• রোববার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

জাতীয় পার্টির সাথে আসন ভাগাভাগি

বগুড়া -৩ আসনে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা আবারও হতাশ!

  নেহাল আহম্মেদ প্রান্ত, আদমদীঘি (বগুড়া):

১৯ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৭:৪৩
আওয়ামী লীগে

বারবার চেয়েও কখনও নৌকার প্রার্থী পায়নি বগুড়া-৩ আসনের আওয়ামী লীগ সমর্থকরা। অনেক জল্পনা কল্পনার পর এবার আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীক দেওয়া হয়েছিল সিরাজুল ইসলাম খান রাজুকে। তিনি আদমদীঘি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার হাতে নৌকার বৈঠা রাখেন আওয়ামী লীগ। আর এতেই হতাশ হয়েছেন তার সমর্থকেরা।

জানা যায়, আদমদীঘি -দুপচাঁচিয়া দুটি উপজেলা নিয়ে সংসদীয় আসন ৩৮, বগুড়া-৩। এই আসনে দীর্ঘ দিন থেকে আওয়ামী লীগের কোনো এমপি নেই। বারবার চেয়েও বঞ্চিত হয়েছেন এলাকাবাসী। সর্বশেষ দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী চেয়েছিলেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ। এরই প্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড সিরাজুল ইসলাম খান রাজুকে দলের মনোনয়ন দেয়। আর এই জন্য তাকে আদমদীঘি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদটি ছেড়ে দিতে হয়েছে। রাজু খানকে নৌকার মনোনয়ন দেওয়ায় স্থানীয় নেতা- কর্মীদের মধ্যে আশার আলো দেখা দেয়। কিন্তু এবারও আসনটি জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। জোটগতভাবে নির্বাচনের জন্য গত রোববার আসনটি জাতীয় পার্টির অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম তালুকদারকে জোটের প্রার্থী করা হয়েছে। দলের সিদ্ধান্তে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিতে হয়েছে সিরাজুল ইসলাম খান রাজুকে। ফলে আবারও হাতছাড়া হয়ে গেল নৌকার এমপি প্রার্থী। আর এতে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০০১ সালে নির্বাচনে নৌকার দলীয় মনোনয়ন পেয়েও এই আসনে আওয়ামীলীগ নেতা আনসার আলীর মৃধার মনোনয়ন বাতিল করে প্রতীক বরাদ্দের এক দিন আগে বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে যোগদানকারী মেজর জেনারেল (অবঃ) গোলাম মওলাকে দলীয় মনোনয়ন দেয় আওয়ামী লীগ। ২০১৪ ও ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসন থেকে মহাজোটের প্রার্থী ছিলেন, আ্যড, নুরুল ইসলাম তালুকদার । এই আসনে জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক অবস্থা ভাল না থাকায় ২০১৮ সালের নির্বাচনে জোট প্রার্থী হওয়ার কারণে স্থানীয় আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টির প্রার্থী নুরুল ইসলামের পক্ষে কাজ করে তাকে জয়ী করেন। এবারের দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেতে সিরাজুল ইসলাম খান রাজু ছাড়াও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অজয় সরকার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য নাহিদ সুলতানা তৃপ্তি, অ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন, অ্যাডভোকেট তবিবর রহমান তবি, ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজসহ অনেকেই দলের কাছে আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড সিরাজুল ইসলাম খান রাজুকে নৌকা মাকার মনোনয়ন দেয়।

উল্লেখ্য, এই আসনে একাধিক স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচন করবেন। এদের মধ্যে খান সাইফুল্লাহ আল মেহেদী বাঁধন, অজয় সরকার। এছাড়া অন্যান্যদের মধ্যে জাসদের আব্দুল মালেক, তৃনমুল বিএনপি'র এ্যাড, আব্দুল মোত্তালেব, অফজাল হোসেন, ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ, আরফিন পারভিন, তাজ উদ্দীন মন্ডল, নজরুল ইসলাম প্রার্থী।

আদমদীঘি উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান চম্পা বলেন, আমাদের নেতৃ জননেত্রী শেখ হাসিনা যা ভালো মনে করেছেন, সেটাই করেছেন। তবে আমরা আশাবাদী ছিলাম এই আসনে নৌকা প্রতিক থাকলে আমরাই জয়ই হতাম।

আদমদীঘি উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য রোকনুজ্জামান রুকু বলেন, আমরা আওয়ামী লীগ করি। অথচ বারবার জাতীয় পার্টি প্রার্থীর পক্ষে কাজ করে তাঁকে জয়ী করতে হয়। এটা আমাদের একটা দূর্ভাগ্যের বিষয়। প্রয়োজনে আমরা দলীয় স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করে যাবো।

আদমদীঘি উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মাহমুদুর রহমান পিন্টু বলেন, আসনটি আবারও শরিক দলকে ছেড়ে দেওয়ায় আমরা হতাশ। বিএনপি'র শাসনামলে এখানকার আওয়ামী লীগ যে নির্যাতন সহ্য করেছে সারা দেশের আওয়ামী লীগকে সেই অত্যাচার সহ্য করতে হয়নি। অথচ বারবার আমাদের জনগনের কাছে অগ্রহণযোগ্য ব্যক্তির জন্য কাজ করে তাকে জয়ী করতে হয়।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড