• মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯  |   ১৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বাইপাসের সড়ক নির্মাণের কাজে ধীরগতি, চলাচলে চরম ভোগান্তি 

  মো. হাছান, মনোহরগঞ্জ (কুমিল্লা)

২২ জানুয়ারি ২০২৩, ১৩:৫২
বাইপাসের সড়ক নির্মাণের কাজে ধীরগতি, চলাচলে চরম ভোগান্তি 
বাইপাস সড়কের বেহাল দশা (ছবি : অধিকার)

কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলা বাইপাস রাস্তার কাজের ধীরগতি মানুষ পড়ছে চরম ভোগান্তিতে।

স্থানীয় সূত্রে ও সরজমিনে দেখা যায়, গত ১১ জুন ২০২০ সালে মেসার্স সেলুনিয়াস এন্ড কালু শাহ ট্রেডার্স কাজটি শুরু করে, স্থানীয় সরকার পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের এলজিআরডি মন্ত্রী মো তাজুল ইসলাম (এমপি) নির্দেশনায় এ বাইপাস রাস্তাটি নির্মাণ কাজ শুরু হয়। যদিও দীর্ঘ দুই বছর অতিক্রম হওয়ার পরও আনুমানিক দুই কিলোমিটার সড়কের নির্মাণ কাজ আজও শেষ হয়নি।

এতে প্রতিদিন হচ্ছে ছোট খাটো সড়ক দুর্ঘটনা, বিপাকে পড়ছে সাধারণ মানুষ। প্রতিদিনে এ রাস্তা দিয়ে শত শত গাড়ি চলাচল করে। খিলা থেকে মনোহরগঞ্জ উপজেলা অসতে হলে বাইপাস রাস্তাটি মূল সড়ক হয়ে আসতে হয়। তাই স্থানীয়দের প্রাণের দাবি রাস্তাটি অতিশ্রিগই নির্মাণ কাজ যেন শেষ হয়।

স্থানীয় বাসিন্দা ও মনোহরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. তাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, গত এক যুগ ধরে এমন সুযোগ পায়নি ঠিকাদাররা, কারণ প্রাকৃতিক দুর্যোগ ভাল থাকায় গত দু-বছরে তেমন কোনো সৃষ্টি হয়নি। এতে প্রচুর পরিমাণে সরকারের বরাদ্দকৃত উন্নয়ন মূলক কাজ করার সুযোগ পেয়েছে ঠিকাদারগন।

কি কারণে বাইপাস রাস্তাটি নির্মাণ কাজের এতো ধীরগতি; এটা আমারা জানি না উল্লেখ করে তিনি বলেন, রাস্তার যতটুকু কাজ করছে তেমন ভালো করে নাই নিম্নমানের কাজ করছে। তবে আমার এবং এলাকার মানুষদের প্রাণের দাবি রাস্তাটি নির্মাণ কাজের মান উন্নয় করে সঠিকভাবে অতিদ্রুত যেন শেষ করে।

বিশিষ্ট সমাজ সেবক মো. রফিকুজ্জামান (হিরণ) বলেন, আমি প্রতিনিয়ত বাইপাস রাস্তাটি দিয়ে মোটরসাইকেলে চলাচল করি রাস্তার নির্মাণ কাজ ধীরগতির কারণে আমাদের অনেক কষ্ট করে উপজেলা যেতে হয়। কয়েক মাস পরপর ঠিকাদারের লোকজন এসে সামান্য কিছু কাজ করে আবার কয়েক মাস বন্ধ রাখে। এভাবে রাস্তাটির নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। রাস্তায় বড় বড় গর্ত ও বিভিন্ন স্থানে ইট, কণা পড়ে থাকায় মানুষের চলাচলে সমস্যা হচ্ছে।

এ বিষয়ে মেসার্স সেলুনিয়াস এন্ড কালু শাহ ট্রেডার্স প্রতিষ্ঠান সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

মনোহরগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মো. আব্দুর রহমান মুহিমের নিকট জানতে চাইলে, তিনি কোনো তথ্য না দিয়ে বিষয়টি নিয়ে গড়িমসি করেন।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড