• মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯  |   ১৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বাণিজ্য মেলায় মানুষের ঢল, সড়কে তীব্র যানজট

  সাইদুর রহমান, রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ)

১০ জানুয়ারি ২০২৩, ১১:৫০
বাণিজ্য মেলায় মানুষের ঢল, সড়কে তীব্র যানজট

পুরো দমে জমে উঠেছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার ২৭তম আসর। নবম ও ১০ম দিনে মেলা প্রাঙ্গণে মানুষের ঢল দেখা গেছে। মেলাকে ঘিরে নতুন রূপে সাজানো হয়েছে পূর্বাচল উপ শহরকে।

পূর্বাচল উপ শহরের চারিদিকে লাল, নীল, হলুদ বাতি দিয়ে নতুন আলোকসজ্জায় সাজানো হয়েছে। মেলাতে আশা ক্রেতা, দর্শনার্থী ও স্থানীয়দের মাঝে বইছে আনন্দের হাওয়া।

কিন্তু আনন্দের মাঝে তীব্র যানজটের আরেক হতাশায় ভুগছে মেলাতে আসতে যাওয়া ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের মাঝে। এশিয়ান হাইওয়ে (বাইপাস) সড়কে নিত্যদিনের যানজটের কারণে মেলাতে আসা ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

এ দিকে স্থানীয়রা আগে থেকেই বাণিজ্য মেলাকে ঘিরে এশিয়ান বাইপাস সড়কে যানজটের আশঙ্কা করেছিলেন। গত পহেলা জানুয়ারি মেলা উদ্বোধনের দিন থেকেই এশিয়ান বাইপাস সড়কে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছিল।

অপর দিকে বাণিজ্য মেলাতে আসা গাড়ির সংখ্যা বেড়ে যাওয়া, কাঞ্চন ব্রিজে টোল আদায়ে ধীর গতি, যত্রতত্র যাত্রী ওঠানো-নামানো, বেপরোয়া ওভারটেকিং এবং ফিটনেস বিহীন লক্কড় ঝক্কর গাড়ির কারণে বাইপাস সড়কের যানজটের অন্যতম কারণ বলে জানান ভুক্তভোগীরা। তবে কুরিল বিশ্বরোড থেকে ৩০০ ফুট সড়ক হয়ে মেলা পর্যন্ত রাস্তায় যানজট দেখা যায়নি।

সরেজমিনে দেখা যায়, বাণিজ্য মেলাকে ঘিরে এশিয়ান হাইওয়ে বাইপাস সড়কে অতিরিক্ত গাড়ির চাপ ও চালকরা গাড়ি চালাচ্ছেন নিজেদের মনগড়া মতো। এ কারণেই তীব্র যানজটের ভোগান্তি সৃষ্টি হচ্ছে। কাঞ্চন ব্রিজ থেকে ভুলতা পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ রাস্তায় জায়গায় জায়গায় যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। কাঞ্চন ব্রিজ, মায়ারবাড়ী, চাঁন টেক্সটাইল, কালাদী, নলপাথর, পেনাবোসহ পুরো বাইপাস সড়কে যানবাহনের জটলা বেঁধে থাকছে। যানজটের কারণে চালকরা গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ করে বসে থাকছেন। এতে যাত্রীরা পড়ছেন চরম ভোগান্তিতে। যানজটে আটকা পড়ে থাকতে দেখা যায় রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্সও। এছাড়াও চার লেনে উন্নীতের কাজ চলায় সড়কটির চারপাশ ধুলায় ছেয়ে থাকছে। হাইওয়ে পুলিশ ও ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের যথাযথ তৎপরতার অভাবে যানজট তীব্র হচ্ছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ভৈরব, হবিগঞ্জ, সিলেট, মৌলভীবাজার, নরসিংদী, কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ও নারায়ণগঞ্জসহ পূর্বাঞ্চল এলাকার বিপুল সংখ্যক দর্শনার্থীকে মেলায় আসতে গেলে এই এশিয়ান হাইওয়ে (বাইপাস) সড়কটি ব্যবহার করতে হয়। কিন্তু মেলার সামনের কাঞ্চন ব্রিজ থেকে ভুলতা হয়ে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক এবং ভুলতা থেকে মদনপুর হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক পর্যন্ত এশিয়ান হাইওয়ে বাইপাস সড়কটি প্রশস্ত একেবারেই কম। সড়কটি প্রশস্তকরণসহ নানা উন্নয়নকাজ চলছে। আর এই কাজে বিভিন্ন ধরনের যানবাহন ব্যবহার করা হচ্ছে। চলছে সড়কের দুই পাশে মাটি কাটার কাজ। এর ওপর ফিটনেস বিহীন ও লক্কড় ঝক্কর গাড়ি চলাচলের কারণে তা প্রায় সময়ই নষ্ট হয়ে অচল পড়ে থাকায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো জায়গায় যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়া মেলাকে কেন্দ্র করে যানবাহন চলাচল বেড়েছে।

অতিরিক্ত যানবাহনের পাশাপাশি কাঞ্চন ব্রিজে টোল আদায়ে ধীরগতির কারণে মুহূর্তের মধ্যেই শতশত গাড়ি জমে যাচ্ছে। এছাড়া সড়কটি দিয়ে কাঞ্চন ব্রিজ হয়ে গাজীপুর ও ময়মনসিংহসহ উত্তরবঙ্গের মালবাহী অনেক ট্রাক চলাচল করছে। এসব ট্রাকের কারণেও দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসন রূপসী-কাঞ্চন সড়ককে বিকল্প রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করতে বললেও তা কাজে আসছে না। অন্য দিকে গাজীপুর চৌরাস্তা থেকে মেলা পর্যন্ত সড়কের উন্নয়নকাজ চলছে। যে কারণে ওই এলাকার মানুষও মেলায় আসতে যানজটের ভোগান্তিতে পড়ছেন।

আড়াইহাজারের বান্টি এলাকা থেকে আসা এক দর্শনার্থী মামুন মিয়ার সঙ্গে। তিনি বলেন, বান্টি থেকে গোলাকান্দাইল এসে দুপুর ২টার দিকে বিআরটিসি বাসে উঠেছি। মেলায় পৌঁছেছি সন্ধ্যা সাড়ে ৪টার দিকে। যানজটে বসে থাকতে থাকতে বিরক্ত হয়ে গেছি। রাস্তায় এমন যানজট থাকলে মেলাতে মানুষ আসবেনা।

সোনারগাঁও থেকে মেলায় ঘুরতে আসা সুজন মিয়া বলেন, স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে মেলায় ঘুরতে এসেছিলাম। কিন্তু যানজটের কারণে আমার তিন বছরের মেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছে, তাই মেলাতে ঘুরার আমেজ নষ্ট হয়ে গেছে। এশিয়ান সড়কে প্রতিদিনই যানজট লেগেই থাকে। এ কারণে সাধারণ মানুষকে অনেক ভোগান্তিতে পড়তে হয়। ট্রাফিক পুলিশ যদি একটু নজরদারি বাড়িয়ে দেয় তাহলে আর যানজট থাকত না।

এ দিকে ট্রাফিক পুলিশের দাবি যানজট নিরসনে তারা যথাসাধ্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ভুলতা হাইওয়ে পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক ওমর ফারুক বলেন, ‘যানজট নিরসনে হাইওয়ে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। তবে যানজট দূর করতে সকলকে সচেতন হতে হবে।

এ ব্যাপারে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) সচিব ইফতেখার আহম্মেদ চৌধুরী দৈনিক অধিকারকে বলেন, যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশ ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সামনের দিনগুলোতে মেলাতে আসা দর্শনার্থীদের যেন আসতে অসুবিধা না হয় সেদিকে কঠোর নজরদারি দেওয়া হবে। মেলা সফলভাবে সম্পন্ন করতে আমরা সব ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছি।

উল্লেখ্য, এবারের আসরে সাধারণ, প্রিমিয়াম, সংরক্ষিত, ফুড স্টল, ও রেস্তোরাসহ ১৩টি ক্যাটাগরিতে স্টল থাকবে। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানতে থাকবে বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন। এবারের আসরে ১২টি দেশসহ ২৫০টি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করবে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড