• বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১  |   ৩৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

নিষেধাজ্ঞা শেষে ইলিশ শিকারে নদীতে নামতে প্রস্তুত ভোলার জেলেরা

  খলিল উদ্দিন ফরিদ, ভোলা

৩০ এপ্রিল ২০২৩, ১৬:৩০
মাছ শিকারে

ভোলার মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে দীর্ঘ দুই মাস ইলিশসহ সব ধরনের মাছ শিকারের নিষেধাজ্ঞা শেষে হচ্ছে আজ । আর নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আবারও নদীতে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছেন ভোলার জেলেরা। জাল, নৌকা ও ট্রলার মেরামতে ব্যস্ত সময় পার করে এখন তারা প্রস্তুত ইলিশ শিকারের জন্য। কাঙ্ক্ষিত মাছ শিকারে ধার-দেনা পরিশোধ করে ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন তাদের দুচোখ জুড়ে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কেউ সারছেন জাল, আবার কেউ নৌকা। কেউ বা ট্রলার মেরামতে ব্যস্ত। আজ রাত ১২ টার পরেই নদীতে নামবেন জেলেরা। বসে থাকার যেন ফুসরৎ নেই তাদের। দীর্ঘ দুই মাস অভিযান চলাকালীন পরিবার নিয়ে খুব কষ্টে দিনাতিপাত করতে হয় তাদের। নৌকা, জালসহ অন্যান্য কাজ সেরে নিয়েছেন তারা। এবার বড় ইলিশ পেলে ধারদেনা পুষিয়ে নিতে পারবেন।

ভোলার বিভিন্ন উপজেলা ঘুরে কথা হয় সালাউদ্দিন মাঝি ও তৈয়ব মাঝির সাথে, তারা জানান, দীর্ঘ দুমাস নদীতে অভিযান ছিল। তাই নদীতে যেতে পারেননি। আজ ৩০ এপ্রিল রাত ১২টার পর নদীতে নামবেন। এর জন্য মাছ ধরার সব সরঞ্জাম প্রস্তুত করছেন তারা।

ভোলা সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের জেলে আমির মাঝি ও ধনিয়া ইউনিয়নের তুলাতুলি মাছ ঘাটের টিপু মাঝি জানান, দুমাস মাছ ধরতে পারিনি। এ সময় আমাদের আয়ও বন্ধ ছিল। এতদিন মুদি দোকানের বাকি ও স্থানীয়দের কাছ থেকে ধার-দেনা করে সংসার চালিয়েছি। রোববার রাত ১২ টার পর নদীতে গিয়ে আশা করছি ইলিশসহ সব ধরণের বড় বড় মাছ পাবো। মাছ বিক্রি করে ধার-দেনা পরিশোধ করবো এবং আবারও ঘুরে দাঁড়ানোর আশা আছে।

লালমোহন উপজেলার ধলিগৌর নগর ইউনিয়নের বাত্তিরখাল মৎস্য ঘাটের ব্যবসায়ী মো. ওহিদুল ইসলাম বলেন, দুই মাসের নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে আজ রাত ১২ টার সময়। তাই আমরা আগে ভাগেই মাছের আড়ত খুলে পরিষ্কার করে রাখছি। এ দুমাস আমাদের ব্যবসা বন্ধ থাকায় অনেক লোকসান হয়েছে। আমরা আশা করছি জেলেরা নিষেধাজ্ঞার পরে নদীতে গিয়ে বেশি মাছ শিকার করবে। এতে আমাদের ব্যবসাও জমজমাট হবে। আর বিগত দুমাসের লোকসান পুষিয়ে উঠতে পারবো।

ভোলা সদর উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. জামাল হোসাইন বলেন, নিষেধাজ্ঞা শেষে জেলেরা উৎসাহ নিয়ে ভোলার মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে নামবে। নিয়ম মেনে জেলেরা তাদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশসহ বিভিন্ন ধরনের মাছ শিকার করতে পারবে। এতে তাদের দুমাসের লোকসান পুষিয়ে উঠবে।

ইলিশের অভয়াশ্রম হওয়ায় ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ভোলার ইলিশা থেকে চর পিয়াল ৯০ কিলোমিটার মেঘনা নদী ও ভেদুরিয়া থেকে চর রুস্তম ১০০ কিলোমিটার তেঁতুলিয়া নদীতে সব ধরনের মাছ আহরণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে ছিলো মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। এ সময় ভোলার সাত উপজেলার সরকারিভাবে নিবন্ধিত প্রায় ১ লাখ ৫৯ হাজার জেলের মধ্যে সরকারিভাবে বরাদ্দকৃত চাল পান ৮৯ হাজার ৪১০ জন।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড