• মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯  |   ১৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পাবনায় নিপাহ ভাইরাসের প্রকোপে প্রথম শিশুর মৃত্যু

  রাকিব হাসনাত, পাবনা

২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ১১:২৯
পাবনায় নিপাহ ভাইরাসের প্রকোপে প্রথম শিশুর মৃত্যু
নিপাহ ভাইরাসের প্রকোপে প্রাণ হারানো শিশু মো. সোয়াত (ফাইল ছবি)

পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলায় নিপাহ ভাইরাস বা এনকেফালাইটিসে (মস্তিষ্কের প্রদাহ) আক্রান্ত হয়ে মো. সোয়াত নামের সাত বছর বয়সী এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। ভয়াবহ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে পাবনা জেলায় এটিই প্রথম মৃত্যু।

গতকাল সোমবার (২৩ জানুয়ারি) ভোরে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

সদ্য প্রাণ হারানো শিশু সোয়াত ঈশ্বরদী উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের দিঘা গ্রামের মো. সানোয়ার হোসেনের ছেলে এবং দীঘা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী। তার মৃত্যুতে এলাকার শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

সোয়াতের বাবা মো. সানোয়ার হোসেন বলেন, গত শুক্রবার (২০ জানুয়ারি) সকালে সোয়াতের নানা মো. রজব আলী তার নিজ হাতে লাগানো খেজুর গাছের রস নিয়ে মেয়ের বাড়িতে নিয়ে আসেন। সেই রস খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে সোয়াত। প্রাথমিকভাবে তাকে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য আনলে কর্মরত চিকিৎসক সোয়াতকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে পাবনা সিভিল সার্জন মনিসর চৌধুরী বলেন, আমাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। এর আগে পাবনায় নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়নি। এটাই প্রথম আক্রান্ত ও প্রথম মৃত্যু। শিশুটি ঠিক কিভাবে কখন আক্রান্ত হলো আমরা বিষয়টি নিয়ে কাজ শুরু করেছি। এ বিষয়ে পরে আরও বিস্তারিত জানানো হবে।

এ নিয়ে চলতি বছরের দ্বিতীয় জনের মৃত্যু হলো। এর আগে জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাজশাহীতে এক নারীর মৃত্যু হয়েছিল। এ পর্যন্ত দেশে আক্রান্ত ৩২৭ জনকে শনাক্ত করা গেছে। তাদের মধ্যে মারা গেছেন ২৩২ জন।

দেশে প্রথম এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটে ২০০১ সালে। পরে ২০০৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রে পরীক্ষার মাধ্যমে একে নিপাহ ভাইরাস বলে সনাক্ত করা হয়। মালয়েশিয়ায় ১৯৯৮ সালে প্রথম এ ভাইরাসটির সংক্রমণের কথা জানা যায়। তবে বর্তমানে বাংলাদেশ ছাড়া পৃথিবীর অন্য কোনো দেশে নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।

ভয়াল এই ভাইরাস যেসব এলাকায় খেজুর গাছ রয়েছে কেবল সেসব এলাকাতেই এর সংক্রমণ ঘটে। এটি নির্দিষ্ট কিছু এলাকায় সংক্রমিত হয় এবং কেন নতুন জায়গায় ছড়ায় সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড