• মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯  |   ১৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বিদ্যালয়ে শিশুদের খেলার মাঠ বন্ধ করে সবজি চাষ

  আব্দুল্লাহ আল মামুন, ফটিকছড়ি (চট্টগ্রাম)

২০ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪:৪০
সরকারি বিদ্যালয়ে শিশুদের খেলার মাঠ বন্ধ করে সবজি চাষ
ইসলামিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিশুদের খেলার মাঠে সবজি চাষ (ছবি : অধিকার)

ফটিকছড়ি উপজেলার ইসলামিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিশুদের খেলার মাঠ বন্ধ করে সবজি চাষ করা হয়েছে। এতে শিশুরা খেলাধুলা করতে না পেরে পাশের সড়কে দৌড়াদৌড়ি করে। ফলে প্রতিদিনই ঘটে দুর্ঘটনা।

অথচ স্কুল মাঠে প্রতিদিন সকালে পিটি ও জাতীয় সংগীত হওয়ার কথা। কিন্তু সেই ব্যবস্থাও রাখা হয়নি এ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এসব অনিয়ম দেখার জন্য কমিটি ও ক্লাস্টার কর্মকর্তা থাকলেও তারা নীরব রয়েছেন দীর্ঘদিন থেকেই।

জানা গেছে, ফটিকছড়ি উপজেলার সুয়াবিল ইউনিয়নের শোভনছড়ি এলাকায় ইসলামিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি অবস্থিত। এ বিদ্যালয়ের মাঠজুড়েই করা হয়েছে মুলা, বেগুন মিষ্টি কুমরার চাষ। এ ক্ষেতের চারদিক দিয়ে জালের ঘেড়াবেড়াও দেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীরা পায়ে হাঁটার জায়গাও রাখা হয়নি পরিমাণ মতো।

ফটিকছড়ি প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্র মতে, কিছুদিন আগে উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অবসরে যাওয়ায় ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছেন সিনিয়র শিক্ষক ওসমান গণি। তিনিই শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার মাঠ নষ্ট করে লাগিয়েছেন সবজি। এতে বাচ্চারা মাঠে খেলতে না পেরে পাশের সড়কে খেলাধুলা করে। ফলে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় নাজিম উদ্দিন বলেন, রাস্তা দৌড়াদৌড়ির সময় আমার মোটর সাইকেলে দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে উক্ত বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। বাচ্চারা যদি খেলার মাঠে খেলতে পারতো তাহলে রাস্তায় গিয়ে খেলত না, দুর্ঘটনাও ঘটতো না।

কৃষক আবদুল মজিদ বলেন, শোভনছড়ি ইসলামিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে চাষের বিল রয়েছে। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের কৃষিকাজ করার ইচ্ছা থাকলে বিলে করতে পারতেন। আমরা চাষ করি বিলে, কিন্তু শিক্ষক বলে তিনি খেলার বন্ধ করেই চাষ শুরু করে দিয়েছেন।

ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ওসমান গণি বলেন, আমি মাঠে সবজি চাষ করেছি, খারাপ কিছু করিনি। আমার চাষ নষ্ট করার অধিকার কারো নেই।এ বিষয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাব্বির রহমান সানির কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে সবজি চাষ করা যাবে না। সবজি পরিত্যক্ত জায়গায় করার একটি নির্দেশনা আছে, তার মানে খেলার মাঠে নয়। কোনোভাবেই শিশুকিশোরদের খেলার মাঠ নষ্ট করে সবজি চাষ করা যাবে না। আমি খবর নিয়ে ব্যবস্থা নিব।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড