• শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ছাত্রজীবনেই প্রান্ত এখন সফল উদ্যোক্তা

মাসিক আয় লক্ষাধিক টাকা

  মোস্তাকিম আল রাব্বি সাকিব, মনিরামপুর (যশোর)

২৫ জুন ২০২৩, ১৩:০৪
ছাত্রজীবনেই প্রান্ত এখন সফল উদ্যোক্তা
উদ্যোক্তা তাসনিমুল হাসান (প্রান্ত) (ছবি : অধিকার)

পরিশ্রম আর অধ্যবসায় যে কখনো বৃথা যায় না তা আরেকবার প্রমাণ করে দিয়েছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তাসনিমুল হাসান (প্রান্ত)। মাত্র ২৫ বছর বয়সেই সফলতাকে পুড়েছেন নিজের ঝুলিতে; বনে গিয়েছেন শত তরুণের আদর্শ।

কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ পেয়েছেন বিশ্বের অন্যতম প্রিমিয়ার কোম্পানি উইনিং মুভ ইভেন্টস এবং ইনটুফিউচারের ইন্টারন্যাশনাল লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড- ২০২৩।

যশোরের মনিরামপুর উপজেলার মোহনপুর গ্রামের আব্দুল আজিজ ও আফরোজা খাতুন দম্পতীর ছোট সন্তান প্রান্ত। মা-বাবার ইচ্ছে ছিল ছেলে বড় হয়ে একদিন সরকারি চাকুরিজীবী হবেন। কিন্তু প্রান্ত ছিলেন স্বাধীনচেতা; স্বপ্ন দেখতেন ভিন্ন কিছু করার। আর সেই প্রবল ইচ্ছাশক্তি থেকে আজ ছাত্রজীবনেই হয়েছেন একজন সফল আইটি উদ্যোক্তা।

বর্তমানে প্রান্ত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী হিসেবে লোকপ্রশাসন বিভাগে অধ্যয়নরত আছেন। পড়াশোনার পাশাপাশি কাজ করছেন একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে। যা থেকে তার প্রতিমাসে আয় হচ্ছে ৩০০০-৪০০০ ডলার; বাংলাদেশি টাকায় প্রায় তিন থেকে চার লক্ষ টাকা। ফলে তরুণ প্রান্ত কয়েক বছরেই বনে গিয়েছেন কোটিপতি।

যদিও তার যাত্রার শুরুটা এতোটা মসৃণ ছিল না। পদে পদে ছিল নানান প্রতিবন্ধকতা। কিন্তু তার প্রবল ইচ্ছাশক্তির কাছে কোনো প্রতিবন্ধকতাই টিকতে পারেনি শেষ পর্যন্ত। ২০১৮ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হোন প্রান্ত। ২০১৯ সাল থেকে নিজে কিছু করার চেষ্টায় বন্ধু শামীম রেজার হাত ধরে ফ্রিলান্সিং পেশায় আসেন তিনি। তারপর নিজের কঠোর পরিশ্রম আর অধ্যবসায়ের ফলাফল হিসেবে আজকের এই জায়গায় এসেছেন তিনি।

প্রান্ত এখন নিজের পাশাপাশি কাজ করছেন নিজ এলাকার ও বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ শিক্ষার্থীদের নিয়েও। ফ্রিল্যান্সিং শিখতে আগ্রহী তরুণ-তরুণীদেরকে দিচ্ছেন বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ। গড়ে তুলেছেন ‘প্রান্ত আইটি ইনিস্টিটিউট’ নামক একটি প্রতিষ্ঠান। যেখানে কর্মসংস্থান করেছেন ১৫ জনের অধিক বেকার তরুণের।

প্রতিষ্ঠানটি মূলত লিড জেনারেশন, ডাটা এন্ট্রি, অ্যামাজন ড্রপ সিপিং, ফেসবুক অ্যাডভার্টাইজিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের মতো একাধিক সার্ভিস প্রদান করে থাকে। যার থেকে প্রতিমাসে উপার্জিত আয়ের একটি নির্দিষ্ট অংশ সমাজের অসহায় ও ছিন্নমূল মানুষের জন্য ব্যয় করা হয়।

বর্তমানে তিনি প্রান্ত আইটি ইনস্টিটিউটের ফাউন্ডার এবং সিইও ছাড়াও দায়িত্ব পালন করছেন শেখ হাসিনা সফটওয়ার টেকনোলোজি পার্ক যশোরে এ. এন সল্যুশনের চিফ অপারেটিং অফিসার ও ডিজিটাল মার্কেটিং ট্রেইনার হিসাবে। এছাড়াও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার্স ইউনিটি'র সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কর্মরত এবং দৈনিক আজকালের খবর পত্রিকার বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি।

প্রান্ত জানান, মাত্র ১৮ ডলার উপার্জন দিয়ে শুরু করেছিলেন ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার। পাঁচ বছর পর এখন মাসে গড় আয় করেন তিন থেকে চার হাজার ডলার। ৪৭টি দেশের এক হাজারের অধিক বায়ারের সাথে এ যাবত কাজ করেছেন তিনি। সর্বোচ্চ উপার্জন ছিল ১০১৩৭ ডলার; যা ১০ লাখ টাকারও অধিক।

তিনি বলেন, প্রতিযোগিতাপূর্ণ বর্তমান বিশ্বে টিকে থাকার জন্য স্কিল ডেভেলপমেন্টের বিকল্প নেই। তবে নতুন কিছু শেখার জন্য সঠিক নির্দেশনা ও অধ্যবসায় অনস্বীকার্য। ভবিষ্যতে পুঁথিগত বিদ্যার কোনো মূল্যায়ন থাকবে না, শুধু থাকবে কর্মদক্ষতার। যার কর্মদক্ষতা যত বেশি তার চাহিদা তত বেশি থাকবে। তাই পুঁথিগত বিদ্যার পাশাপাশি বিভিন্ন কর্মদক্ষতা অর্জন করুন।

ভবিষ্যৎ লক্ষ্য সম্পর্কে জানতে চাইলে দৈনিক অধিকারকে বলেন, জীবনে স্বপ্ন পূরণ করাটা লক্ষ্য নয়, আমার জন্য লক্ষ্য পূরণ করাটা স্বপ্ন। প্রান্ত আইটি ইনস্টিটিউটে ১৫ জন বেকার যুবকের কর্মসংস্থান হয়েছে। আশা রাখছি ইনশাআল্লাহ, আগামী এক বছরে ১৫ জন থেকে ৫০ জনের অধিক বেকার তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান হবে আমার প্রতিষ্ঠানে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড