• রোববার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

আদালতের নির্দেশ অমান্য করে অন্যের জমি দখলের পাঁয়তারা

  রিয়াজুল ইসলাম, কুষ্টিয়া

২৪ মে ২০২৩, ১৬:১৫
আদালতের নির্দেশ অমান্য করে অন্যের জমি দখলের পাঁয়তারা

কুষ্টিয়ার মিলপাড়ায় আদালতের আদেশ অমান্য করে আজিজুর রহমান ও জিয়া নামে দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে অন্যের জমি দখলের চেষ্টা এবং প্রাণ নাশের হুমকির অভিযোগ উঠেছে। গতকাল মঙ্গলবার (২৩ মে) দুপুরে মিলপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় ভুক্তভোগী মহসীন আলী বাদী হয়ে আজিজুর রহমান, শাহিনা আক্তার ও জিয়াউল হকের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ ও জিডি দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কুষ্টিয়া সদর থানাধীন বাহাদুরখালী মৌজার এস, এ ৮৪নং খতিয়ানে ২০৪৪ নং দাগে .২৮৮৭ একর এবং উক্ত মৌজার আর,এস ১৭৬নং খতিয়ানে ও আর,এস ৩৫০৯ নং দাগের .২৬৬২ একর জমাজমি মোল্লা মোহা. আব্দুল মঈদ ও তার মাতা মোছা. মাছুদা খাতুনের নামে সম অংশে প্রচলিত থাকে।

পরবর্তীকালে ১১০ এন,এস রোড় থানাপাড়ার বাসিন্দা ভূমিদস্যু সেলিম ওরফে কাজী সেলিম আনোয়ার ওরফে কথিত এম,এম,এ ওয়াদুদ মোছা. মাছুদা খাতুনকে মাতা সাজিয়ে ছবি ও জাতীয় পরিচয় পত্র বিহীন গত ইং ২৬/০৮/২০১০ তারিখে সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিস কুষ্টিয়ায় ৬৯০৯ নং একটি জাল জালিয়াতি পাওয়ার অব এ্যার্টনি তৈরি করে গত ইং ২৭/০৪/২০০৪ তারিখে ৪০০৫ নং জাল জালিয়াতি দলিল মূলে ১৩৩১ একর সম্পত্তি অভিযুক্তদের নিকট বিক্রয় করেন। বাকি .১৩৩১ একর সম্পত্তি দখলের উদ্দেশ্যে মোল্লা মোহা. আব্দুল মঈদকে চাচাতো ভ্রাতা দাবি করে মোল্লা মোহা. আব্দুল মঈদের কাছ থেকে প্রকৃত খরিদা ক্রেতা মো. মোকাদ্দেস আলীর বিরুদ্ধে দেং ৭/২০২৩ নং মোকদ্দমা দায়ের করে।

যা বিজ্ঞ যুগ্ম দায়রা জেলা জজ ১ম আদালতে বিচারাধীন রহিয়াছে। অভিযোগকারীর ভাই মোকাদ্দেস আলী গত ইং ২৯/১০/২০২২ তারিখে ১০৬৫৩ নং খোষকবলা দলিল মূলে খরিদ করিয়া নিজ নাম খারিজসহ সরকারি সেরেস্তায় খাজনাদী পরিশোধ করে বাদী হয়ে ১-২ নং বিবাদীর বিরুদ্ধে বিজ্ঞ যুগ্ম দায়রা জেলা জজ ১ম আদালতে একটি ছাহাম বণ্টন মোকদ্দমা দায়ের করেন। যার নং দেং- ০২/২০২৩।

অভিযোগকারীর ভাই মো. মোকাদ্দেস আলী জমি খরিদার পর জানতে পারে উক্ত জমিতে আরও একটি মোকদ্দমা চলমান, যাহার নং দেং ৭২/২০১৮ বিজ্ঞ যুগ্ম দায়রা জেলা জজ ১ম আদালতে বিচারাধীন। অভিযোগকারীর ভাই মো. মোকাদ্দেস আলী ছাহাম বণ্টন মোকদ্দমা করার পর ১-২ নং বিবাদী উক্ত জমিতে প্রাচীর দিবে বলে অভিযোগকারী লোক মারফত শুনতে পেয়ে উক্ত জমিতে মো. মোকাদ্দেস আলী বাদী হয়ে বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালত কুষ্টিয়ায় ফৌজদারি কার্যবিধির ১৪৪,১৪৫ ধারার বিধান মতে সদর মিস-২৮৭/২৩ মোকদ্দমা দায়ের করলে বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে উক্ত তফসিলি জমিতে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য অফিসার ইনচার্জ সদর থানা কুষ্টিয়াকে আদেশ প্রদান করেন।

অফিসার ইনচার্জ কুষ্টিয়া মিলপাড়া ফাঁড়ি ইনচার্জ এস,আই এনামুক সাহেবকে ব্যবস্থা গ্রহণে জন্য দায়িত্ব প্রদান করেন। তারপরও গত ইং ২২/০৫/২০২৩ তারিখে ১-৩ নং বিবাদীদ্বয় তিনটি সাইনবোর্ড টাঙ্গায়ে দেন। এরপর কোনো এক সময়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিসহ অজ্ঞাতনামা আরও ২০-২৫ জন লোকজন নিয়ে প্রাচীরের কাজ শুরু করলে অভিযোগকারী লোক মারফত শুনতে পেয়ে সশরীরে সেখানে গিয়ে কাজ করতে নিষেধ করলে অভিযোগকারীকে বিভিন্নভাবে গালিগালাজ করে এটার একটি ভিডিও ক্লিপ অভিযোগকারীর কাছে আছে বলে জানা যায়।

অভিযোগকারী মহসীন আলী বলেন আদালতে মামলা চলমান থাকা স্বত্বেও তারা জোর করে জমি দখল করে নির্মাণ কাজ করার চেষ্টা করে। এরপর সে তাদেরকে নির্মাণ কাজ করতে নিষেধ করায় তাকে প্রাণ নাশের হুমকি দিয়েছেন আজিজুর ও জিয়াসহ আরও কয়েকজন। বিষয়টি জেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন তিনি।

এ সময় আজিজুর রহমান বলেন মহসীন যে জমিটি দাবি করেছেন আসলে সে জমির মালিক তিনি নন। তবে মহসীনকে প্রাণ নাশের হুমকির ঘটনা সম্পন্ন মিথ্যা বলে জানান।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত জিয়া সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ায় তার বক্তব্য লেখা সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, কুষ্টিয়া স্থানীয় জাতীয় প্রিন্ট মিডিয়াসহ একাধিক ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় খবর প্রকাশিত থাকায় উক্ত ভূমিদস্যু বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া প্রশাসনের আইনগত কোনো ব্যবস্থা না থাকায় জনমনে প্রশ্ন উঠেছে। এমতাবস্থায় কুষ্টিয়া প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা ভুক্তভোগী ও স্থানীয়রা।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড