• বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মিরসরাইয়ে হাজার কোটি টাকার ‘মৎস্য জোন’ হুমকির মুখে

  এম আনোয়ার হোসেন, মিরসরাই (চট্টগ্রাম)

২৫ জানুয়ারি ২০২৪, ১২:৪৫
হুমকির মুখে

‘মৎস্য জোন’ খ্যাত মিরসরাইয়ে মুহুরী প্রকল্প। কয়েক হাজার কোটি টাকার মৎস্য শিল্প এখন হুমকির মুখে। পথে বসার উপক্রম হয়েছে হাজার হাজার মৎস্য চাষীর। এখানকার মৎস্য ঘের উচ্ছেদে অভিযান চালাচ্ছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)।

গত মঙ্গলবার অভিযানের পর বুধবারও (২৪ জানুয়ারি) সকাল থেকে সিডিএসপি বাঁধ ও সুপার ড্রাইক এলাকার অভিযান অব্যাহত রেখেছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের এ প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা। মৎস্য ঘেরের পাড় কেটে দেওয়ায় স্থানীয় মাছ চাষীদের কয়েক কোটি টাকার মাছ বঙ্গোপসাগরে চলে যায় বলে জানিয়েছে মৎস্য ঘের মালিকরা। এতে কয়েক কোটি টাকার ক্ষতির মুখে পড়েছে। মুহুরী প্রকল্প এলাকায় বছরে উৎপাদন হয় ৪৯ হাজার মেট্রিক টন মাছ। যা চট্টগ্রাম জেলার মৎস্য খাদ্য চাহিদার ৭০ ভাগ পূরণ করে। আর এসব মাছের আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ১ হাজার ১’শ ২৭ কোটি টাকা।

অন্যদিকে এসব অভিযানকে অন্যায় আখ্যা দিয়ে বেজা কর্তৃপক্ষ নিজেদের অধিগ্রহণকৃত অঞ্চল চিহ্নিত না করে অযথা বৈধ মাছের ঘের ধ্বংস করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেন মৎস্য চাষীরা। প্রয়োজনে বৃহত্তর এই মৎস্য উৎপাদন ক্ষেত্র বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাবেন বলে জানান তারা। তবে বেজা কর্মকর্তারা বলছেন এখানে সরকারি জমির দখল করে মাছের ঘের তৈরি করা হয়েছে। পূর্বে তাদের সরে যেতে বলা হলেও তারা বেজার নির্দেশনারও কর্ণপাত করেনি। তাদের অধিগ্রহণ করা জমিতে অবৈধভাবে মাছের ঘের গড়ে তোলায় তা ধ্বংস করা হচ্ছে।

মিরসরাই ভূমি অফিস সূত্রে জানা যায়, ১৯৮৬-১৯৮৭ সাল থেকে উপজেলার মুহুরী প্রকল্প এলাকার ইছাখালী ও বাঁশখালী মৌজায় সমুদ্র তীরে জেগে ওঠা চর বন্দোবস্তি দেয় সরকার। প্রথম ধাপে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ভূমিহীনদের মাঝে ১২শ একর। পরে ১৯৯৬-১৯৯৭ সালে দ্বিতীয় ধাপে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ৩শ একর, চিংড়ি চাষীদের মাঝে ১৩শ ৮৫ একর এবং সর্বশেষ ২০০৪-২০০৫ সালে ভূমিহীনদের মাঝে ২৫শ একর ভূমি বন্দোবস্ত দেয় সরকার। পরবর্তীতে ৫ হাজার ৩শ ৮৫ একর পরিমাণের এসব ভূমিতে সমন্বিত মাছ চাষ শুরু করে সরকারের বন্দোবস্ত গ্রহীতারা। যা বর্তমানে দেশের বৃহত্তম মিঠা পানির মৎস্য উৎপাদন ক্ষেত্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা পায়।

স্থানীয় মৎস্য চাষী আজমল হোসেন বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মিঠা পানির মাছ চাষে আমাদের উদ্বুদ্ধ করছেন। অথচ এখানে কোটি কোটি টাকার মাছের ঘের উচ্ছেদ করা হচ্ছে। আমাদের দাবি মুহুরী প্রজেক্ট মৎস্য ঘের এলাকাকে মৎস্য জোন ঘোষণা করে এটিকে রক্ষা করা হোক। কারণ, এখানে চট্টগ্রামের মৎস্য খাদ্য চাহিদার প্রায় ৭০ ভাগ মাছ উৎপাদন হয়।

মৎস্য চাষী নাঈমুর রহমান ভূঁইয়া জানান, আমি ১৫ একর জায়গায় ৫ বছর পূর্ব থেকে মাছ চাষ করে আসছি। বুধবার আমার ৫ লাখ টাকারমৎস্য প্রকল্পের পাড় কেটে দিলে প্রায় ৫ লক্ষাধিক টাকার মাছ পাশের খালে চলে গেছে। আমার মতো ছোট বড় অসংখ্য মৎস্য চাষী পথে বসার উপক্রম হয়েছে।

পশ্চিম ইছাখালী মৎস্য চাষী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সভাপতি নুরুল আবছার বলেন, সরকার বারবার বলছে কৃষি ও মৎস্য উৎপাদন বাড়াতে কোন পুকুর ডোবা যাতে খালি না থাকে। ১৯৮৬-৮৭ সাল থেকে এখানে মাছ চাষ করছি আমরা। আজকে এটি একটি মৎস্য জোনে রূপান্তর হয়েছে। আমরা মাছ চাষীরা এখান থেকে বছরে ৪৯ হাজার মেট্রিক টন মাছের যোগান দিই। আমরা বেজাকে অনুরোধ করবো যেন অন্যায়ভাবে কোন মৎস্য ঘের উচ্ছেদ না করে।

বেজার উপ-ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) ও সিনিয়র সহকারী সচিব মো. ইয়াছিন বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগর এলাকায় সরকারি জমিতে তারা অবৈধভাবে মাছের ঘের তৈরি করেছে। ঘের মালিকদের গত বছর ডিসেম্বর থেকে মাছ সরিয়ে নিতে সময় দেওয়া হয়েছিল। তারা বেজার নির্দেশের কর্ণপাত করেনি। মঙ্গলবার ও বুধবার আমরা বেজার আওতাধীন এলাকায় অবৈধভাবে গড়ে ওঠা মাছের ঘের অপসারণ করছি। তবে উচ্ছেদকৃত স্থানে সরকারের বন্দোবস্তকৃত ভূমি ও মাছের ঘের রয়েছে কিনা তা জানা নেই। অভিযান অব্যাহত থাকবে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড