• বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১  |   ৩৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রভাবশালীদের অত্যাচারে ঘরছাড়া মমতাজ বেগম

  এম কামাল উদ্দিন, সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার (রাঙামাটি)

১১ মে ২০২৩, ১৫:২৮
প্রভাবশালীদের অত্যাচারে ঘরছাড়া মমতাজ বেগম

রাঙামাটি জেলার লংগদু উপজেলাধীন ৪নং বগাচর ইউনিয়নের ১১নং পেটান্যামাছড়া ও ২৩নং বগাচতর মৌজার জমির মালিক মমতাজ বেগম স্থানীয় প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতাদের অত্যাচারে ঘরবাড়ি ছাড়া হয়েছেন। মমতাজ বেগম লংগদু উপজেলার কোথায়ও বিচার না পেয়ে শেষ পর্যন্ত আদালতের আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়। প্রভাবশালীদের নির্যাতন, অন্যায় ও অত্যাচারে দিশেহারা এই নিরীহ অসহায় নারী।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, লংগদু উপজেলাধীন বগাচতর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. কাসেম ও সাধারণ সম্পাদক মো. দুলালের যোগসাজশে কসাই জহির, রাজু, জাহিদ, মন্নান ও ইদ্রিস সর্ব সাং ঠেকা পাড়া ও মহাজন পাড়ার বাসিন্দা মমতাজ বেগমের ভোগদখলীয় জমি জোর পূর্বক দখল করে স্থাপনা নির্মাণ করে।

বিষয়টির প্রতিবাদ করতে গেলে মারধরের শিকার হন মমতাজ বেগম। মমতাজ বেগম নিজেও একজন আওয়ামী লীগ পরিবারের লোক বলে দাবি করে। তারপরও ক্ষমতাবান ও প্রভাবশালীদের কাছে জিম্মি মমতাজ বেগম! মমতাজ বেগমের জমির উপর কুনজর পড়েছে আওয়ামী লীগ নেতাদের।

মমতাজ বেগম বলেন, উপরে বর্ণিত ভোগ দখলীয় জমি আমি দীর্ঘ দিন যাবৎ জংগল ও গাছ পালা পরিষ্কার করে আবাদ করে আসছি। এলাকার প্রভাবশালী ক্ষমতা ধররা ক্ষমতার বলে জোর পূর্বক আমার তৈরি করা ঘর পানিতে ফেলে দিয়ে তাদের মত করে ঘর নির্মাণ করেছে। আমি প্রতিবাদ করতে গেলে আমাকে মারধর করে ও জীবন নাশের হুমকি দেন।

তিনি আরও বলনে, ইতিমধ্যে জমি দখল সংক্রান্ত ব্যাপারে বেশ কয়েক বার উক্ত জমি দখলদাররা আমাকে নির্যাতন ও শারীরিকভাবে মারধর করেছে। স্থানীয়ভাবে কোনো বিচার আমি পাইনি। এসব দখলবাজরা কেউকে মানে না। লংগদু থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েও কোনো সুরাহ হয়নি। বর্তমানে আমি জমির কাগজপত্রাদি নিয়ে পথে পথে ঘুরছি। আমি একজন আওয়ামী লীগ সমর্থিত মহিলা। কাসেমগং আমার রেকর্ডীয় জমি বিক্রি করে দেন।

লংগদু থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি ইকবাল জানান, মমতাজের জমি সংক্রান্ত ব্যাপারে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়েছিল। কিন্তু তার জায়গায় অন্য কেউ ঘর বেধেছে তা ও সত্য। এখন বিষয় হলো জমি জামার বিষয় তো থানা তেমন কিছুই করতে পারে না। এসব আদালতের ব্যাপার।

লংগদু উপজেলাধীন বগাচতর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কাসেম ও সাধারণ সম্পাদক মো. দুলাল বলেন, এসব ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বাবুল দাশ বাবুসহ আমরা স্থানীয়ভাবে বেশ কয়েকবার বসেছিলাম। কিন্তু মমতাজ বেগম শালিস মানতে নারাজ। মমতাজ বেগম এক সময় এক কথা বলে। মমতাজ বেগমের জমি জামা সংক্রান্ত ব্যাপারে আমাদের কোনো সংশ্লিষ্টতা নাই।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড