• বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৯ মাঘ ১৪২৯  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর চান প্রতিবন্ধী বৃদ্ধা

  আনোয়ার পারভেজ, নাটোর

১৬ জানুয়ারি ২০২৩, ১০:৩২
প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর চান প্রতিবন্ধী বৃদ্ধা
শারীরিক প্রতিবন্ধী বৃদ্ধা কমলা বেগম (ছবি : অধিকার)

বসবাসযোগ্য একটি ঘরের জন্য আবেদন করেও ষাটোর্ধ বয়সী শারীরিক প্রতিবন্ধী বৃদ্ধা কমলা বেগমের ভাগ্যে জোটেনি প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর। স্বামীহারা ওই বৃদ্ধা তার পৈত্রিক ভিটার এক চিলতে জমিতে ঝুঁকিপূর্ণভাবে নড়বড়ে টিনের ছাউনি দেয়া ঘরে একাকী জীবন কাটাচ্ছেন।

প্রধানমন্ত্রীর উপহারের একটি ঘর পেয়ে শেষ জীবনে ভালো পরিবেশে জীবন কাটাতে চান কমলা বেগম। নাটোরের সিংড়া উপজেলার লালোর ইউনিয়নের লালোর গ্রামের ৬৬ বছর বয়সী প্রতিবন্ধী কমলা বেগম জন্ম থেকেই একটি হাত ও একটি পা বিকলাঙ্গ। স্বামী-সন্তান কেউ নেই। পৈত্রিক সম্পত্তির এক চিলতে জমিতে প্রয়াত স্বামীর হাতে তৈরি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়া টিনের ছাউনি ঘরে একাকী জীবন কাটাচ্ছেন।

ঘরের বেড়া, চাল, দরজা সব নড়বড়ে হয়ে পড়েছে। বহু পুরানো একমাত্র চৌকিতেই ঘুমানো, খাওয়া দাওয়াসহ সবকিছুই করতে হয়। চৌকিতে একটি পাটি বিছানো ছাড়া কিছুই নেই। তেল চিটে একটি লেপ দিয়ে কোন মতে শীত কাটে কমেলার।

প্রতিবেশীরা বলেন, যাদের মাথা গোঁজার ঠাঁই রয়েছে তারাই ঘর পাচ্ছেন। অথচ প্রতিবন্ধী কমলার ভাগ্যে জুটছে না উপহারের ঘর। প্রতিবন্ধী কমলা বেগমকে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের একটি ঘর দেওয়ার দাবি করেছেন প্রতিবেশীরা।

প্রতিবন্ধী বৃদ্ধা মোছা. কমলা বেগম বলেন, কয়েকবার ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের কাছে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর চেয়েও পাইনি। ভিক্ষা করেই চলে তার সংসার। উপজেলা সমাজ সেবা অফিস থেকে তাকে একটি প্রতিবন্ধী কার্ড দেওয়া হয়েছে।

তিনি জানান, তার বাড়িতে টিউবওয়েল ও টয়লেটের কোনো ব্যবস্থা নেই। কেরোসিন কিনতে না পারায় বেশিরভাগ সময় অন্ধকারেই রাত কাটে তার। মরার আগে প্রধানমন্ত্রী যদি তাকে একটি ঘর দিতেন তাহলে ওই ঘরে আরাম আয়েশে ঘুমাতে পারতেন। বসবাসযোগ্য একটি ঘর হলে সব কষ্ট তিনি ভুলে যেতেন এবং মৃত্যুর সময় তিনি শান্তি পেতেন।

বৃদ্ধা কমলার আত্মীয় পাশের হাতিয়নদহ গ্রামের বাসিন্দা রুস্তম আলী জানান, বৃদ্ধার জন্য চেয়ারম্যান-মেম্বারের কাছে একটি ঘরের জন্য আবেদন করা হয় কয়েকবার। যেহেতু ঘর বরাদ্দের জন্য ক- বিভাগ বা খ- বিভাগে সরকারের নিয়মের মধ্যে ঘর ছিল। ভূমি মন্ত্রণালয়ের ভূমিসহ যাদের ঘর দেয়া হচ্ছে সেখানেও আবেদন করা হয়। এছাড়া নিজের জায়গায় ঘর করে দেওয়ারও আবেদন করা হয়।

তিনি জানিয়েছেন, যেহেতু ওই বৃদ্ধা তার পৈত্তিক কিছু জমি পাবেন সেই জমিতে একটি ঘর করে দেওয়ার জন্যও মেম্বার-চেয়ারম্যানের কাছে বলা হয়। অসহায় বৃদ্ধা তার পৈত্রিক ভিটায় প্রাপ্ত জমির ওপর একটি ঘর করে দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে আবেদন জানান।

লালোর ইউনিয়ন পরিষতের চেয়ারম্যান একরামুল হক শুভ জানান, কমলা বেগমের কোনো আবেদন তিনি হাতে পাননি। তবে নিয়মের মধ্যে কমলা বেগম ঘর পাওয়ার যোগ্য হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নিবেন তিনি।

জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ বলেন, প্রতিবন্ধী কমলা বেগম যাতে ভাল পরিবেশে বসবাস করতে পারেন সে বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি নিজে এলাকায় গিয়ে কমলা বেগম সহ এলাকার মানুষদের সাথে কথা বলে পরবর্তী ব্যবস্থা নিবেন। এখন জেলা প্রশাসনের বরাদ্দ থেকে দ্রুত শীতবস্ত্রসহ তার চলার মতো যতটুকু সম্ভব তা সরবরাহ করা হবে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড