• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

'জান আমার জন্য ফাঁসিতে ঝুলেছে, আমি থাকতে পারলাম না' ‌

  আব্দুর রউফ রুবেল, গাজীপুর

২৭ এপ্রিল ২০২৪, ১৩:০৭
স্বামী-স্ত্রীর লাশ

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মুলাইদ গ্রামের একটি বহুতল ভবনের নিচতলা থেকে ইসরাফিল ও রোকেয়া নামের স্বামী-স্ত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। মরদেহের পাশে পড়ে থাকা চিরকুট দেখে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে, এটি আত্মহত্যা।

শুক্রবার (২৬) এপ্রিল সকালে শ্রীপুর উপজেলার মুলাইদ গ্রামের ফারুক খানের বহুতল ভবনের নিচ তলার একটি কক্ষ থেকে স্বামী -স্ত্রীর দুটি মরদেহ উদ্ধার করে শ্রীপুর মডেল থানা পুলিশ।

নিহত স্বামী মো. ইসরাফিল (১৭) শেরপুরের ঝিনাইগাতি থানার হলদি গ্রামের মো. মফিজুল হকের ছেলে। নিহত স্ত্রী মোছা. রোকেয়া খাতুন (১৫) ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ থানার পস্তারি গ্রামের আবুল কাশেমের মেয়ে। প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে গত ৭/৮ মাস আগে তারা পরিবারের অমতে বিয়ে করেন। গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মুলাইদ গ্রামের মো. ফারুক হোসেনের বহুতল ভবনে ভাড়া থেকে ইসরাফিল স্থানীয় একটি ওয়ার্কশপে ও রোকেয়া স্থানীয় একটি কারখানায় কাজ করতেন।

নিহত রোকেয়ার ভাই মো. বোরহান উদ্দিন বলেন, ৭-৮ মাস আগে পরিবারের অমতে তারা বিয়ে করে। তাদের সম্পর্ক ভালোই চলছিল। সম্প্রতি ইসরাফিল তার বাবা-মায়ের সঙ্গে ঝগড়া করে বাড়ি থেকে চলে গিয়েছিল। পরে বৃহস্পতিবার তাদের বুঝিয়ে বাসায় আনা হয়েছিল। সকালে তাদের মৃত্যুর খবর পাই।

নিহত ইসরাফিলের বাবা মফিজুল হক জানান, পাশাপাশি ফ্লাটে বসবাস করতেন তারা। পরিবারের রান্নার কাজ তারা ইসরাফিলের ফ্লাটে করতেন। শুক্রবার সকালে ইসরাফিলের ফ্লাটের দরজা খোলা দেখতে পেয়ে ভেতরে যান এবং ইসরাফিলকে ওড়নায় প্যাচানো ঝুলন্ত অবস্থায় এবং রোকেয়ার মরদেহ খাটের ওপর বিছানায় দেখতে পান। পরে পাশ থেকে একটি চিরকুট পাওয়া গেছে।

চিরকুটে লেখা ছিল, ‘মা-বাবা আমাকে মাফ করে দিও, আমি তোমাদের সাথে থাকতে পারলাম না। আমার জান আমার জন্য ফাঁসিতে ঝুলেছে। তাই আমি থাকতে পারলাম না। আমি কাউকে দোষারোপ করি না। কারও কোনো দোষ নাই। আমার জান আমার জন্য অপেক্ষা করতাছে। সবাই ভালো থাকবা। মো. ইসরাফিল। মা আমার পাশে রোকেয়ার কবর দিও মা। মা আমি জানি না আমার জান কেন ফাঁস দিল। তার জন্য সম্পন্ন আমি দায়ী। এতে কারও কোনো দোষ নাই।’

নিহতের মা কাজলি বেগম বলেন, "সকালে আমার মেয়ে অফিসে যাবে তাই ছেলের ঘরে যাই গিয়ে দেখি বউ বিছানায় শুয়ে আছে, আর আমার ছেলে ঝুলে আছে, ছেলেকে জড়িয়ে ধরলে খুলে পড়ে যায় বিছানায়,বউকে ডাক দিলে দেখি বউ শক্ত হয়ে আছে।"

ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন সহকারী পুলিশ সুপার কালিয়াকৈর সার্কেল আজমির হোসেন। ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সহকারী পুলিশ সুপার সাংবাদিকদের বলেন,"আমরা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি এটা আত্মহত্যা, লাশ উদ্ধার করেছি, ময়নাতদন্তের জন্যে পাঠানো হবে, পরে তদন্ত সাপেক্ষে বলা যাবে এটার প্রকৃত ঘটনা কি ?

শ্রীপুর থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সাখাওয়াত হোসেন জানান, খবর পেয়ে স্বামী-স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে প্রথমে স্ত্রী আত্মহত্যা করে। স্ত্রীর আত্মহত্যার বিষয়টি স্বামী সইতে না পেরে তিনিও আত্মহত্যা করেন। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড