• বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০  |   ১৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

নৌকার পক্ষে কাজ না করায় দলের ৩ নেতাকে পেটালেন নৌকা প্রার্থীর ভাগ্নে

  মনিরুজ্জামান মনির, নন্দীগ্রাম (বগুড়া) :

২৬ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৪:৫৪
নৌকা প্রার্থীর ভাগ্নে

বগুড়ার নন্দীগ্রামে নৌকা মার্কার প্রার্থী একেএম রেজাউল করিম তানসেনের পক্ষে কাজ না করায় আওয়ামী লীগের তিন নেতাকে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে জাসদ নেতা ও সংসদ সদস্য প্রার্থীর ভাগ্নের বিরুদ্ধে।

সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) দুপুরে উপজেলার নন্দীগ্রাম সদর ইউনিয়নের শিমলা বাজারে এই ঘটনা ঘটে।

মারধরের শিকাররা হলেন, নন্দীগ্রাম সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি রুবেল হোসেন, সহ-সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন ও যুগ্ম সম্পাদক রুহুল আমিন। তারা নন্দীগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সুত্রে জানাগেছে, বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে মহাজোটের হয়ে নৌকা মার্কা নিয়ে নির্বাচন করছেন জেলা জাসদের সভাপতি ও বর্তমান সংসদ সদস্য একেএম রেজাউল করিম তানসেন। একই আসনে বিএনপি থেকে অব্যাহতি পাওয়া ও চারবারের সাবেক সংসদ সদস্য জিয়াউল হক মোল্লা ঈগল মার্কা নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন। নিজ দলের প্রার্থী না থাকায় আওয়ামী লীগের ওই তিন নেতা এবার জিয়াউল হক মোল্লার পক্ষে ভোটের প্রচারণায় নেমেছেন।

সোমবার দুপুরে তারা জিয়াউল হক মোল্লার নির্বাচনী প্রচারণা শেষে শিমলা বাজারে রুহুল আমিনের দোকানে বসে গল্প গুজব করছিলেন। এই সময় জাসদ নেতা ও নৌকার প্রার্থী তানসেনের ভাগ্নে মিলনের নেতৃত্ব ১০ থেকে ১২ জন ব্যক্তি আওয়ামী লীগের ওই তিন নেতার ওপর হামলা চালায়।

ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি রুবেল হোসেন বলেন, তনাসেন নৌকা মার্কা নিয়ে দুইবার এমপি হয়ে আওয়ামী লীগের লোকজনদেরই বিপদে ফেলেছেন। এজন্য তাকে আমরা বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দলের প্রার্থী না থাকায় মোল্লার পক্ষে স্থানীয়ভাবে কাজ করছি। এইজন্য সংসদ সদস্যর ভাগ্নে সন্ত্রাসী নিয়ে আমাদের ওপর হামলা চালিয়েছে।

এ বিষয়ে নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন রানা বলেন, জাসদ নেতার ভাগ্নে আমাদের তিন নেতাকর্মীকে মারধর করেছে বলে শুনেছি। তবে কেন কি হয়েছে জানিনা। তিনজন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এই বিষয়ে দলীয়ভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বগুড়া জেলা জাসদের সভাপতি ও নৌকার প্রার্থী একেএম রেজাউল করিম তানসেন বলেন, আওয়ামী লীগের তিন নেতা দলের বিরুদ্ধে যেয়ে বিএনপি নেতার ভোট করছে। তারা প্রচারণা শেষে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে আপত্তিকর কথা বললে আমার ভাগ্নে নিষেধ করে। এই সময় উভয়পক্ষের মধ্যে বাকবিতণ্ডতা হয়েছে। মারপিটের অভিযোগ সত্য নয়।

নন্দীগ্রাম থানার ওসি আজমগীর হোসাইন বলেন, মারপিটের ঘটনা শুনে পুলিশ সেখানে গিয়েছিল। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। এ নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী জিয়াউল হক মোল্লা ইলেকশন কমিশনে অভিযোগ দিয়েছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড