• শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০  |   ২২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রেমিকার মান ভাঙাতে কলেজ গেটে প্রেমিকের ‘সরি’ লেখা ফেস্টুন!

  সাজ্জাদুল আলম শাওন, দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর)

১৬ মার্চ ২০২৩, ১৩:০০
প্রেমিকার মান ভাঙাতে কলেজ গেটে প্রেমিকের ‘সরি’ লেখা ফেস্টুন!

ভালোবাসার কত নিদর্শনই প্রকাশিত হয়েছে। যুগে যুগে প্রেমিকরা তার ভালোবাসার প্রমাণ দিতে প্রেমিকার কাছে হাজারো স্মৃতি ও ইতিহাস করে গিয়েছেন। প্রেমিকার সামান্য রাগ অভিমান ভাঙানোর জন্য প্রেমিকরা কত কিছুই না করে থাকেন। মান-অভিমানের মধ্য দিয়েই গড়ে ওঠে একটি প্রেমের সম্পর্ক। এক সাথে চলার পথে হাজারো মান-অভিমান চলতে থাকে। কিছু নিঃস্বার্থ প্রেমিক তার প্রেমিকার মান ভাঙ্গানোর জন্য অভিনব কিছু পন্থা অবলম্বন করে থাকেন।

এবার জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলায় এক প্রেমিক তার অভিমানী প্রেমিকার অভিমান ভাঙাতে ভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করে সবার নজরে এসেছেন এক প্রেমিক।

গতকাল বুধবার মেলান্দহ জাহানারা লতিফ মহিলা কলেজ গেটের সামনে ফেস্টুন ও রাস্তায় দুঃখ প্রকাশের প্রতীকী চিত্র অংকনের মাধ্যমে দুঃখ প্রকাশ করে প্রেমিকাকে তার জীবনে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। দুপুরে এ ঘটনার কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়।

কলেজ গেটের সামনে ওই ফেস্টুন ও রাস্তায় দুঃখ প্রকাশের প্রতীকী চিত্রাঙ্কন করা হয়েছে। সাদা রঙে ক্ষমা চেয়ে, দুঃখ প্রকাশ করে প্রেমিক তার জীবনে আবার প্রেমিকাকে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। তবে প্রেমিকের এই ব্যতিক্রম উদ্যোগের মধ্য দিয়ে অভিমানী প্রেমিকার অভিমান ভেঙেছে কি-না, সেটা জানা যায়নি।

এদিন বিকালে জাহানারা লতিফ মহিলা কলেজে গিয়ে দেখা যায়, কলেজের সাইনবোর্ডের উপরে গাছের সঙ্গে টানানো হয়েছে ফেস্টুন। এতে লেখা হয়েছে "SORRY SORRY (সরি সরি)" পাশেই রাস্তায় দুঃখ প্রকাশের প্রতীকী চিহ্ন অংকন করেও লেখা হয়েছে "Sorry (সরি)"। এ কলেজের পাশেই মেলান্দহ কারিগরি মহিলা কলেজ তার সাইনবোর্ডের পাশে বড় একটি গাছেও টাঙানো হয়েছে দুইটি ফেস্টুন।

এতে লেখা হয়েছে, "Please Come Back to my life, I Love You (প্লিজ কাম ব্যাক টু মাই লাইফ, আই লাভ ইউ)"। অপরটিতে লেখা হয়েছে I Miss You Everyday, I miss you Every Time (আই মিস ইউ ইভরিডে, আই মিস ইস ইভরি টাইম)"। এমন ব্যতিক্রমী কাণ্ডে অবাক সাধারণ শিক্ষার্থী ও স্থানীয় জনসাধারণ।

কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, এ ধরনের ঘটনা আগে কখনো তারা দেখেননি। তাদের ধারণা, প্রেমিকা হয়তো ওই কলেজেই পড়েন। সেই জন্য ওই কলেজের গেটের সামনে ফেস্টুন টাঙিয়েছেন প্রেমিক, যাতে প্রেমিকার নজরে পড়ে আর তাদের অভিমানের পালার অবসান ঘটে।

ওই কলেজের অধ্যক্ষ মো. খায়রুল ইসলাম বলেন, ফেস্টুনে লেখা দেখে বোঝা যাচ্ছে, হয়তো দুজনের মধ্যে অভিমান চলছে। অভিমান ভাঙাতেই হয়তো এই পদ্ধতি অবলম্বন করা হয়েছে। তবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে এর প্রভাব পড়তে পারে। তাই সব ফেস্টুন খুলে ফেলা হয়েছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড