• রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

চার বছর আগে রাস্তা খুড়ে 'বিল' নিয়ে উধাও ঠিকাদার, ভোগান্তিতে গ্রামবাসী

  মাজেদুল ইসলাম হৃদয়, ঠাকুরগাঁও :

২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১৫:২০
চার বছর আগে রাস্তা খুড়ে 'বিল' নিয়ে উধাও ঠিকাদার, ভোগান্তিতে গ্রামবাসী

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে চার বছর আগে রাস্তা পাকা করণের জন্য খুড়ে সামান্য বালু ও খোয়া বিছিয়ে বিল নিয়ে উধাও একটি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে ওই গ্রামের মানুষ। এমন অভিযোগ গ্রামবাসীর।

এদিকে এমন অভিযোগে সাংবাদিকদের কয়েকদিন ঘুরালেও স্থানীয় প্রকৌশল অধিদপ্তর ওই রাস্তা সম্পর্কে কোন তথ্য দিতে পারেনি। এক সপ্তাহ সময় নিয়ে সোমবার বিকালে জানিয়েছে কোন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান খুড়েছিল, কখন টেন্ডার হয়েছিল, কত টাকা বরাদ্দ ছিল কিছুই জানেন না তারা।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার দুওসুও ইউনিয়নের বেংরোল জিয়াবাড়ী গ্রামের হায়দার আলীর মোড় থেকে তাহেরের পর্যন্ত আধা কিলোমিটার রাস্তার পাকা করণের জন্য রাস্তা খুড়ে ওই গ্রামের ৫ হাজার মানুষকে বিপদে ফেলেছেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি। বর্ষাকালে ওই রাস্তায় পানি জমে বন্ধ হয়ে যায় চলাচল, স্কুল-কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের পড়তে হয় চরম ভোগান্তিতে।

অভিযোগ উঠেছে ওই আধা কিলোমিটার রাস্তা পাকা করণের জন্য মিষ্টি খেতে দুই দফায় ৬৫ টাকা নিয়েছিলেন ওই সময় দায়িত্বে থাকা উপজেলা প্রকৌশলী ও তার লোকজন। এসব টাকা গ্রামবাসীর নিকট থেকে সংগ্রহ করে দিয়েছিলেন আব্দুল কাদের নামে এক বয়স্ক ব্যক্তি। রাস্তা পাকা না হওয়ায় টাকা ফেরত চেয়ে এখন তার বাড়ীতে নিয়মিত ঘুরছে গ্রামের লোকজন।

আব্দুল কাদের জানান, গ্রামবাসীর নিকট থেকে ১'শ, ৫'শ ও হাজার টাকা করে প্রথমে ৫০ হাজার টাকা, পরে আরও ১৫ হাজার টাকা ইঞ্জিনিয়ার অফিসে দিয়েছি। কাজ না হওয়ায় গ্রামের লোকজন এখন আমার নিকট টাকা ফেরত চাচ্ছে। কয়েকদিন আগে টাকা ফেরত না দেওয়ায় আমার বাড়ীতে ঢিল ছুড়েছে গ্রামের লোকজন। লজ্জায় হাট বাজারে যেতে পারছেন না, খারাপ অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন তিনি।

বেংরোল জিয়াবাড়ী গ্রামের মনসুর আলম জানান, এক সপ্তাহ আগে প্রতিবেশী বেলালের বাড়ীতে আগুন লেগেছিল। রাস্তা খুড়ে রাখার কারণে ফায়ার সার্ভিস সময়মতো পৌছাতে পারেনি। তাছাড়া বর্ষার সময় কাদাপানিতে এই এলাকায় কেউ আসতে চায়না।

সাজু নামে একজন জানান, শুনেছিলাম প্রায় কোটি টাকা বরাদ্দ ছিল এই রাস্তা নির্মাণে। তাড়াহুড়ো করে রাস্তা খুড়লো ঠিকাদার। মনে করেছিলাম দীর্ঘদিন পরেও হলেও রাস্তা পাকা হচ্ছে, দুর্ভোগ থেকে মুক্তি পাবে গ্রামবাসী। এখন উল্টো দুর্ভোগ আরও বেড়েছে। এলজিইডি অফিসে খবর নিয়ে শুনেছি ঠিকাদার বিল তুলে নিয়ে পালিয়েছে।

কলেজছাত্র আল আমিন জানান, বর্ষার সময় গাড়ী আসতে চায় না, কলেজে ইজিবাইকে যেতে চাইলে ৪০ টাকার ভাড়া ৪০০ টাকা চায়। এ ভোগান্তি থেকে সবাই মুক্তি চাই।

রাস্তার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের নাম, বরাদ্দ যাবতীয় তথ্যের জন্য একাধিকবার উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তরে যোগাযোগ করা হলে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম তথ্য বের করার জন্য সময় চান। সময় নিয়ে ৭ দিন পর সোমবার বিকালে তিনি উল্টো সাংবাদিকদের প্রশ্ন করেন, ৪ বছর আগের রাস্তার কাজ, এখন খবর নিতে আসছেন কেন? এমন হতে পারে ঠিকাদার ভুল করে ওই রাস্তার কাজ শুরু করেছিল। আমি অতিরিক্ত দায়িত্বে আছি, এর বেশি জানিনা।

"তবে ৬৫ হাজার টাকা মিষ্টি খাওয়ার জন্য কে নিয়েছে, এমন প্রশ্নের উত্তর দিতে অনীহা প্রকাশ করেন তিনি। "

জানতে চাইলে এলজিইডির ঠাকুরগাঁও নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মামুন বিশ্বাস বলেন, রাস্তা খুড়ে রাখবে ঠিকাদার, ৪ বছর ভোগান্তিতে থাকবে মানুষ, এটা হতে পারে না। আপনার সংবাদ প্রকাশ করেন, আমি বিয়ষটি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবো।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড