• সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১  |   ৩৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ক্ষমতার বলে পৈত্রিক সম্পত্তি একাই হাতিয়ে নিলেন অ্যাডভোকেট (পর্ব-১)

  জে রাসেল, ফরিদপুর

১৪ মার্চ ২০২৩, ১২:৪৬
ক্ষমতার বলে পৈত্রিক সম্পত্তি একাই হাতিয়ে নিলেন অ্যাডভোকেট (পর্ব-১)
পৈত্রিক সম্পত্তি হাতিয়ে নেওয়ায় অভিযুক্ত ছেলে অ্যাডভোকেট আবুল সানিয়াত (রাসেল) (ছবি : অধিকার)

ফরিদপুর জজ কোর্টের আবুল সানিয়াত (রাসেল) নামে এক অ্যাডভোকেটের বিরুদ্ধে প্রতারণার মাধ্যমে পৈত্রিক সম্পত্তি দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি শহরের চর কমলাপুর এলাকার বাসিন্দা। তার বিরুদ্ধে প্রতারণার মাধ্যমে সোলেনামা পরিবর্তন করার অভিযোগ করেছেন চাচাতো ভাই কানাডিয়ান প্রবাসী আবুল কাশেম।

জানা যায়, ফরিদপুর শহরের ১১৬নং কমলাপুর মৌজার এস.এ. ১৩৭৩ নং খতিয়ানে লিখিত ১৭৪ নং দাগের ৫৫ শতাংশ জমি (যার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ১০ কোটি টাকা) নিয়ে এই দুই চাচাতো ভাইয়ের দ্বন্ধ রয়েছে। বর্তমানে অ্যাডভোকেট আবুল সানিয়াত (রাসেল) জোরপূর্বকভাবে দখল করে বাউন্ডারি ওয়াল আংশিক নির্মাণ করছেন। নির্মাণাধীন সময় অন্যপক্ষ বাঁধা দিলে ফরিদপুর পৌর মেয়রের সিদ্ধান্ত মোতাবেক নির্মাণকাজ বন্ধ রাখা হয়।

অনুসন্ধানে জানা যায়, এই দুই ভাইয়ের দাদা আছির উদ্দিন মুন্সি পাঁচ ছেলে রেখে মারা যান। এর মধ্যে মৃত মৌলবি আব্দুল হামিদের সন্তান আবুল কাশেম গং এবং মৃত আব্দুল রশিদের সন্তান অ্যাডভোকেট আবুল সানিয়াত (রাসেল) গং। এদের দাদা আছির উদ্দিন ফরিদপুর সদরে ও নগরকান্দা উপজেলার এলাকায় অঢেল সম্পত্তি রেখে যান।

এদের মধ্যে আছির উদ্দিন মুন্সির তিন ছেলের ওয়ারিশরা নগরকান্দা উপজেলার বিলনালিয়া, কানাইর প্রভৃতি মৌজার জমি পারিবারিক মৌখিক আপষবন্টণের মাধ্যমে ভোগ দখল করে আসেন এবং অন্য দুই ছেলে মৌলবি আব্দুল হামিদ ও আব্দুল রশিদ এর ওয়ারিশগণ ফরিদপুর সদর উপজেলার কমলাপুর, চর টেপুরাকান্দি, চরমাধবদিয়ার মৌজার জমি প্রতি দাগে দাগে অর্ধাংশ করে ভোগ দখল করে আসেন।

পরবর্তীকালে বিএস রেকর্ড আসলে নগরকান্দা এবং ফরিদপুর সদরের সকল মৌজার জমির কিছু কিছু অংশ আছির উদ্দিন এর ৫ ছেলে ও বাকিটুকু ছেলেদের ওয়ারিশগণের নামে রেকর্ড হয়।

এরপর জমিগুলো ভোগ দখল, ভূমি উন্নয়ন কর প্রদান ও বেঁচা-বিক্রির সুবিধার্থে ২০১১ সালে সোলেনামা করে সম্পত্তি বণ্টন করে নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। যারমধ্যে অন্যান্য জমিসহ চর কমলাপুর এলাকার ৫৫ শতাংশ জমির মধ্যে ২৭.৫ শতাংশ আবুল কাশেম গং (যার পৌর হোল্ডিং নং- ২০) এবং বাকি ২৭.৫ শতাংশ আবুল সানিয়াত (রাসেল) গং (যার পৌর হোল্ডিং নং- ২১) এর মধ্যে সোলেনামায় সিদ্ধান্ত হয়। এই সোলেনামার কার্যক্রম যথাযথভাবে সম্পন্ন করার জন্য তাদের চাচাতো ভাই অ্যাডভোকেট আবুল সানিয়াত (রাসেল) কে দায়িত্ব দেয়া হয়।

এই সুযোগে সিরাজুল হক গংদের বাদী সাজিয়ে ১৬৫/২০১১ মোকাদ্দমা দায়ের করে, যার উকিল হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন এই অ্যাডভোকেট আবুল সানিয়াত রাসেলের সিনিয়র মরহুম অ্যাড. মহসিন মিয়া এবং বিবাদী পক্ষের উকিল ছিলেন অ্যাডভোকেট আবুল সানিয়াত (রাসেল)।

তৎকালীন সময়ে এই দুজন একই চেম্বারে কর্মরত ছিলেন। এই সময় অ্যাডভোকেট আবুল সানিয়াত (রাসেল) সোলেনামার প্রথম পাতা এবং শেষের পাতায় পক্ষগণের স্বাক্ষর করেন কিন্তু মাঝের কোনো পৃষ্ঠায় পক্ষগণের কোনো স্বাক্ষর নেয়া হয়নি। এই সুযোগে এই দুজন অ্যাডভোকেটের যোগসাজশে সোলেনামার দুটি পাতা পরিবর্তন করে উল্লেখিত বাড়ির সমস্ত সম্পত্তি অ্যাডভোকেট আবুল সানিয়াত রাসেল জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে নিজেদের নামে ডিক্রি করে নেন।

এছাড়া আবুল কাশেমের ভাগ্নি শাহিনা চৌধুরী এবং মমতা চৌধুরী বৈধ ওয়ারিশ হওয়া স্বত্বেও সোলেনামা থেকে তাদের বাদ দেয়া হয়েছে। পরবর্তীতে শাহিনা চৌধুরী এবং মমতা চৌধুরী ফরিদপুর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে দেওয়ানী মোকাদ্দমা করেন, যার নং- ৩৫৯/২০১১।

জানা যায়, এই সোলেনামা করার জন্য বাদী পক্ষ হিসেবে কোর্টে সাক্ষী দেন তাদের চাচাতো ভাই সিরাজুল হক। তবে অনুসন্ধানকালে যোগাযোগ করা হয় এই সিরাজুল হকের সাথে। তিনি বর্তমান নগরকান্দা উপজেলার বিলনালিয়া গ্রামে বসবাস করে আসছেন। এই প্রতিবেদকের সাথে কথা হলে তিনি স্বীকার করেন চরকমলাপুরের ঐ বাড়িটির সম্পূর্ণ অংশ (৫৫ শতাংশ) অ্যাডভোকেট আবুল সানিয়াত রাসেল গংদের দেয়ার কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

কানাডিয়ান প্রবাসী আবুল কাশেম মুঠোফোনে অভিযোগ করে বলেন, চরকমলাপুরের ৫৫ শতাংশ জমি আমাদের এবং রাসেলদের মধ্যে সমহারে সোলেনামা করে বণ্টন করা হয়। এই সোলেনামায় চতুরতা করে প্রথম পাতায় এবং শেষের পাতায় আমাদের স্বাক্ষর নিয়ে নেয় কিন্তু এর প্রতিটি পাতায় স্বাক্ষরের নিয়ম রয়েছে। পরবর্তী সময়ে মাঝখানের দুটি পৃষ্ঠা পরিবর্তন করে ওদের নামে করে নিয়েছে।

এ সময় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ওদেরতো মৃত্যুর ভয় নেই। এই দুনিয়া কয়দিনের। জানিনা, ওরা আল্লাহর কাছে কি জবাব দিবে। এরা কঠিন অন্যায় করেছে, যা আমাদের কল্পনার বাইরে ছিল।

এ বিষয়ে ২১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোবারক খলিফা বলেন, ঐ জমিতে বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে এবং এ বিষয়ে ফরিদপুর পৌর মেয়র নোটিশের মাধ্যমে ও মৌখিকভাবে কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

এছাড়া ১১ মার্চ ২০২৩ শনিবার দুই পক্ষকে নিয়ে শালিসে বসেন ফরিদপুর পৌর মেয়র অমিতাভ বোস কিন্তু সেখানে সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানা যায়। এসব বিষয়ে মঙ্গলবার (৭ মার্চ ২০২৩ইং) বিকেলে কথা হয় আবুল সানিয়াত (রাসেল) এর সাথে তার চরকমলাপুরস্থ নিজস্ব চেম্বারে। এ সময় তিনি নিউজ প্রকাশ সংক্রান্ত বক্তব্য দিতে অপরাগতা প্রকাশ করেন।

আলাপচারিতায় তিনি বলেন- এগুলো নিয়ে নিউজ লেখার কোনো প্রয়োজন নেই। আমার চাচাতো ভাই বর্তমানে কানাডায় রয়েছে। সে যদি কানাডা থেকে এসে জমি দাবি করে, আমি আদালতে গিয়ে সমাধান করে দিবো। তবে, তিনি সোলেনামা পরিবর্তন করা হয়নি বলে দাবি করেন।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড