপজেলার সাধারণ ভোটারসহ জনগণ আতঙ্কের মধ্যে আছে। তাই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা দ্রুত এ সময় বিষয়ে পুলিশ প্রশাসন ও রিটার্নিং অফিসারের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

নির্বাচনের চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী মো. শফিউল হক অভিযোগ করেছেন, গত ১৭ ডিসেম্বর দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সময় নির্বাচনি অংশ নেয়া স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থককে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের রনি সাহাকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার প্রধান আসামি শেখ মো. বায়জীদ হোসেন।

এ ঘটনায় ১৮ ডিসেম্বর পিরোজপুর সদর থানায় শেখ মো. বায়জীদ হোসেন প্রধান আসামি করে একটি কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার মামলায় দায়ের করা হয়। এ মামলায় আসামি শেখ মো. বায়জীদ হোসেন উচ্চ আদালত থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত জামিন আনেন। এর পরে জামিনের মেয়াদ শেষ হলে আসামি শেখ মো. বায়জীদ হোসেন পিরোজপুরের দায়রা জজ আদালতের হাজির না হলে আদালতের বিচারক গত ২৯ ফেব্রুয়ারি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে।

কিন্তু স্থানীয় পুলিশ সেই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা তামিল না করে আর্থিক সুবিধা নিয়ে আসামি শেখ মো. বায়জীদ হোসেনকে গ্রেপ্তার করছে না। এমনকি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নিয়েই পুলিশের উপস্থিতিতেই আসামি শেখ মো. বায়জীদ হোসেন নির্বাচন অফিসের কার্যালয়ে এসে তার মনোনয়নপত্র জমা দেন এবং রিটার্নিং অফিসারের কাছ থেকে প্রতীক নেয়। অন্য দিকে পুলিশের খাতায় পলাতক আসামি শেখ মো. বায়জীদ হোসেন বিভিন্নভাবে পুলিশের প্রহরায় তার নির্বাচনি প্রচারণা করছে। যা সুষ্ঠু ও সন্ত্রাসমুক্ত নির্বাচনে বাঁধা সৃষ্টি করতে পারে।

অপর দিকে নির্বাচনে বায়জীদের প্রচারণায় দেখা গেছে পিরোজপুর সদর উপজেলার চিহ্নিত মাদক কারবারি, মাদক সেবী, বিভিন্ন মামলার আসামী, চাঁদাবাজ, সংখ্যালঘু সম্প্রদায় নির্যাতনকারী ও মাদকসেবীদের। যারা সাধারণ ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে যেতে নানা ভাবে হুমকি দিতেছে।

নির্বাচনের চেয়ারম্যান পদের প্রার্থী মো. শফিউল হক আরও অভিযোগ করেছেন, পিরোজপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নেয়া চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ মো. বায়জীদ হোসেন তার নির্বাচনি হলফনামায় মিথ্যা তথ্য ও নানা তথ্য গোপন করেছে এবং ভুয়া আইনজীবী কর্তৃক সে তার হলফনামার পরিচয় শনাক্ত করেছে।

অন্য দিক হলফনামায় আয়ের স্থানে শেখ মো. বায়জীদ হোসেন তার আয় দেখিয়েছে তার ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান মো. শেখ এন্টারপ্রাইজ হতে ব্যবসা করে ৩ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা আয় করেছেন। কিন্তু বর্তমানে শেখ মোঃ বায়জীদ হোসেন পিরোজপুর সদর উপজেলার ভাইস-চেয়ারম্যান পদে দায়িত্ব পালন করছে। এই পদে থেকে সরকারি যে ভাতা ভোগ করেছে সে তা তার নির্বাচনী হলফনামায় গোপন করেছে। শেখ মো. বায়জীদ হোসেনের আয়কর রিটার্নের হিসেবে তার সম্পত্তির স্থানে তার কাছে ২৫ ভরি স্বর্ণ দেখালেও হলফনামায় তা উল্লেখ আছে ২ ভরি স্বর্ণ। হলফনামায় তার ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান মো. শেখ এন্টারপ্রাইজের কোন আয়-ব্যয় বা ব্যাংক হিসাব উল্লেখ না করে তা গোপন করা হয়েছে। শেখ মো. বায়জীদ হোসেনের হলফনামার পরিচয় শনাক্তকারী অ্যাডভোকেট অরুণ কান্তি মণ্ডলের কোনো বাংলাদেশ বার কাউন্সিল কর্তৃক আইনজীবীর সনদ নেই।

হলফনামার পরিচয় শনাক্তকারী অ্যাডভোকেট অরুণ কান্তি মণ্ডলের বার কাউন্সিলের সনদ ভুয়া বলে তা বাতিল করে দেয় বাংলাদেশ বার কাউন্সিল। এ সকল বিষয়ে নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করলেও বিশেষ কোন কারণে তার কোনো সুরাহা করছে না তিনি।

এ বিষয়ে নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মো. মিজানুর রহমান জানান, প্রার্থীর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ যাচাই-বাছাই করে দেখা হচ্ছে। এ বিষয়ে কমিশন সিদ্ধান্ত জানাবে। এছাড়া আচরণ বিধি লঙ্ঘন করলে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

গেপ্তারি পরোয়ানার বিষয়ে পিরোজপুর সদর থানার ওসি মো. আসিকুজ্জামান এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হয়নি। অভিযোগের বিষয়ে প্রার্থী শেখ মো. বায়জীদ হোসেনের মোবাইলে বারবার কল দিলেও সে তা রিসিভ করেনি।

পিরোজপুরের সুজন জেলা কমিটির সভাপতি মনিরুজ্জামান নাসিম জানান, গ্রেপ্তরি পরোয়ানা নিয়ে পুলিশের সামনে ঘুরে নির্বাচনি প্রচারণা করা নির্বাচনি আচরণের চরম লঙ্ঘন। অতিদ্রুত ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া উচিত।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড