• রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ১৫ মাঘ ১৪২৯  |   ১৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বছরে দেড় কোটি টাকা চাঁদা হাতাচ্ছে দলিল লেখক সমিতি!

  মো. রেজোয়ান ইসলাম, নীলফামারী

০৫ জানুয়ারি ২০২৩, ১১:০০
বছরে দেড় কোটি টাকা চাঁদা হাতাচ্ছে দলিল লেখক সমিতি!
ডোমার সাব-রেজিস্ট্রি অফিস (ছবি : অধিকার)

নীলফামারীর ডোমার উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে দলিল লেখক সমিতির নামে রেজিস্ট্রি হওয়া দলিল প্রতি চার হাজার টাকা চাঁদা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের (২০২২) পহেলা জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ডোমার উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে তিন হাজার সাতশত ৫৮টি দলিল রেজিস্ট্রি সম্পাদন হয়েছে। দলিল গ্রহীতাদের অভিযোগ অনুযায়ী দলিল লেখক সমিতির নামে চাঁদা নেয়ার পরিমাণ দাঁড়ায় মোট এক কোটি ৫০ লক্ষ ৩২ হাজার টাকা।

এ বিষয়ে দৈনিক অধিকারকে দলিল লেখক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা জানান, চাঁদা নেয়ার বিষয়টি সঠিক নয়।

ভুক্তভোগী দলিল গ্রহীতা উপজেলার বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের নয়ানী বাগডোকড়া খামাতপাড়া এলাকার কেশব চন্দ্র রায় অভিযোগ করে বলেন, আমি দুই শতক জমি রেজিস্ট্রি করেছি। রেজিস্ট্রি বাবদ আমার কাছে দুই হাজার পাঁচশত টাকা নিয়েছে। আর দলিল লেখক সমিতির চাঁদা বাবদ চার হাজার টাকা নিয়েছে। এছাড়াও অফিস খরচ বাবদ এক হাজার পাঁচশত টাকা নিয়েছে তারা। আমার দুই শতক জমি রেজিস্ট্রি করতে মোট আট হাজার টাকা নিয়েছে দলিল লেখকরা।

একই এলাকার হরিপদ রায় ও হরি কিশোর রায় সমিতির নামে দলিল প্রতি চার হাজার করে টাকা দলিল লেখকদের দিয়েছেন বলে জানান।

সোনারায় ইউনিয়নের শমছের হাজী দৈনিক অধিকারকে বলেন, আমরা জমি রেজিস্ট্রি করেছি। রেজিস্ট্রি খরচ ছাড়াও আমাদের কাছে সমিতির নামে চার হাজার টাকা নিয়েছে। ওই টাকা নাকি সমিতির সবাই ভাগ করে নেয়।

চিকনমাটি এলাকার মো. মোবারক হোসেন বলেছেন, আমি সাড়ে ৪২ শতক জমি রেজিস্ট্রি করেছি। আমার কাছে সবমিলে ৬৫ হাজার টাকা খরচ নিয়েছে দলিল লেখক।

সোনাহার এলাকার মো. সুমন ইসলাম বলেন, সমিতির নামে চার হাজার টাকা না দিলে তো আর জমি রেজিস্ট্রি হবে না। তাই সবাই বাধ্য হয়েই সেই টাকা দিচ্ছে।

দলিল লেখক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চার হাজার টাকা চাঁদার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন এখানে নিময় মেনেই রেজিস্ট্রি হয়।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) ডোমার উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক গোলাম কুদ্দুস আইয়ুব দৈনিক অধিকারকে বলেছেন, এখন দ্রব্য মূল্যের উর্ধ্বগতিসহ বিভিন্ন সমস্যায় পড়েছে সাধারণ মানুষ। আর কেউ জমি কিনলে দলিল লেখক সমিতির নামে চার হাজার টাকা চাঁদা। এটা মেনে নেওয়া যায় না। দ্রুত এই চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ ও দলিল রেজিস্ট্রির নামে চাঁদা বন্ধের দাবি জানান তিনি।

ডোমার সাব-রেজিস্টার মাহফুজুর রহমান দৈনিক অধিকারকে বলেন, দলিল লেখকরা বাইরে অতিরিক্ত টাকা নিতে পারে। এটা আমার দেখার বিষয় না।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড