• বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

রাজশাহীতে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে অপরিপক্ব তরমুজ  

  রাফিকুর রহমান লালু, রাজশাহী

২০ মার্চ ২০২৪, ১৬:২২
অপরিপক্ব তরমুজ  

তরমুজের মৌসুম শুরু হয় চৈত্রের শেষে ও বৈশাখের শুরুতে। অর্থাৎ এপ্রিল মাস থেকে জুন মাস পর্যন্ত তরমুজ পাওয়া যায়। কিন্তু বাজারে ফেব্রুয়ারির শেষ থেকে দেখা মিলছে তরমুজের। তবে সবচেয়ে বেশি তরমুজ বিক্রি শুরু হয় রমজান মাসের শুরু থেকে। ক্রেতারা অভিযোগ করছেন, এসব তরমুজ অপরিপক্ব। খাওয়ার অনুপোযোগী। বিক্রেতা বলছেন, এগুলো বারোমাসি তরমুজ বিক্রি করা হচ্ছে। মৌসুম শুরু হলে আবারও তরমুজ উঠবে। পরিপূর্ণ মৌসুম শুরু না হলেও রমজানে বেশি লাভের আশায় ব্যবসায়ীরা অপরিপক্ব তরমুজ মাঠ থেকে নিয়ে এসে বিক্রি করছেন। এসব ফলের রঙ ও স্বাদ অনেক কম। তারপরও চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে রসালো ফলটি। এতে ক্রেতারাও অসন্তুষ্ট।

তরমুজ নিয়ে কয়েক বছর ধরে ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে চলছে এক ধরনের অসন্তোষ। বিক্রেতারা পিস হিসাবে কিনে বিক্রি করছেন কেজি দরে। গত কয়েক বছরেও এ বিষয়ে তেমন কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি বাজার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। ২০২১ সালে করোনা মহামারির সময় পিস হিসেবে তরমুজ বিক্রির নির্দেশ দিয়েছিল প্রশাসন। এরপর আর তরমুজ নিয়ে কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি। তবে সম্প্রতি নাটোরে প্রশাসন পিস হিসেবে বিক্রির নির্দেশ দিয়েছে।

রাজশাহী নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, ৫ থেকে ১০ কেজি পর্যন্ত ওজনের তরমুজ পাওয়া যাচ্ছে। এ ছাড়া বিভিন্ন বাজার, পাড়া ও মহল্লার মোড়ের দোকানে ছোট ও মাঝারি আকারের তরমুজ বিক্রি করছেন বিক্রেতারা। প্রতি কেজি তরমুজ বিক্রি করা হচ্ছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকা। গেল বছর ছিল ৪০ থেকে ৫০ টাকা। এর আগের বছরও এরকম দামেই বিক্রি হয়েছিল।

নগরীর সাহেব বাজার এলাকায় কথা হয় জুলফিকার রহমান নামে এক ক্রেতার সঙ্গে। তিনি বলেন, প্রতি কেজি তরমুজ ৭০ টাকা অনেক বেশিই। তারা খেত থেকে পিস হিসেবে কিনে কেজিতে বিক্রি করছে। সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতর গুলোকে এগুলো দেখতে হবে। দেশের মানুষ ব্যবসায়ীদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়ছে। রহমত আলী নামে আরেক ক্রেতা বলেন, ছোট সাইজের তরমুজের ওজন হয়েছে চার কেজি। ৭০ টাকা কেজিতে দাম এসেছে ২৮০ টাকা। কিন্তু এই তরমুজের দাম কোনো ভাবেই ১২০ টাকার বেশি হওয়ার কথা না। ভালো হতো পিস হিসাবে কিনতে পারলে। দেশের জনগণকে নিয়ে ব্যবসায়ীরা তামাশা শুরু করেছেন। এসব দেখার যেন কেউ নেই দেশে।

বিক্রেতারা বলছেন, আগামী ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে পুরোদমে তরমুজের মৌসুম শুরু হবে। তখন দাম কিছুটা কমবে। সাহেব বাজার এলাকার খুচরা ফল বিক্রেতা আবুল হোসেন বলেন, আমাদের আড়ত থেকে কিনে আনতে হচ্ছে ৬০ টাকা কেজি দরে। এখানে নিয়ে এসে ৫ টাকা লাভে আমরা তরমুজ বিক্রি করছি। মৌসুম শুরু হলে দাম কমে যাবে। নগরীর শালবাগান এলাকার ফলের আড়তদার শাহ জামাল বলেন, গতবার এ সময় যে ১০০ তরমুজ ১৫ হাজার টাকায় আড়ত থেকে কেনা যেত। এবার তা ২৫ হাজার টাকায় কিনতে হচ্ছে। আমাদের আরও খরচ আছে। এর মধ্যে পরিবহন ও শ্রমিকদের টাকা দিতে হয়। সেগুলো যোগ করে পাইকারি ৫০ থেকে ৬০ টাকায় আমাদের বিক্রি করতে হচ্ছে। এখান থেকে নিয়ে গিয়ে খুচরা বিক্রি ৬৫ থেকে ৭০ টাকা কেজিতে। আবার কেউ বেশি দামেও বিক্রি করছে।

আড়তদাররা বলছেন, এসব তরমুজ বরিশাল বিভাগ নিয়ে আসা হচ্ছে। বরগুনা ও ভোলা থেকে নিয়ে আসা হচ্ছে তরমুজ। এরপর নিয়ে আসা হবে খুলনা ও চুয়াডাঙ্গা থেকে। নাটোরের তরমুজ সব শেষে নিয়ে এসে বিক্রি করা হয়।কৃষি বিভাগ বলছে, দেশে তরমুজ সাধারণত এপ্রিল-মে মাসে ওঠে। এটাই তরমুজের প্রধান মৌসুম। কিন্তু সম্প্রতি বাজারে এ সময় ছাড়া অন্য সময়েও তরমুজ পাওয়া যাচ্ছে।

বিশেষ করে মে থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এ তরমুজ বেশি পাওয়া যায়। এ তরমুজকে অনেকে নাম দিয়েছেন ‘বারোমাসি তরমুজ’। তরমুজ-গুলো অসময়ে ওঠার কারণে চাষিরাও ভালো দাম পাচ্ছেন। কোনো স্থানে হলুদ রঙের খোসার অ-মৌসুমি তরমুজেরও চাষ হচ্ছে। দিন দিন অ-মৌসুমে তরমুজ চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড