• বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৯ মাঘ ১৪২৯  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন

সর্বশেষ :

sonargao

একমাত্র সন্তানকে বাঁচাতে মা-বাবার আকুতি

  মাজেদুল ইসলাম হৃদয়, ঠাকুরগাঁও

২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ১৫:৪০
একমাত্র সন্তানকে বাঁচাতে মা-বাবার আকুতি

নিজের ঘরবাড়ি নাই, থাকি অন্যের জায়গায়। আমার ছেলেটা অনেক দিন থেকে কিডনি রোগে আক্রান্ত। আপনারা সহযোগিতা করলে বাচ্চাটার চিকিৎসা করাতে পারতাম। কথাগুলো বলছিলেন আড়াই বছর বয়সী শিশু জুনাইদ ইসলামের মা সালমা আক্তার। তার একমাত্র ছেলে সন্তান কিডনি রোগে আক্রান্ত। সেই ছেলের চিকিৎসার জন্য তিনি এভাবেই কান্নাজড়িত কণ্ঠে সাহায্যের আকুতি জানান।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার সালন্দর আরাজি গ্রামের জাহিদুল ইসলাম ও সালমা আক্তারের ছেলে জুনাইদ ইসলাম। মাত্র আড়াই বছর বয়স তার। এই বয়সেই কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থতার সাথে দিন পার করছে সে। জুনাইদের বাবা জাহিদুল পেশায় একজন অটোরিকশা চালক। ভাড়াই রিকশা চালিয়ে টানাপোড়নের সংসারে কোনো মতো দিন পার করছেন তিনি । এরই মধ্যে ছেলের অসুস্থতার কারণে চিকিৎসার জন্য রোগ নির্ণয় ও পরীক্ষা করাতেই হিমশিম অবস্থা তার।

বিয়ের দীর্ঘ পাঁচ বছর পরে তাদের সংসারে জন্ম নেয় জুনাইদ। তাকে নিয়ে বাবা-মায়ের অনেক স্বপ্ন ও আশা। কিন্তু জন্মের একবছর পরেই জুনাইদ টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন পরিবার। অনেক চিকিৎসা ও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ঢাকায় ধরা পরে কিডনির সমস্যা। জানতে পারেন তাদের ছেলের ডান পাশের কিডনিতে পানি জমে গেছে ও দ্রুত অপারেশন করার পরামর্শ দেন চিকিৎসক।

কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণে থেমে আছে ফুট ফুটে সুন্দর এই শিশুটির চিকিৎসা। কিনো কিছু খেলেই বোমি করে ও পেট দিন দিন ফুলে যাচ্ছে শিশুটির। এই অবস্থায় অপারেশন করানোর মতো সামর্থ্য না থাকায় ছেলেকে সুস্থ করতে সরকারসহ বিত্তবানদের কাছে সাহায্যের আকুতি জাহিদুল ও তার স্ত্রী সালমা আক্তারের।

জুনাইদের মা সালমা আক্তার বলেন, আমাদের দিন আনে দিনে খেতে হয়। কোনো সময় না খেয়েও থাকতে হয়। বাচ্চার চিকিৎসা করার মতো অবস্থা নাই। এমনকি নিজের কোনো জায়গা সম্পদও নাই। রাস্তার ধারে সরকারি জায়গায় কোনো মতো ঘর করে আছি। জুনাইদ ছাড়া আমাদের আর কোনো সন্তান নেই। এই সন্তানটিকে নিয়ে আমাদের অনেক আশা ও স্বপ্ন। তাই সরকারসহ যদি সকলে সাহায্যের হাত বাড়াই দিতো তাহলে হয়তো আল্লাহ আমার ছেলেটাকে বাঁচাই রাখতো।

মানুষের রিকশা চালিয়ে কোনো মতো সংসার চালাই। এই অবস্থায় ছেলের অপারেশনের জন্য প্রায় দের থেকে দুই লাখ টাকা প্রয়োজন। তাই সন্তানের চিকিৎসার জন্য সকলের কাছে সাহায্য চান জুনাইদের দরিদ্র বাবা জাহিদুল ইসলাম।

জাহিদুল ইসলাম বলেন, আমাদের থাকার জায়গাটাও নাই। রাস্তার পাশে কোন মতো ঘর করে আমার বাবা মা ও ভাই থাকেন। আর আমি শান্তিনগরে আমার মামার বাড়িতে একটি ঘরে কোনো মতো আমার পরিবার নিয়ে থাকি। আমাদের বিয়ের সাড়ে ৭ বছর হচ্ছে। এর মধ্যে আমি ঢাকায় নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করতাম। কিছু দিন হইল আমি ঠাকুরগাঁওয়ে এসেছি।

তিনি আরও বলেন, জুনাইদকে নিয়ে আমাদের অনেক আশা কিন্তু ছেলেটা এখন খুবি অসুস্থ। ডাক্তার আরও পরীক্ষা দিয়েছেন কিন্তু টাকার অভাবে সেই পরীক্ষা গুলোও করাইতে পারছি না। তাই আপনাদের সকলে কাছে বিনীত অনুরোধ আমার ছেলেকে বাঁচাতে একটু সাহায্য করুন।

প্রতিবেশী আয়না বেগম, বিলাল হোসেন ও স্বজন আমিরউদ্দিন, জবেদা খাতুন বলেন, জুনাইদের চিকিৎসা করার মতো তার পরিবারের কোনো আর্থিক অবস্থা নেই। তাই সকলে সহযোগিতা করলে হয়তো শিশুটি সুস্থ হয়ে উঠবে।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আবু তাহের সামসুজ্জামান বলেন, জুনাইদের বিষয়টি অবগত হলাম। প্রকৃত পক্ষে অসুস্থতার বিষয়টি যাচাই-বাছাই সাপেক্ষে তার চিকিৎসার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, সাহায্য পাঠাতে জুনাইদের বাবা জাহিদুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে আহ্বান জানানো হয়েছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড