• বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে চলছে পৌরসভার রাস্তার কাজ

  জে রাসেল, ফরিদপুর

৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৯:৫৩
নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে চলছে পৌরসভার রাস্তার কাজ

ফরিদপুর শহরের যানজট নিরসনে পৌরসভার উদ্যোগে বাইপাস সড়ক হিসেবে উন্নয়ন করা হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ দুটি সড়ক। সড়ক দুটির একটি শহরের রথখোলা মমিন ম্যানশন থেকে শুরু করে চরকমলাপুরস্ত অনাথের মোড় পর্যন্ত এবং অন্যটি অনাথের মোড় থেকে চরকমলাপুর ডাবল ব্রিজ হয়ে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পর্যন্ত রয়েছে।

রাস্তা দুটি প্রশস্তকরণসহ বিটুমিন দিয়ে পাকাকরণের কাজ চলমান রয়েছে।

এর মধ্যে অনাথের মোড় থেকে চরকমলাপুর ডাবল ব্রিজ হয়ে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পর্যন্ত সড়কটির নির্মাণ কাজে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে হতাশার কথা জানিয়েছেন চরকমলাপুরের কয়েকজন বাসিন্দা।

সরেজমিনে দেখা যায়, রাস্তাটিতে কয়েকটি স্তূপ করে রাখা নিম্নমানের ইটের খোয়া। যার মধ্যে বেশিরভাগ ইটের গুড়া মিশ্রিত রয়েছে। এমনকি হাত দিয়ে চাপ দিলে সহজেই গুড়া হয়ে যায়। শহরের গুরুত্বপূর্ণ একটি রাস্তায় এমন ধরনের ইটের খোয়া ব্যবহারে মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানান স্থানীয়রা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন স্থানীয় বাসিন্দা এ প্রতিবেদককে বলেন, রাস্তায় যে ধরনের ইটের ব্যবহার করা হচ্ছে সেগুলো দেখে মনে হয় পোড়ামাটি। পোড়ামাটি দিয়ে রাস্তা তৈরি হলে অল্পদিনের মধ্যে রাস্তা নষ্ট হয়ে যাবে। আমরা চাই, এগুলো সরিয়ে মোটামুটি ভালোমনের ইট ব্যবহার করা হোক।

ফরিদপুর পৌরসভার উপ সহকারী প্রকৌশলী শিমুল দাসের সাথে কথা বলে জানা যায়, অনাথের মোড় থেকে মেডিকেল হাসপাতাল এলাকা পর্যন্ত ১৩৫০ মিটার রাস্তা প্রশস্তকরণসহ সংস্কারের কাজ করা হচ্ছে। এ কাজের ব্যয় ধরা হয়েছে ১ কোটি ৮৬ লক্ষ টাকা। তিনি আরও জানান, রাস্তাটির কাজ করছে গোপালগঞ্জের কামরুল এন্ড ব্রাদার্স নামে একটি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান এবং সাব ঠিকাদার হিসেবে কাজটি তদারকি করছেন ফরিদপুরের ফারুক হোসেন নামে এক ব্যক্তি।

এ বিষয়ে ফারুক হোসেন মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে বলেন, আমি নিজেই কাজটি করছি। রাস্তার কার্পেটিং ভালোভাবে মিশানোর জন্য কিছু নিম্নমানের ইট ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে কোনো অনিয়ম করা হয়নি।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানের সবকিছুর দাম বাড়ার জন্য আমরা ভালোমনের সামগ্রী ক্রয় করতে পারছি না। সরকার নির্ধারিত প্রতিটি ইটের দাম ধরা হয়েছে ১০টাকা ৪৫ পয়সা কিন্তু ভাটা থেকে ভালো মানের ইট ক্রয় করতে গেলে ১৪ টাকা থেকে ১৫টাকা পর্যন্ত পরে যায়। বিটুমিনের দামও বাড়তি। যে কারণে বাধ্য হয়ে কিছু নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করতে হয়।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড