• বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০  |   ১৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মা-বাবা ও মেয়েকে জবাই করে হত্যা, রহস্য কি?

  সোহেল রানা, সিরাজগঞ্জ :

৩০ জানুয়ারি ২০২৪, ১৬:৩৩
জবাই করে হত্যা

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার পৌর শহরের প্রাণকেন্দ্র বারোয়ারী বটতলা মহল্লায় মা-বাবা ও মেয়েকে জবাই করে হত্যা করা হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যার পর কোন এক সময় দুর্বৃত্তরা এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে বলে পুলিশ ধারনা করছে। সোমবার দুপুরে পুলিশ নিহত বিকাশের তিনতলা বাড়ির ফ্ল্যাট থেকে মরদেহটি তিনটি উদ্ধার করে হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করেছে। নিহতরা হলো-তাড়াশ পৌর এলাকার কালিচরণ সরকারের ছেলে বিকাশ সরকার(৪৫), তাঁর স্ত্রী স্বর্ণা রানী সরকার (৪০) ও মেয়ে তাড়াশ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর ছাত্রী পারমিতাসরকার তুষি (১৫)।বিকাশ সরকার হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদ তাড়াশ উপজেলা শাাখার কোষাধ্যক্ষ ও তাড়াশ গোপাল জিউ বিগ্রহের কোষাধ্যক্ষ ছিলেন। নির্মম এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় হতবাক হয়ে পড়েছে তাড়াশবাসী। শোকের ছায়া নেমে এসেছে পুরো এলাকায়।

নিহত বিকাশ সরকারের ভাগ্নে লিপন জানান, শনিবার রাত থেকে মামা বিকাশ সরকারকে ফোন দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেন না। এ নিয়ে দুশ্চিন্তা শুরু হয়। এক পর্যায়ে রবিবার রাতে বগুড়ার শেরপুর থেকে মাইক্রো নিয়ে মামার বাড়ী সিরাজগঞ্জের তাড়াশে রওনা হই। রাত ১২টার দিকে বাসায় এসে দরজায় তালা দেখে মামাকে পুনরায় কল করি। কিন্তু ঘরের ভিতর থেকে ফোনের আওয়াজ শোনা গেলেও ফোন রিসিভ না করায় সন্দেহ হয়। পরে স্থানীয় বাসিন্দা তপন গোস্বামীকে ডেকে নিয়ে আসি। তার পরামর্শে রাত দুইটার দিকে তাড়াশ থানায় গিয়ে বিষয়টি অবহিত করা হয়। পরে পুলিশের সহায়তা তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে দেখি মামার ক্ষত-বিক্ষত লাশ একটি রুমের মেঝেতে পড়ে আছে। পাশের রুমের মেঝেতে মামী স্বর্না রানী ও খাটের উপর বোন তুষির লাশ পড়ে আছে।

স্থানীয় বাসিন্দা তপন গোস্বামী জানান, বিকাশ সরকার শনিবার বিকেলে তাড়াশ পুজা উদযাপন কমিটির একটি সভা করতে দেশীগ্রাম যায়। ওই সময় একটি ফোন আসলে বিকাশ সরকার দ্রুত বাসায় চলে আসে। এরপর থেকে বিকাশ সরকারের সাথে যোগাযোগ হয়নি। সোমবার রাত ১২টার দিকে বিকাশ সরকারের ভাগ্নে ফোন দিলে তার সাথে বাসায় গিয়ে তালা দেখার পর পুলিশ সাথে নিয়ে তালা ভাঙ্গা হয়। তিনি জানান, আমার জন্মের পর এতো নৃশংস হত্যাকান্ড কখনো দেখিনি। তিনজন মানুষকে কুপিয়ে ও জবাই করে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে।

বিকাশের দুই বোন আরতী ও প্রমিলা বলেন, হত্যাকান্ডের কারন জানিনা তবে আমার ছোট বোনের এক মেয়েকে রাজশাহীর পুঠিয়াতে বিয়ে দেয়া হয়েছে। তার স্বামী তাকে জ্বালাতন করে এ জন্য বিকাশ ভাগ্নির জন্য মামলা করেছে। সেই মামলায় ভাগ্নি জামাই জেল হাজতে রয়েছে। এ ছাড়াও জমি-জমা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে স্বজনদের মধ্যে ঝামেলা রয়েছে। এসব কারনেই ভাই-ভাবী ওভাতিজাকে হত্যা করা হতে পারে। তারা দ্রুত হত্যার রহস্য উদঘাটন পুর্বক হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবী জানান।

বিকাশ সরকারের বয়োবৃদ্ধ মা শান্তি বেলা জানান, পারিবারিকভাবে আলাদা হওয়ায় একমাস করে দুই ছেলের ফ্লাটে থাকি। তিন/চারদিন আগে ওই ছেলের ফ্লাট থেকে আমি বড় ছেলের ফ্লাট এসেছি। ঘরে তালা দেখে ভেবেছিলাম ওরা মেয়ের বিয়ের জন্য হয়তো পাত্রপক্ষের বাড়ীতে গেছে। তিনি আরো জানান, পাশাপাশি ফ্লাট কিন্তু একটু শব্দও শুনতে পাইনি। তিনি কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, আমার তিনটা বুকের ধনকে হত্যা করেছে আমি তাদের শাস্তি দাবী করছি।

সিরাজগঞ্জ পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সন্তোষ কুমার কানু নৃশংস হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়ে ঘটনার সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদেরকেই গ্রেফতারপুর্বক শাস্তি আওতায় আনার দাবী জানিয়েছেন। তাড়াশ পৌর মেয়ের আব্দুর রাজ্জাক জানান, তাড়াশের পৌর এলাকায় এই প্রথম এতো বড় নিমর্ম হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। তিনজন মানুষকে নির্মমভাবে জবাই করে হত্যা করা হয়েছে। তিনি হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়ে দ্রুত হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবী জানিয়েছেন।

সিরাজগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস) সামিউল আলম জানান, হত্যাকান্ডের কোন ক্লু এখনো পাওয়া যায়নি। ধারনা করা হচ্ছে, কোন লুট বা ডাকাতির উদ্দেশ্যে নয়, বড় ধরনের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে এ নিমর্ম হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটানোর পর ফ্লাটের দরজায় তালা লাগিয়ে পালিয়ে যায়। তিনি আরো জানান, হত্যাকান্ডের সকল আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি সিআইডি, ডিবি, র‍্যাব ও পিবিআই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আলামত যাচাই-বাছাইসহ হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন এবং হত্যাকারীদের সনাক্তের চেষ্টা করছে। আশা করছি দ্রুত আসামীদের গ্রেফতার করা সম্ভব হবে।

সিআইডি পরিদর্শক মোহাইমিনুল জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। আমরা ছায়া তদন্ত করছি। এখনো হত্যার কারন উদঘাটন হয়নি।

পিবিআইয়ের পরিদর্শক গোলাম কিবরিয়া জানান, আমরাও ছায়া তদন্তে নেমেছি। তদন্তে কিছুটা অগ্রগতি হয়েছে। সন্দেহভাজন হিসেবে একজনকে শনাক্ত করতে পেরেছি। তবে তদন্তের স্বার্থে নাম বলা যাচ্ছে না।

তাড়াশ থানার ওসি নজরুল ইসলাম জানান, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনা এখনো মামলা হয়নি।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড