• মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯  |   ১৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সরকারি স্কুলে চান্স পাইয়ে দেওয়ার নামে অর্থ আত্মসাৎ

  কে এম রেজাউল করিম, দেবহাটা (সাতক্ষীরা)

২০ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪:২১
সরকারি স্কুলে চান্স পাইয়ে দেওয়ার নামে অর্থ আত্মসাৎ

সাতক্ষীরা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ করে দেওয়ার নামে প্রতারণা করে এক মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে উত্তর কাটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির বিদ্যুৎসাহী সদস্য সাইফুল ইসলামের নামে।

অভিযুক্ত সাইফুল ইসলাম সাতক্ষীরা সদর উপজেলার লাবসা ইউনিয়নের মাগুরা গ্রামের মো. মোবারক হোসেনের ছেলে ও উত্তর কাটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নবগঠিত পরিচালনা কমিটির বিদ্যুৎসাহী সদস্য।

অভিযোগ অনুসন্ধানে জানা গেছে, চলতি শিক্ষাবর্ষে সাতক্ষীরা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তির জন্য বিদ্যালয় কর্তৃক আয়োজিত লটারি প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে সাতক্ষীরা পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের উত্তর কাটিয়া এলাকার এএসএম আলমগীর হুসাইন আল-ফারুকী (তোতা) ও আমিনা সুলতানা দম্পতির সন্তান ইমাম হোসেন।

ইমাম হোসেনের দাদা হাসানুজ্জামান হাসান একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাতক্ষীরা জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার।

সাতক্ষীরা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের ভর্তির লটারি প্রক্রিয়ায় ইমাম হোসেনের নাম ভর্তির জন্য নির্ধারিতদের তালিকায় না এলেও অপেক্ষমাণ তালিকায় পঞ্চম হিসেবে তার নাম আসে। আর এই অপেক্ষমাণ তালিকায় তার নাম থাকার সুযোগটিই গ্রহণ করে প্রতারক সাইফুল ইসলাম।

ইমাম হোসেনকে অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে ভর্তি করিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে শিক্ষকদের খুশি করার নাম করে ইমাম হোসেনের বাবা এএসএম আলমগীর হুসাইনের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় প্রতারক সাইফুল ইসলাম। অথচ কোনো রকম টাকা-পয়সা ছাড়াই স্বচ্ছ এবং নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে সাতক্ষীরা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তির সুযোগ পায় ইমাম হোসেন।

এ দিকে প্রতারক সাইফুল ইসলামের কাছে সেই ২০ হাজার টাকা ফেরত চাইলে তিনি তা ফেরত না দিয়ে বরং তালবাহানা করতে থাকে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিশিষ্ট প্রতারক ও দুর্নীতিবাজ সাইফুলের স্থায়ী কোনো পেশা না থাকলেও বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন উচ্চ মহলে তার যোগাযোগ আছে বলে প্রচার করে সহজ-সরল মানুষের সাথে দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণা করে আসছেন তিনি।

ছেলের ভর্তির নামে ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে ইমাম হোসেনের বাবা এএসএম আলমগীর হুসাইন বলেন, আমার ছেলেকে সাতক্ষীরা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি করিয়ে দেওয়ার জন্য শিক্ষকদের খুশি করার নামে আমার কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা নিয়েছে সাইফুল।

তিনি আরও বলেন, ওয়েটিং লিস্টে থাকলে টাকা না দিলে ভর্তি করানো যাবে না বলে আমাকে বিভ্রান্ত করে তিনি আমার কাছ থেকে এই টাকা নিয়েছেন। পরবর্তীকালে আমার ছেলে স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় ভর্তির সুযোগ পেলেও সাইফুল সেই টাকা ফেরত না দিয়ে বরং তালবাহানা করছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সাইফুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি ২০ হাজার টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, আমি ওই ছেলেটাকে ভর্তি করানোর জন্য আমার এক বন্ধুর মাধ্যমে সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষকের সাথে যোগাযোগ করি। আমাকে অনেক দৌড়ঝাঁপ ও পরিশ্রম করতে হয়েছে তার পারিশ্রমিক হিসেবে টাকাটা নিয়েছি। স্কুলের শিক্ষকদের খুশি করতে কোনো টাকা নেয়নি এবং ভর্তির জন্য শিক্ষকদেরও কোন টাকা দেওয়া লাগেনি।

যথাযথ নিয়ম অনুসরণ করেই তো ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে তাহলে আপনার টাকা নেওয়াটা কি ঠিক হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যথাযথ নিয়ম অনুসরণ করেই ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে এটা যেমন ঠিক তেমনি আমি ছেলেটাকে ভর্তি করিয়ে দেওয়ার জন্য পারিশ্রমিক হিসেবে টাকাটা নিয়েছি শিক্ষকদের দেওয়ার জন্য না।

এ সময় তিনি অভিযোগ করে বলেন, প্রকৃতপক্ষে ইমাম হোসেন তো এএসএম আলমগীর হুসাইনের ছেলে না। ওনাদের কোনো এক আত্মীয়ের ছেলে। ওনারা বরং আমার সাথে বাচ্চাটির পরিচয় গোপন করে প্রতারণা করেছে। পরিচয় গোপন করে ভর্তি করাতে আমার বিভিন্ন মাধ্যমে যোগাযোগ করা লেগেছে তার পারিশ্রমিক হিসেবেই আমি টাকাটা নিয়েছি।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড