• সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৩ মাঘ ১৪২৯  |   ১৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মেডিক্যাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই যখন শিক্ষার্থীদের জন্য প্রতারণার কারখানা

  মো. শাকিল শেখ, আশুলিয়া (ঢাকা)

২৬ জানুয়ারি ২০২৩, ১১:০৫
মেডিক্যাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই যখন শিক্ষার্থীদের জন্য প্রতারণার কারখানা
নাইটিংগেল মেডিক্যাল কলেজ (ছবি : অধিকার)

ঢাকার আশুলিয়ায় অবস্থিত বেসরকারি রেজিস্ট্রেশন বিহীন নাইটিংগেল মেডিক্যাল কলেজ নামে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই যখন শিক্ষার্থীদের জন্য প্রতারণার কারখানা। 'হাসপাতাল না সবজি ক্ষেত', 'উই ওয়ান্ট মাইগ্রেশন', 'বাইরে ফিটফাট ভেতরে সদরঘাট', 'প্রতারণা আর না আর না', এমন নানা স্লোগানে ভরা চারপাশের প্রায় প্রতিটি দেয়াল।

পুরো চত্বর জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অসংখ্য হ্যান্ডবিল ও লিফলেট। দীর্ঘদিন যাবত এই মেডিক্যাল কলেজটির শিক্ষার্থীরা মাইগ্রেশনের দাবীতে নানা আন্দোলন করে আসছে। এমনকি এই দাবি নিয়ে রাস্তায় নেমে একাধিকবার সড়ক অবরোধও করেছেন তারা।

গতকাল বুধবার (২৫ জানুয়ারি) দুপুরে সরেজমিনে প্রতিষ্ঠানটিতে গিয়ে দেখা যায় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা কলেজের মেইন গেইটে অনির্দিষ্টকালের জন্য প্রতিষ্ঠান বন্ধের নোটিশ টানিয়ে রেখেছে। এছাড়া হাসপাতাল, ক্যান্টিন ও প্রশাসনিক ভবনের প্রতিটি জানলা ও দড়জার কাঁচ ভাঙা অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায়। এ সময় পুরো ক্যাম্পাস ঘুরে কেবলমাত্র আন্দোলনকারী কয়েকজন শিক্ষার্থী ও নিরাপত্তারক্ষী ছাড়া আর কাউকে পাওয়া যায়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় কলেজটিতে ২০১৭-২০১৮ সেশনে ভর্তিকৃত ৪৫ জন শিক্ষার্থী এই আন্দোলনে করে আসছে তাদের দাবি ভর্তির ৩ মাসের মাথায় তারা জানতে পারেন এই কলেজের বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) রেজিস্ট্রেশনসহ অন্যান্য অনুমোদন নেই। সে সময় তারা বিষয়টি নিয়ে অধ্যক্ষের কাছে জানতে চাইলে তাদের জানানো হয় দ্রুতই সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে। কিন্তু এতদিনেও এ ব্যাপারে কোন উদ্যোগ না নেয়ায় ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তারা আন্দোলনে নামে।

এ সময় তারা ক্লাস পরীক্ষা বর্জনসহ স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগ করেন পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানের সামনে মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি পালন করেন এবং উচ্চ আদালতে মাইগ্রেশনের রিট আবেদন করেন পরবর্তীকালে ২০২২ সালের ৩০ আগস্ট শিক্ষার্থীদের পক্ষে রায় দেয় আদালত। তবে মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষ সেই মাইগ্রেশন ঠেকাতে একটি রিট দায়ের করে। এতে আটকে যায় শিক্ষার্থীদের মাইগ্রেশন প্রক্রিয়া।

২০১৬ সালে নীতিমালা না মানায় এই কলেজে শিক্ষার্থী ভর্তি কার্যক্রমে নিষেধাজ্ঞা দেয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। পরে ওই নিষেধাজ্ঞা স্থগিতের জন্য আদালতে রিট করে স্থগিতাদেশ নিয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করে প্রতিষ্ঠানটি। এ সময় শিক্ষার্থী প্রতি ভর্তির সময় নেয়া হয় ১৫ লাখ করে টাকা করে। এবং টিউশন ও হোস্টেল বাবদ প্রতি মাসে ফি নেয়া হতো ১১ হাজার টাকা করে।

এ বিষয়ে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ইমরান খান বলেন, বাবা-মা অনেক স্বপ্ন নিয়ে ডাক্তার হওয়ার আশায় আমাদের এখানে ভর্তি করিয়েছিল। কিন্তু তারা তো জানত না যে এটা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান না এটা প্রতারণার কারখানা। নামে মেডিকেল কলেজ কিন্তু কাজের কিছু নাই। নেই চিকিৎসার যন্ত্রপাতি, নেই ভালো কোনো ডাক্তার। এমনকি রোগীও থাকেন না। মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষ মিথ্যা আশ্বাস ও আদালতের কিছু কাগজপত্র দেখিয়ে আমাদের ভর্তি করেন।

তিনি আরও বলেন, প্রথম বর্ষে বিএমডিসি রেজিস্ট্রেশন এনে দেবে বলে তারা প্রতিশ্রুতি দিলেও তারা এখন পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন এনে দিতে পারেনি। কলেজের শিক্ষা ব্যবস্থা সংক্রান্ত সব সুযোগ-সুবিধা থেকেও তাদের বঞ্চিত করে রাখা হয়েছে। তাই আমরা ৪৫ জন অসহায় শিক্ষার্থী মাইগ্রেশনের দাবিতে আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়েছি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা এ আন্দোলন করে যাব।

রোকেয়া আক্তার লিজা নামে অপর এক শিক্ষার্থী বলেন, আমরা মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। বহুকষ্টে ১৫ লাখ টাকা দিয়ে এই প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়ে আজ প্রতারণার শিকার। তাই এখন বাধ্য হয়ে মাইগ্রেশনের দাবি আদায়ে আমাদের রাস্তায় নামতে হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে আমাদের অনুরোধ দয়া করে দ্রুত এ সংকট নিরসন করে আমাদের স্বাভাবিক শিক্ষা জীবনে ফিরিয়ে দিন।

এ বিষয়ে জানতে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হুমায়ুন চৌধুরীর মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করে তার মোবাইল নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়৷

নাইটিংগেল মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ রুহুল কুদ্দুস রুমি বলেন, শিক্ষার্থীরা অনেকদিন যাবতই মাইগ্রেশনের দাবিতে আন্দোলন করছে। শুনেছি মাইগ্রেশনের বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে আপত্তি রয়েছে। তবে আশা করছি বিষয়টি দ্রুতই সমাধান হবে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড