• বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১  |  
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কেসিসি নির্বাচনে আধুনিক নগর গড়ার প্রত্যয়ে মধুর ইশতেহার

  শেখ শান্ত ইসলাম, খুলনা

০৯ জুন ২০২৩, ১১:১৩
কেসিসি নির্বাচনে আধুনিক নগর গড়ার প্রত্যয়ে মধুর ইশতেহার

আসন্ন খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদপ্রার্থী শফিকুল ইসলাম মধু ইশতেহার ঘোষণা করেছেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার (৮ জুন) খুলনা প্রেসক্লাবের হুমায়ুন কবীর বালু মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ২২ দফা এই নির্বাচনি ইশতেহার ঘোষণায় তিনি বলেন, নগরবাসীর প্রতি বিশ্বাস জাতীয় পার্টির শাসন আমলে পল্লীবন্ধু হুসাইন মোহাম্মাদ এরশাদ, বঞ্চিত খুলনাবাসীকে উন্নত নাগরিক সেবা প্রদানের লক্ষ্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, পাবলিক হল, প্রেস ক্লাব, জাদুঘর, খুলনা মেট্রোপলিটন শহর স্থাপনসহ খুলনাকে আধুনিক নগর হিসেবে গড়ে তোলার জন্য পৌরসভাকে খুলনা সিটি কর্পোরেশন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন।

তিনি আরও বলেন, কেসিসিতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণ, জলাবদ্ধতা দূরীকরণে বিশেষ ব্যবস্থা উদ্যোগসহ ৪ পৃষ্ঠার ২২ দফার ইশতেহার ঘোষণা করেন। আগামী ১২ জুন খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদপ্রার্থী হিসেবে আমি প্রতিশ্রুতি ও অঙ্গীকার নিয়ে আমার নির্বাচনী ইশতেহার তুলে ধরছি। কেসিসিকে ঘিরে আমার নতুন চিন্তা-ভাবনা ও পরিকল্পনা আপনারা আন্তরিকভাবে গ্রহণ করবেন বলে প্রত্যাশা করি। মো. শফিকুল ইসলাম মধু ২২ দফা ইশতেহারের রয়েছে পরিচ্ছন্ন, সবুজ ও পরিবেশ বান্ধব খুলনা।

কেসিসি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত ও ১৪ দল সমর্থিত নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, খুলনাবাসীর প্রত্যাশা পূরণে শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে হলেও চেষ্টা করে যাব। বিগত দিনে মেয়র হিসেবে একাধিকবার পালন করেছি। অল্পসময়ে দায়িত্ব পালনকালে নগরবাসীর প্রত্যাশা পূরণে সাধ্যমত চেষ্টা করেছি।

তিনি আরও বলেন, খুলনা সিটিকে ঢেলে সাজাতে নানামুখী পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। আর এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়নে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

বৃহস্পতিবার নির্বাচনি গণসংযোগ, অভিভাবক সমাবেশ ও অ্যাডামস’র কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন। এদিন সকাল ১০টায় খুলনা মহানগরীর খালিশপুরস্থ বৈকালী বাজার এলাকায় লিফলেট বিতরণ ও ব্যাপক গণসংযোগ করেন। এরপর তিনি বেলা ১১টায় খুলনা আলিয়া মাদ্রাসায় অভিভাবক সমাবেশে যোগ দেন।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশে মনোনীত হাতপাখার মেয়র প্রার্থী হাফেজ মাওলানা আব্দুল আউয়াল বলেন, স্বাধীনতার ৫২ বছর চলছে। এ পর্যন্ত যেসব দল ক্ষমতায় ছিল, তারা দেশের মানুষকে শান্তি দিতে পারে নাই। সমাজের সর্বত্র অশান্তির খবর। গত ১৪ বছরে দেশ থেকে ১০ থেকে ১৪ লাখ কোটি টাকা পাচার হয়েছে। সিটির বরাদ্দকৃত হাজার হাজার কোটি টাকা চুরি হয়ে যায়। আগামী সিটি নির্বাচনে দুর্নীতি দুঃশাসন ও চোরদের বিরুদ্ধে ভোট বিপ্লব করতে হবে। তাই আগামী ১২ জুন দলমত নির্বিশেষে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে হাতপাখা প্রতিকে ভোট চান তিনি।

আব্দুল আউয়াল বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়ন বরাদ্দের ৯০ ভাগ টাকা লোপাট হচ্ছে। ইসলামী আন্দোলন ক্ষমতায় গেলে একই অর্থ দিয়ে ৯০ গুণ বেশি উন্নয়ন করতে পারবে। দেশে সমতা সৃষ্টি করা হবে। কেউ ১০ তলায়, কেউ নিচতলায় থাকবে এমন সমাজব্যবস্থা রাখা হবে না।

৮ জুন বৃহস্পতিবার সকালে সিটির জেলা আইনজীবী সমিতি, নিক্সন মার্কেট, মহসিন মোড়, রেলিগেট, মানিকতলা, সোনালী গেট, ফুলবাড়িগেট বাজার ও সেনপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ ও পথসভায় তিনি এ কথা বলেন।

অন্যদিকে মেয়রকে নগর পিতা' বলার অর্থ হলো, এই নগরের সর্বোচ্চ দায়িত্ববান ব্যক্তি মেয়র। এই শহরের সব সুখ- দুঃখ, আনন্দ-বেদনা, হাসি-কান্না ও সুযোগ-সুবিধার সমান অংশীদার হবেন মেয়র। কিন্তু আমরা নগরবাসীর দেখেছি বিগত দিনে যারা মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছেন তারা সিটির মানুষের মনের ভাষা বুঝতে ব্যর্থ হয়েছে। তাই সিটির জনগণ তাদের অধিকার ফিরে পেতে পরিবর্তন চায়।

আব্দুল আউয়াল আরও বলেন, বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত এই নগরকে বাঁচাতে আর সময়ক্ষেপণ করার অবকাশ নেই। কোনো ধরনের অপ-রাজনীতি করার সুযোগ নেই। দলান্ধতার কোনো ফুরসত নেই। সময় এসেছে দল-মত নির্বিশেষে সবাই মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে খুলনাকে বাঁচানোর উদ্যোগ নেয়ার; এখন সময় এসেছে খুলনাকে উদ্ধার করার; এখন সময় এসেছে খুলনাকে দুর্নীতিমুক্ত জনবান্ধব আধুনিক নগরী হিসেবে গড়ে তোলার। তাই আগামী ১২ জুন দলমত নির্বিশেষে শান্তির প্রতীক হাতপাখায় ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

গণসংযোগে উপস্থিত ছিলেন- ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগরের কেসিসি নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান পরিচালক মো. নাসির উদ্দিন, সহকারী পরিচালক মুফতি আমানুল্লাহ, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা জেলা সভাপতি মাওলানা আব্দুল্লাহ ইমরান সমন্বয়কারী মুফতি ইমরান হুসাইন, সহ-সমন্বয়কারী হাফেজ আসাদুল্লাহ গালীব, নির্বাচনি প্রধান এজেন্ট শেখ হাসান ওবায়দুল করিম, ইসলামী যুব আন্দোলন বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় উপ-সম্পাদক মুফতি আমিরুল ইসলাম অর্থ সমন্বয়কারী আবু গালিব, ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক সম্পাদক সুলতান মাহমুদ, কেন্দ্রীয় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় সম্পাদক মুহাম্মদ আল-আমীন, কেন্দ্রীয় প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় সম্পাদক মুহাম্মদ ফয়জুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় শুরা সদস্য এনামুল হাসান সাইদ, আব্দুল আজিজ নোমান, সহ-সম্বনয়কারী রবিউল ইসলাম তুষার, ফেরদৌস গাজী সুমন, গণসংযোগ সমন্বয়কারী মো. সাইফুল ইসলাম, সহ-গণসংযোগ সমন্বয়কারী মুহ. মঈন উদ্দিন, সহ মিডিয়া সমন্বয়ক আব্দুল্লাহ আল-মামুন, সহ মিডিয়া সমন্বয়ক এম এ সাদীসহ, মোস্তফা আল গালীব, হাবিবুল্লাহ মিসবাহসহ থানা ও ওয়ার্ড নেতৃবৃন্দ।

এছাড়া স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী শফিকুর রহমান মুশফিক এলাকায় গণসংযোগ কালে বলেন, মাদক মুক্ত নগরী গঠন ও হোল্ডিং ট্যাক্স বৃদ্ধি না করে নাগরিক সেবার মান বাড়াতে নানা প্রতিশ্রুতি দেন।

জাকের পার্টি :

জাকের পার্টির গোলাপ ফুল প্রতীকের প্রার্থী এস এম সাব্বির হোসেন সকল থেকে রাত পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেছেন। এ সময় তিনি খুলনা সিটিকে নতুনভাবে সাজানোর কথা বলে ভোট চার ভোটারদের কাছে। তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে খুলনা হবে বাংলাদেশের সেরা দৃষ্টিনন্দন ও উন্নত নগরী।

আগামী ১২ জুন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে কেসিসি নির্বাচন। নির্বাচনে পাঁচজন মেয়র প্রার্থী ছাড়াও ৩১টি সাধারণ ওয়ার্ডে ১৩৬ জন এবং নারীদের জন্য ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে আরও ৩৯ জন কাউন্সিলর প্রার্থী ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চাইছেন।

আগামী ১২ জুন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে কেসিসি নির্বাচন। নির্বাচনে পাঁচজন মেয়র প্রার্থী ছাড়াও ৩১টি সাধারণ ওয়ার্ডে ১৩৬ জন এবং নারীদের জন্য ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে আরও ৩৯ জন কাউন্সিলর প্রার্থী ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চাইছেন।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড