• শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

দুটি সরকারি প্রতিষ্ঠান দখলে নিয়েছেন কাজী রফিকুল ইসলাম

  আলমগীর হোসেন, লক্ষ্মীপুর

১৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭:২৪
দুটি সরকারি প্রতিষ্ঠান দখলে নিয়েছেন কাজী রফিকুল ইসলাম
কাজী রফিকুল ইসলাম (ফাইল ছবি)

আইন ও নীতিমালা ভঙ্গ করে অবৈধ পন্থায় কাজী মাওলানা রফিকুল ইসলাম দুটি সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে দীর্ঘ বছর বেতন-ভাতা নিচ্ছেন। তিনি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চররুহিতা ইউনিয়নের চরলামছি গ্রামের মৃত নুর মোহাম্মদ এর পুত্র।

নবীগঞ্জ ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসায় গত ১ জানুয়ারি ১৯৮৪ইং সনে এবতেদায়ী কারী, (ইনডেক্স নং— ০৩৮২০৯) হিসেবে কর্মরত থেকে বেতন-ভাতা গ্রহণ করছেন কাজী মাওলানা রফিকুল ইসলাম এবং আইন ও নীতিমালা বহির্ভূতভাবে অবৈধ পন্থায় চররুহিতা ইউনিয়নের মুসলিম বিবাহ তালাক নিবন্ধক ও নিকাহ রেজিস্ট্রার কাজী হিসেবে ২০০৩ সাল থেকে কর্মরত থেকে সরকারী সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করছেন তিনি। এ নিয়ে স্থানীয় এলাকাবাসীর মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

শিক্ষা নীতিমালা অনুযায়ী দেখা যাচ্ছে- গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (মাদরাসা) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮ এর ১১.১০ (ক) কোনো ব্যক্তি বেতন-ভাতাদির সরকারি অংশ প্রাপ্তির জন্য আবেদনকারী শিক্ষক-কর্মচারীগণ একই সাথে একাধিক পদে চাকুরিতে বা আর্থিক লাভজনক কোনো পদে নিয়োজিত থাকতে পারবেন না।

মুসলিম বিবাহ ও তালাক (নিবন্ধন) বিধিমালা, ২০০৯ এর বিধি ২০ মোতাবেক বলা হয়েছে, কোনো নিকাহ রেজিস্ট্রার তাহাকে যে এলাকার জন্য লাইসেন্স প্রদান করা হইয়াছে, সেই এলাকা বা উক্ত এলাকার সংলগ্ন কোন ওয়ার্ড, পৌরসভা বা ইউনিয়নের কোন মসজিদ অথবা বেসরকারি স্কুল, কলেজ অথবা বেসরকারি মাদরাসা ব্যতীত অন্য কোথাও চাকরি করিতে পারিবেন না।

দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন ১৯৪৭ এর ধারা ২ ও পেনাল কোড এর ধারা ২১ এর উপধারা ১২(ক) অনুযায়ী, কোনো সরকারি কর্তব্য সম্পাদনের জন্য সরকারের চাকুরিতে বেতনভোগী হিসেবে নিযুক্ত রয়েছেন ফি অথবা কমিশন আকারে পারিশ্রমিক পেয়ে থাকেন’ সেও সরকারি কর্মচারী রূপে গণ্য হবেন।

সে হিসেবে একজন এমপিওভুক্ত শিক্ষক সরকারি কর্মচারী, একই বিধান মোতাবেক কমিশন আকারে পারিশ্রমিক গ্রহণ করায় নিকাহ রেজিস্ট্রার পদও সরকারি কর্মচারী হিসাবে গণ্য। দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন অনুযায়ী সরকারের দুই পদে দায়িত্ব পালন করার অপরাধ অর্থ আত্মসাতের সামিল।

৬ জানুয়ারি ২০২০ আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সদস্য আলী আজমের প্রশ্নের জবাবে বলেন, সরকারি লাইসেন্সপ্রাপ্ত নিকাহ রেজিস্ট্রাররা একইসঙ্গে সরকারি এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক হিসেবে দুই প্রতিষ্ঠান থেকে সুবিধা ভোগ করতে পারেন না। কোনো নিকাহ রেজিস্ট্রার তার নিজ অধিক্ষেত্রের বাইরে কোনো সরকারি এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক হিসেবে বা অন্য কোনো পদে চাকরি করলে তার লাইসেন্স বাতিলসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অথচ বর্তমানে কাজী মাওলালা রফিকুল ইসলাম দেদারচ্ছে দুটি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছে।

বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রিয়াজুল ইসলাম সুমন বলেন, নিকাহ রেজিস্ট্রার এবং শিক্ষা নীতিমালায় বলা আছে একই ব্যক্তি সরকারী সুবিধা ভোগী দু’টি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত থাকতে পারবেন না। তিনি তথ্য গোপন রেখে সরকারকে ফাঁকি দিয়ে নবীগঞ্জ ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসায় এবতেদায়ী কারী হিসেবে বহাল থেকে মাসিক ১২ হাজার ৯শ’ একুশ টাকা উত্তোলন করছেন। অপরদিকে নিকাহ রেজিস্ট্রার হিসেবে চররুহিতা ইউনিয়নে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

এ ব্যাপারে জেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল মতিন জানান, কাজী রফিকুল ইসলাম একই সাথে এমপিও শিক্ষক ও নিকাহ রেজিস্ট্রার হিসাবে কর্মরত থাকতে পারেন না। তিনি হয় এমপিও ভুক্ত শিক্ষক হিসেবে নিয়োজিত থাকবেন, না হয় নিকাহ রেজিস্ট্রার হিসেবে নিয়োজিত থাকবেন। এব্যাপারে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা রেজিস্ট্রার লোকমান হোসেন জানান, এমপিও ভুক্ত শিক্ষককে সরকারি শিক্ষক হিসেবে গণ্য করা যায় না এবং সরকারি লাইসেন্সপ্রাপ্ত নিকাহ রেজিস্ট্রার কে সরকারি চাকুরি হিসেবে গণ্য করা যায় না। কিন্তু শিক্ষা নীতিমালা এবং মুসলিম বিবাহ ও তালাক (নিবন্ধন) বিধিমালা উল্লেখিত ধারা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড