• রোববার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০  |   ২৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ছাত্রলীগ নেতা রানার উৎপাতে অতিষ্ঠ তাড়াশবাসী

  সোহেল রানা, সিরাজগঞ্জ

০৭ মার্চ ২০২৩, ১৩:০৯
ছাত্রলীগ নেতা রানার উৎপাতে অতিষ্ঠ তাড়াশবাসী
অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা রানা মণ্ডল (ফাইল ছবি)

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলায় ছাত্রলীগ নেতা রানা মণ্ডলের বিরুদ্ধে মারধর ও চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপকর্মের অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রানা মণ্ডল সগুনা ইউনিয়নের ইশ্বরপুর গ্রামের আইয়ুব মণ্ডলের ছেলে। তিনি বর্তমানে এক সন্তানের জনক।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, রানা মণ্ডল এতটা বেপরোয়া যে এলাকায় কাউকে তোয়াক্কা করেন না। তার বিরুদ্ধে রয়েছে ব্যবসায়ীদের মারধর, হামলা, নির্যাতন ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভাঙচুরসহ অসংখ্য অভিযোগ। তার বিরুদ্ধে তাড়াশ থানায় চাঁদাবাজি, প্রাণনাশের জিডিসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করে বলেন, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাঁদাবাজিসহ একাধিক অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছে ছাত্রলীগের নেতা রানা মণ্ডল। এখন সে চাঁদাবাজির পরিধি বাড়াতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেও চাঁদার দাবি করছে। তাদের চাহিদা মতো চাঁদা না দিলে তাকে ফিল্মি স্টাইলে তুলে নিয়ে মারধর করে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য সুজন সরদার জানান, রানা মণ্ডল সাত বছর আগে বিয়ে করে সংসার জীবন কাটাচ্ছেন। তাদের ঘরে একটি সন্তান রয়েছে। কিন্তু কি করে বর্তমান তাড়াশ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে সাংগঠনিক সম্পাদক পদ বাগিয়ে নিলেন? আর পদ পাওয়ার পরপরই তিনি বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। এমনকি গত রবিবার (৫ মার্চ) ধামাইচহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠান চলাকালে বিদ্যালয়ে মঞ্চে বসা নিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রানা মণ্ডলের নেতৃত্বে ১০/১৫ জন সন্ত্রাসী দল হামলা চালিয়ে ৫০টির মতো চেয়ার ভাঙচুর করে অনুষ্ঠান বন্ধ করে দেয়।

ধামাইচ বাজারের ব্যবসায়ী এনামুল হক বলেন, বিভিন্ন সময় ছাত্রলীগ নেতা রানা মণ্ডল আমার কাছে চাঁদা দাবী করে আসছিল। তাকে চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে গত জানুয়ারি মাসে ধামাইচ বাজারে আমার দোকান বন্ধ করে বাড়ি ফেরার পথে রাত ৯টার দিকে ধামাইচহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে পৌছলে ছাত্রলীগ নেতা রানা মণ্ডল ও জিহাদ মণ্ডল আমার পথরোধ করে চাঁদা দাবী করে।

তিনি আরও বলেন, চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে তারা আমাকে মারধর করে হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এ সময় আমার চিৎকারে আশপাশের মানুষ জড়ো হলে রাস্তার পাশে আমাকে ফেলে দিয়ে তারা চলে যায়। পরে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করেন। এ নিয়ে ০৪/০১/২৩ তারিখে তাড়াশ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। পরবর্তীকালে তাড়াশ থানা পুলিশ তদন্ত ঘটনার সত্যতা পেলে আমার জিডি মামলা হিসেবে গ্রহণ করেন।

অভিযোগ করে তিনি বলেছেন, এখন অবধি জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় আছি। কারণ রানা মণ্ডল আমার কাছে চাঁদা দাবী করছেই। চাঁদা না দিলে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিবে ও জানে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দিচ্ছে।

অভিযুক্ত তাড়াশ উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রানা মণ্ডল সবগুলো অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমার বিরুদ্ধে কেউ একটাও অপরাধমূলক অভিযোগ দেখাতে পারবে না। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাঙচুরের সাথে আমি জড়িত নই। এছাড়া ব্যবসায়ীকে মারধরের বিষয়ে আমাকে জড়িয়ে থানায় মামলা করেছেন। এ বিষয়ে আমি কোনোভাবেই জড়িত নয়।

তাড়াশ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইকবাল হাসান রুবেল বলেন, যদি কেউ অন্যায় করে। সে ছাত্রলীগের নেতা হোক আর যাই হোক তাকে ছাড় দেয়া হবে না। এ বিষয়ে অভিযোগ পেলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তাড়াশ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাংচুরের বিষয়ে এখনো কেউ অভিযোগ করেন। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া রানা মণ্ডলের বিরুদ্ধে পূর্বে জিডি ও মামলা রয়েছে। সেই মামলার তদন্ত চলছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড