• বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১  |   ৩৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সিটিসেলের পরিত্যক্ত টাওয়ার গিলে খাচ্ছেন প্রভাবশালীরা 

  মনিরুজ্জামান, নরসিংদী

১৮ মে ২০২৩, ১৪:৪২
সিটিসেলের পরিত্যক্ত টাওয়ার গিলে খাচ্ছেন প্রভাবশালীরা 
সিটিসেলের পরিত্যক্ত টাওয়ার (ছবি : অধিকার)

নরসিংদীর বেলাবোতে দেশের প্রথম মোবাইল ফোন কোম্পানি সিটিসেলের পরিত্যক্ত টাওয়ার থেকে কয়েক কোটি টাকা মূল্যের মালামাল হরিলুট করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে উপজেলা চেয়ারম্যান শমসের জামান ভূঁইয়া লিটন ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সারোয়ার হোসেন অপুর বিরুদ্ধে।

কোনো রকম টেন্ডার ছাড়াই নিজেদের পদ-পদবী এবং দলীয় প্রভাব খাটিয়ে টাওয়ারের বিভিন্ন মূল্যবান সরঞ্জাম ও বিটিএস রুমের মালপত্র খুলে নেয়ার পাশাপাশি মূল টাওয়ার ভেঙ্গে নেওয়ার অভিযোগ করেন এলাকাবাসী।

রমজান মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে ইদ পরবর্তী ২০/২৫ দিন ধরে উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের খামারের চর এলাকায় সিটিসেল কোম্পানির নিজস্ব সম্পত্তির উপর নির্মিত পরিত্যক্ত সিটিসেল টাওয়ারে এ হরিলুটের ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, দেশের প্রথম মোবাইল ফোন কোম্পানি সিটিসেল ২০১৪ সালে বন্ধ হয়ে গেলে সারাদেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা সিটিসেলের টাওয়ারগুলো পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকে।

এই সুযোগে দলীয় প্রভাবকে কাজে লাগিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নরসিংদীর বেলাবো উপজেলার খামারের চর এলাকার সিটিসেল টাওয়ারের কয়েক কোটি টাকার মালামাল হরিলুট করে নিয়ে যায়।

সিটিসেল টাওয়ারের মালপত্র খুলে নিচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল বুধবার (১৭ মে) নরসিংদী জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) শফিকুল ইসলাম রিপন ও সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনির'র নেতৃত্বে ক্লাবের একটি টিম বেলাবো উপজেলার খামারচর এলাকায় যায়।

সরেজমিন দেখা যায়- টাওয়ারের প্রধান ফটক সীলগালা করা থাকলেও ভিতরে বিটিএস রুমের দুটি দরজাই খোলা। বাহির থেকে যতটুকু দেখা যায় তাতে মনে হয়েছে রুমের ভিতরে তেমন কিছুই আর অবশিষ্ট নেই। রুমের ভেতরের সকল মালামাল হরিলুটের পর এখন চলছে মূল টাওয়ার ভাঙ্গার কাজ। ইতোমধ্যেই মূল টাওয়ারের উপরের অংশ ভেঙে মালামাল সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

কথা বলার জন্য টাওয়ার ভাঙার কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদের বাসায় গিয়ে কাউকেই পাওয়া যায়নি। সাংবাদিকদের উপস্থিতির বিষয়টি টের পেয়ে তারা রান্না করা গরম ভাত তরকারি রেখেই পালিয়ে যায়।

এ সময় স্থানীয়রা জানান, আনুমানিক ১৯/২০ রোজার দিকে বেলাবো উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শমসের জামান ভূঁইয়া লিটন, নারায়ণপুর ইউপি চেয়ারম্যান কাজল, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সারোয়ার হোসেন অপু গাড়ি নিয়ে টাওয়ারের সামনে এসে সিকিউরিটি সুপারভাইজার সিরাজুল ইসলামকে ডেকে পাঠায়।

উপজেলা চেয়ারম্যান লিটন সিরাজুল ইসলামকে পরিত্যক্ত সিটিসেল টাওয়ারটি নিলাম হয়েছে বলে জানায়। এতে বৃদ্ধ সিরাজুল ইসলাম নিলামের কাগজ দেখতে চাইলে উপজেলা চেয়ারম্যানের নিজের ও আরজু নামে অপর এক ব্যক্তির স্বাক্ষরযুক্ত একটি নিলামের কাগজ তাকে বের করে দেখান। নিলামের ওই কাগজে সিটিসেল কোম্পানির কারো স্বাক্ষর না থাকায় সন্ধিহান হয়ে সিরাজুল ইসলাম উপজেলা চেয়ারম্যানকে সিটিসেল কোম্পানির কারো স্বাক্ষর বা ইউএনও'র স্বাক্ষর করিয়ে আনতে বলেন বলে জানায় স্থানীয়রা।

তারা আরও জানায় ঠিক ওই সময়ে উপজেলা চেয়ারম্যান শমসের জামান ভূঁইয়া লিটন ও নারায়ণপুর ইউপি চেয়ারম্যান কাজলের উপস্থিতিতে ছাত্রলীগের সভাপতি সারোয়ার হোসেন অপু টাওয়ারের প্রধান ফটকসহ বিটিএস রুমের তালা জোরপূর্বক ভেঙে ফেলে এবং টাওয়ার ভাঙার কাজে নিযুক্ত কথিত ঠিকাদার আরজু মিয়ার সহযোগিতায় বিটিএস রুমের বিভিন্ন মূল্যবান যন্ত্রাংশ খুলে নেয়। এভাবে বেশ কয়েকদিন হরিলুট চলতে থাকে।

এলাকাবাসী ও টাওয়ারের সিকিউরিটি সিরাজুল ইসলামসহ তার তিন সহকর্মী তাদেরকে বাধা দিলেও তারা তা মানেননি। পরে সিকিউরিটি ইনচার্জ সিরাজুল ইসলাম থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করলেও থানা থেকে কোনো ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

এ দিকে টাওয়ার ভাঙার খবরটি পল্লীবিদ্যুৎ অফিস জানতে পেরে তারা তাদের বকেয়া অর্থ আদায়ের স্বার্থে এসে বাধা দেয়। এর পরেও টাওয়ার ভাঙার কাজ চালিয়ে যেতে থাকে প্রভাবশালী মহলটি।

পরবর্তীকালে পল্লীবিদ্যুৎ বেলাবো উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর আবেদন করলে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ নাজমুল হাসান এসে টাওয়ারের প্রধান ফটকে সীলগালা করে দিয়ে যায়। ততক্ষণে দাঁড়ানো টাওয়ারের লোহার পাতগুলো ছাড়া বাকী সব খুলে লুট করে সাবাড় করে ফেলে স্থানীয় ওই প্রভাবশালী মহল।

এ ব্যাপারে সিকিউরিটি সুপারভাইজার সিরাজুল ইসলাম বললে, আমি টাওয়ার ভাঙা ঠেকাতে চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছি। এ ব্যাপারে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছিলাম। কিন্তু প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। উল্টো উপজেলা চেয়ারম্যান আমাকে অভিযোগটি তুলে নেয়ার জন্য ডেকে নিয়ে শাসালে বাধ্য হয়ে আমাকে তা তুলে নিতে হয়েছে।

ঠিকাদার আরজু মিয়াকে ফোন করে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জানেনিতো এটার সাথে উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ উপজেলার অন্যান্য নেতারা জড়িত। তাদের নির্দেশেই এটা ভাঙ্গা হচ্ছে। এখন টাওয়ারটি সীলগালা হয়ে গেছে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে পুনরায় ভাঙার কাজ শুরু হবে।

টাওয়ার ভাঙার হোতা উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সারোয়ার হোসেন অপু বলেন, এ ঘটনার সাথে আমি জড়িত নই। যারা আমার কথা বলেছেন তারা মিথ্যাচার করেছেন। 'আসলে এই টাওয়ার ভাঙ্গার পিছনে ইন্ধন জুগিয়েছে ওই বৃদ্ধ সিকিউরিটি গার্ড সিরাজ। তিনি ব্যক্তিগত সুবিধা আদায়ের জন্য যারা টাওয়ারটা ভেঙেছে তাদেরকে সুযোগ করে দিয়েছেন।

নারায়ণপুর ইউপি চেয়ারম্যান কাজল বলেন, টাওয়ার ভাঙার বিষয়টি আমি জানতাম না। উপজেলা চেয়ারম্যান লিটন ভাই টাওয়ার এলাকায় এসে আমাকে ফোন করলে আমি সেখানে আসি। তবে তিনি নিলামের যে কাগজ দেখিয়েছেন তা আমার কাছে সঠিক মনে না হওয়ায় আমি নিলামের সঠিক কাগজ এনে টাওয়ার ভাঙতে বলি তাদের। পরবর্তীকালে তারা কোনো ধরনের কাগজ পত্র না দেখিয়েই টাওয়ার ভাঙ্গার কাজ চালিয়ে যায় তাই আমি আর এ বিষয়ে কোনো খোঁজখবর নেইনি।

আবদুল্লাহ নামে সিটিসেল কোম্পানির একজন কর্মকর্তা বলেন, এভাবে অন্যের জিনিস ভেঙে নিয়ে যাওয়াটা অন্যায়। টাওয়ার নিলামের নামে তারা যে কাগজ দেখিয়েছে তা সম্পূর্ণ বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। সিটিসেল কোম্পানি টাওয়ার ভাঙা সংক্রান্ত কোনো নিলাম দেওয়াতো দূরের কথা নিলাম আহ্বানই করেনি।

ভুয়া কাগজ সৃজন করে জালিয়াতি করেছে টাওয়ার ভাঙার সাথে জড়িতরা। আসলে আমাদের টেন্ডারের পদ্ধতিটাই আলাদা। আর যদি নিলাম হয়েই থাকে তাহলে তাতে আমাদের কোম্পানির স্বাক্ষর ও সিল থাকবে না? এটা কি করে হয়। আপনারা সেটা দেখেছেন কি-না জানি না সেখানে শুধু উপজেলা চেয়ারম্যান আর ঠিকাদার আরজুর স্বাক্ষর আছে। এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে ও জানান তিনি।

টাওয়ার ভাঙার মূল হোতা বেলাবো উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শমসের জামান ভূঁইয়া লিটনের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমি ঘটনার প্রথম দিন রমজান মাসে সেখানে গিয়েছিলাম এরপর আর এই বিষয়ে কোনো কিছুই জানি না। এলাকার মানুষ আইস্যা ধরছে তাই সেদিন গেছিলাম। তবে শুনছি সেটা নাকি সীলগালা হয়ে গেছে। নিলামের কাগজে তার স্বাক্ষরের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আয়েশা জান্নাত তাহেরা বলেন, এ ব্যাপারে সিটিসেল কোম্পানির কোনো অথরিটি আমার কাছে কোনো অভিযোগ করেনি বা তাদের কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।বকেয়া বিলের জন্য পল্লীবিদ্যুৎ থেকে আবেদন করা হলে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে টাওয়ারের প্রধান ফটকে তালা মেরে দেওয়া হয়। তবে এই ভাঙচুর বা লুটপাটের ঘটনায় কারা জড়িত তাদের সম্পর্কে কিছুই জানা নেই।

বেলাবো থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তানভীর আহমেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, থানায় অভিযোগের পর কাজ বন্ধ ছিল। পরে কার্যাদেশ পাওয়ার পর অভিযোগ তুলে নিয়েছে। অভিযোগকারী এমনটাই জানিয়েছিল।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড